সিরাজগঞ্জে ২৬ রেলক্রসিংয়ে নেই গেইটম্যান,৩ বছরে ৭১ প্রাণহানি - লালসবুজের কণ্ঠ
    শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৮:২৮ অপরাহ্ন

    সিরাজগঞ্জে ২৬ রেলক্রসিংয়ে নেই গেইটম্যান,৩ বছরে ৭১ প্রাণহানি

    • আপডেটের সময় : বৃহস্পতিবার, ৯ জুন, ২০২২

    রাজশাহী প্রতিবেদক


    ঈশ্বরদী থেকে সিরাজগঞ্জের বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিমপাড় পর্যন্ত রেলপথে ৪৬টি অনুমোদিত রেল রেলক্রসিংয়ের মাত্র ৩০টিতে রয়েছে গেইটম্যান। রেলক্রসিংয়ে যান চলাচল একেবারেই ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। গেইটম্যান না থাকা অবশিষ্ট ১৬টি অনুমোদিত ও ১০টি অবৈধ অরক্ষিত রেলক্রসিংয়ে প্রতিদিন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যাতায়াত করছে যানবাহন ও লাখ লাখ মানুষ। গেইটম্যান না থাকায় অরক্ষিত এসব রেলক্রসিংয়ে প্রায়ই ঘটছে দুর্ঘটনা, হতাহত হচ্ছে হাজারও মানুষ।

    দীর্ঘ ৯৪ কিলোমিটার এই রেলপথে গত তিন বছরে ছোট-বড় মিলিয়ে ঘটা ৬১টি দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন ৭১ জন মানুষ। এ সকল ক্রসিংয়ে দুর্ঘটনায় জীবন হারানোদের পরিবারে নেমে আসছে সীমাহিন দুর্ভোগ, পঙ্গুত্ব বরণ করে মানবেতর জীবনযাপন করছেন অনেকেই। জনবল সংকটের কারণে অনুমোদিত রেলক্রসিংগুলোতে গেইটম্যান নিয়োগ ও অবৈধ রেলক্রসিং বন্ধ করা সম্ভব হচ্ছে না বলে জানিয়েছেন রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ।

    পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ে ও সিরাজগঞ্জ বাজার রেলওয়ে থানা সূত্রে জানা যায়, পাবনার ঈশ্বরদী থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু পশ্চিমপাড় পর্যন্ত দীর্ঘ ৯৪ কিলোমিটার রেলপথে ৪৬টি অনুমোদিত রেলক্রসিং রয়েছে। এর মধ্যে গেটম্যান নিয়োগ রয়েছে মাত্র ৩০টিতে। বাকী ১৬টি রেলক্রসিং রয়েছে অরক্ষিত। এছাড়া আরও ১০টি অবৈধ রেলক্রসিং গড়ে উঠেছে। এসব স্থানে কেবলমাত্র সর্তকীকরন সাইনর্বোড টানিয়ে দায়িত্ব সেরেছেন কর্তৃপক্ষ। বাধ্য হয়েই এ সকল রেলক্রসিং দিয়ে প্রতিদিন হাজার হাজার যানবাহন ও লক্ষাধিক পথচারী জীবনের ঝুকি নিয়ে চলাচল করছে। ফলে প্রায়শঃ ঘটছে ছোট বড় দূর্ঘটনা, ঘটছে প্রানহানী। এছাড়া ছোট ছোট দুর্ঘটনায় আহত হয়ে পঙ্গুত্ব বরন করছেন অনেকেই। দীর্ঘদিন এ অবস্থা থাকলেও রেলক্রসিংগুলোতে গেইটম্যান নিয়োগ না হওয়ার জন্য কর্তৃপক্ষের উদাসিনতাকেই দায়ী করছেন ভুক্তভোগিরা।

    সরেজমিনে এসব লেভেল ক্রসিংয়ে ‘এই লেভেল ক্রসিং গেটে গেটম্যান নাই, নিজ দায়িত্বে ও সাবধানে লেভেল ক্রসিং পারাপার হইবেন’ লেখা সাইনবোর্ড দেখা গেলেও অধিকাংশ লেভেল ক্রসিংয়ে কোনো ধরনের নিরাপত্তা গেট বা এ জাতীয় কোনো সাইনবোর্ড নেই। এসব এলাকায় নিরাপত্তাজনিত কোনো ধরনের বাতিও নেই। বিশেষ করে জেলার উল্লাপাড়া উপজেলার সলপ এলাকায় লেভেল ক্রসিংয়ে বাঁক থাকায় ট্রেন আসছে কিনা সংকেত পাওয়া যায় না। ফলে প্রতিনিয়তই দুর্ঘটনা ঘটছে এখানে। শীত মৌসুমে কুয়াশার কারণে আরও বেশি সমস্যায় পড়তে হয় যাতায়াতকারীদের।

    সিরাজগঞ্জ বাজার রেলওয়ে থানা পুলিশের দেয়া তথ্য অনুযায়ি, দীর্ঘ ৯৪ কিলোমিটার এই রেলপথে গত তিন বছরে ছোট-বড় মিলিয়ে ঘটা ৬১ টি দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছেন ৭১ জন মানুষ। এছাড়া পঙ্গুত্ব বরণ করেছেন আরো অন্তত ২০ জন। এর মধ্যে ২০১৯ সালের ১৬ই জুলাই সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলার পঞ্চক্রোশি ইউনিয়নের একটি অরক্ষিত রেলক্রসিং পার হবার সময় ট্রেনের ধাক্কায় প্রাণ হারিয়েছেন নববধু-স্বামী ও পিতা-পুত্রসহ মাইক্রোবাস আরোহি ১১ বরযাত্রী। এ ঘটনায় পর নড়েচড়ে বসা পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ে একই সাথে ২১টি রেলক্রসিংয়ে গেইটম্যান নিয়োগ দেয়।

    সিরাজগঞ্জ বাজার রেলওয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ মো. হারুন অর রশিদ মৃধা বলেন, আমরা রেল দুর্ঘটনারোধে বিভিন্ন রেলক্রসিং সংলগ্ন এলাকায় বিট পুলিশিং জোরদার করেছি। এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তি, জনপ্রতিনিধি ও বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে জনসচেতনতা সৃষ্টিতে কাজ করছি। তারপরও গেইটম্যান ছাড়া দুর্ঘটনার আশঙ্কা রয়েই যায়। দুর্ঘটনারোধে অবিলম্বে রেলক্রসিংগুলোতে গেইটম্যান নিয়োগ দেয়া প্রয়োজন। বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদেরও জানানো হয়েছে।

    বাংলাদেশ রেলওয়ে সিরাজগঞ্জের ঊর্ধ্বতন উপ-সহকারি প্রকৌশলী (পথ) মো. আহসানুর রহমান জানান, অতিরিক্ত ঝুঁকিপ্রবন রেলক্রসিংগুলোতে গেইটম্যান নিয়োগ দেয়া হয়েছে। বাকিগুলোরও গেইটম্যান প্রয়োজন, কিন্তু জনবল ঘাটতি থাকায় সম্ভব হচ্ছে না। আর অবৈধ রেল ক্রসিংগুলো মূলত স্থানীয়ভাবে তৈরি করা হয়। আমরা এগুলো বন্ধ করতে নিয়মিত রেলওয়ের ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে অভিযান পরিচালনা করছি।

    টিআর/স্মৃতি
    16Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর