1. [email protected] : News room :
২০০ কোটি টাকা হাতিয়ে রোহিঙ্গা বেশে আত্মগোপনে ছিল গোদাগাড়ীর ইব্রাহিম - লালসবুজের কণ্ঠ
সোমবার, ২৯ মে ২০২৩, ০৫:৩৪ পূর্বাহ্ন

২০০ কোটি টাকা হাতিয়ে রোহিঙ্গা বেশে আত্মগোপনে ছিল গোদাগাড়ীর ইব্রাহিম

  • আপডেটের সময় : শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

মুক্তার হোসেন গোদাগাড়ী:
রাজশাহীর গোদাগাড়ীর প্রতারক ইব্রাহিম আলী(৪২)কে ১০৯টি মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করেছে থানা পুলিশ।তাকে বৃহস্পতিবার সকালে ঢাকার আদালতে হাজির কওর রিমান্ড চেয়েছে পুলিশ।স্থানীয় ও পুলিশ সুত্রে জানাযায়, গোদাগাড়ী পৌরসভার মহিশালবাড়ী গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তা ওমর আলীর ছেলে ইব্রাহিম আলী সিদ্দিক ষ্টোর নামে একটি কোম্পানী খুলে। এলাকার মানুষকে অতিরিক্ত মুনাফার লোভ দেখিয়ে প্রায় ২০০ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে লাপাত্তা হয়। ভুক্তভোগীরা তার বিরুদ্ধে রাজশাহীসহ দেশের বিভিন্ন জেলার আদালত ও থানায় ১০৯টি মামলা করেন। সবগুলো মামলাতেই তার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি হয়েছিল।কিন্তু গা ঢাকা দেওয়ায় ইব্রাহিম আলী কে খোঁজে পারছিল না গোদাগাড়ী থানা পুলিশ।

এ প্রসঙ্গে গোদাগাড়ী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ঢাকার লালবাগ থানায় দায়ের করা একটি মামলার সূত্র ধরে মঙ্গলবার (১৭ সেপ্টেম্বর) পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) কক্সবাজার থেকে ইব্রাহিম আলীকে গ্রেপ্তার করে।এরপর গোদাগাড়ী থানা পুলিশ সবকটি মামলায় ইব্রাহিমকে আটক গ্রেফতারী পরোয়ানা তামিল করেছে। সিআইডির এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, গত ২৮ মে ঢাকার লালবাগ থানায় ইব্রাহিমের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়।বাদী মহিশালবাড়ী গ্রামের আইনুদ্দীন মৌলভীর ছেলে শহীদুল ইসলাম ও অন্যানদের নিকট থেকে প্রতারক ইব্রাহিম ২০১৮ সালে ইট ভাটায় বিনিয়োগের প্রলোভন দেখিয়ে ৭ কোটি ৭৯ লাখ ৪৬ হাজার ২০০ টাকা নিয়ে পালিয়ে যান। এই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ২০১৪ সাল থেকে ইব্রাহিম গোদাগাড়ীতে ব্রিক ফিল্ডে ইট উৎপাদন শেষে লভ্যাংশ দেওয়ার মিথ্যা আশ্বাস দিয়ে এবং উচ্চ হারে সুদ দেওয়ার প্রতিশ্রুতিতে গোদাগাড়ীসহ রাজশাহী বিভাগের বিভিন্ন এলাকার শত শত নিরীহ লোকজনকে অর্থ বিনিয়োগ করার লোভ দেখায়। লোকজন প্রতারকের ফাঁদে পড়ে টাকা বিনিয়োগ করলে শতাধিক কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়ে আত্মগোপন করে।

অবশেষে সিআইডি ঢাকা মহানগর দক্ষিণের বিশেষ পুলিশ সুপার মোহাম্মদ কামরুজ্জামানের তত্ত্বাবধানে একটি দল কক্সবাজার থেকে ইব্রাহিমকে গ্রেপ্তার করে।ইব্রাহিম আলী মুখে দাড়ি রেখে শরীর কমিয়ে রোহিঙ্গাদের বেশে আত্মগোপন করেছিল। এরআগে ইব্রাহিমের শশুর হাসান আলী,দুলাভাই পৌর কাউন্সিলর ওবাইদল্লাহকে আটক সিআইডি।এ দুইজন আদালত জামিনে রয়েছে।এদিকে ইব্রাহিম আলী আটকের পর গোদাগাড়ীতে তার কয়েকজন সহযোগি গা ঢাকা দিয়েছে।

স্থানীয় লোকজনের দাবি, ইব্রাহিম তার সহযোগী ও নিজেই সরাসরি এলাকার লোকজনের কাছ থেকে প্রায় ২০০ কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়। তারা জানান, ইব্রাহিম আলী গোদাগাড়ীতে ‘সিদ্দীক স্টোর’ নামের কোম্পানির সরকারি কোন অনুমোদন না থাকলেও সিদ্দিক স্টোরের নামে ইব্রাহিম আলী এলাকার লোকজনের কাছ থেকে কোটি কোটি টাকা আমানত সংগ্রহ করতো। এক লাখ টাকায় প্রতি মাসে ১৩ হাজার টাকা লাভ দিবে সিদ্দিক স্টোর-এমন প্রচারণা চালায়। প্রতারণার শিকার বারুইপাড়া আলীপুরের তোজাম্মেল হক জানান,জমি বিক্রি করে ২৭ লাখ টাকা আমানত হিসেবে সিদ্দীক স্টোরে জমা করেন। এর বিপরীতে ৩০০ টাকার নন-জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে লিখিত ও সোনালী ব্যাংক গোদাগাড়ী শাখার একটি চেক প্রদান করে সিদ্দিক স্টোর। চুক্তি অনুয়ায়ী লাভের অংশের প্রতি মাসে ১৩ হাজার টাকা করে ১ লাখ টাকার বিপরীতে ৩৯ হাজার টাকা তিনমাস পর আমানতকারীকে দেয়ার কথা রয়েছে। লাভের অংশরসহ আমানতের টাকা ফেরত না দিয়ে গত বছর ১০ জুলাই স্ত্রী ও সন্তান নিয়ে এলাকা ছেড়ে পালি যায় ইব্রাহিম আলী।

উপজেলার দিয়াড় মানিক চকের কৃষক গিয়াসউদ্দীন ও তার ছেলে মিনারুল ৬ লাখ টাকা, গোদাগাড়ী পৌর এলাকার মহিষালবাড়ি মহল্লার জরিনা বেগম অন্যের বাড়িতে কাজ করে জমানো ৫০ হাজার টাকা সিদ্দিক স্টোরে জমা রেখেছিলেন। তোজাম্মেল, গিয়াসউদ্দীন ও জরিনা মত উপজেলার বিভিন্ন এলাকার ৫ শতাধিক ব্যক্তি সিদ্দীক স্টোরের স্বত্বাধিকারি ইব্রাহিমের কাছে প্রায় ২০০ কোটি টাকা আমানত হিসেবে জমা রয়েছে। ইব্রাহিম আলী একদিনেই ১৩টি ট্রাকসহ কোটি কোটি টাকার সম্পদের পাহাড় গড়েছে বলে এলাকায় গুঞ্জন আছে।

536Shares

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর