সিএনজিতে ‘ফাঁদ’, গন্তব্যে পৌঁছে দেওয়ার কথা বলে... - লালসবুজের কণ্ঠ
    বৃহস্পতিবার, ১৮ অগাস্ট ২০২২, ০৪:৪৩ পূর্বাহ্ন

    সিএনজিতে ‘ফাঁদ’, গন্তব্যে পৌঁছে দেওয়ার কথা বলে…

    • আপডেটের সময় : রবিবার, ৭ জুলাই, ২০১৯

    লালসবুজের কণ্ঠ ডেস্ক:

    সিএনজিচালিত অটোরিকশায় যাত্রী নেওয়ার ‘ফাঁদ’ পাতে ধর্ষকরা। সেই অনুযায়ী চার ধর্ষকের দল যাত্রী ও ড্রাইভার বেশে বসে থাকে সিএনজিতে। যেকোনো নারীকে একা পেলেই ধর্ষণের ‘টার্গেট’ করে ওরা। পরে এক নারী শ্রমিককে গন্তব্যে পৌঁছে দেওয়ার কথা বলে ধর্ষণ করে তাকে। পিরিয়ডের কথা বলেও রেহাই পাননি সেই নারী। ধর্ষণের পর তাকে রক্তাক্ত অবস্থায় সড়কের পাশে ফেলে যায় ধর্ষকরা। এ ঘটনায় গ্রেফতার দুই আসামির জবানবন্দিতে বেরিয়ে আসে ভয়ঙ্কর এ ফাঁদের তথ্য।

    শনিবার (৬ জুলাই) বিকালে চট্টগ্রামের আনোয়ারার জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম জয়ন্তী রানী রায়ের আদালতে এ স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয় দুই আসামি। গ্রেফতার দুই আসামি হলেন- সিএনজি চালক মোহাম্মমদ মামুন (২১) ও মোহাম্মদ হেলাল উদ্দিন (৩০)। এর আগে শুক্রবার রাতে তাদের গ্রেফতার করে পুলিশ।

    জেলা পুলিশের কোর্ট পরিদর্শক বিজন কুমার বড়ুয়া জানান, গার্মেন্টস কর্মীকে ধর্ষণের ঘটনায় গ্রেফতার দুইজনকে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট জয়ন্তী রাণী রায়ের আদালতে হাজির করা হলে তারা আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। এসময় তারা ধর্ষণের ঘটনার বর্ণনা দেয়।

    আনোয়ারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দুলাল মাহমুদ জানান, শুক্রবার রাতে অভিযান চালিয়ে দুইজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। আদালতে তারা স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। অন্য আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

    উল্লেখ্য, গত বুধবার (৩ জুলাই) রাত ৮টার দিকে চৌমুহনীর কালারমার দীঘি এলাকায় ওই নারীকে গণধর্ষণ করে রাস্তার পাশে ফেলে চলে যায় চার যুবক। খবর পেয়ে পরিবারের লোকজন এসে কিশোরীকে উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করায়। বৃহস্পতিবার (৪ জুলাই) চারজনের বিরুদ্ধে কিশোরীর বড় ভাই বাদী হয়ে আনোয়ারা থানায় মামলা দায়ের করে।

    11Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর