লাইসেন্স ছাড়া দুধ বিক্রেতাদের তালিকা চেয়েছেন হাইকোর্ট - লালসবুজের কণ্ঠ
    শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৯:৫৩ অপরাহ্ন

    লাইসেন্স ছাড়া দুধ বিক্রেতাদের তালিকা চেয়েছেন হাইকোর্ট

    • আপডেটের সময় : রবিবার, ২৩ জুন, ২০১৯

    ঢাকা সংবাদদাতা:

    রাজধানীতে লাইসেন্স ছাড়া দুধ বিক্রেতাদের তালিকা চেয়েছেন হাইকোর্ট। আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে বিএসটিআইকে এ তালিকা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

    রবিবার (২৩ জুন) দুই সদস্যের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

    মাত্র ১৮টি প্রতিষ্ঠান লাইসেন্স নিয়ে পাস্তুরিত দুধ বিক্রি করে বলে জানিয়েছে বিএসটিআই।

    তাছাড়া দুধের সিসা নিয়ে গবেষণা প্রতিবেদনকারী সরকারি প্রতিষ্ঠান ন্যাশনাল ফুড সেফটি ল্যাবরেটরির (এনএফএসএল) প্রধান ডা. শাহনীলা ফেরদৌসীকে কোনো ধরনের বিরক্ত না করার জন্য বিবাদীদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

    আদালতের আদেশ অনুযায়ী, বিএসটিআই ৩০৫টি নমুনা সংগ্রহ করেছে। পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর দুটি প্রতিষ্ঠানের পণ্য নিম্নমানের বলে প্রতিবেদন দিয়েছে সংস্থাটি। আর নমুনা সংগ্রহ করে ৫টি জায়গায় পরীক্ষার জন্য পাঠিয়েছে জানিয়ে প্রতিবেদন দিতে ১ মাস সময় চেয়েছে বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ। এ ব্যাপারে পরবর্তী আদেশের জন্য ১৫ জুলাই দিন ধার্য করেছেন আদালত। আগামী ২৩ জুনের মধ্যে এ প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

    আইনজীবী ব্যারিস্টার মোহাম্মদ ফরিদুল ইসলাম আদালতে নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের পক্ষে ছিলেন। ব্যারিস্টার সরকার এমআর হাসান মামুন ছিলেন বিএসটিআইয়ের পক্ষে। অ্যাড. সৈয়দ মামুন মাহবুব দুদকের পক্ষে ছিলেন। ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিনউদ্দিন মানিক রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন।

    এর আগে ১৫ মে ডা. শাহনীলা ফেরদৌসীকে প্রতিবেদন জমা দিতে নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। ২১ মে আদালতে প্রতিবেদন জমা দেন শাহনীলা।

    চলতি বছরের ১০ ফেব্রুয়ারি দেশের একটি শীর্ষ জাতীয় দৈনিকে ‘গাভির দুধ ও দইয়ে অ্যান্টিবায়োটিক, কীটনাশক, সিসা!’ শিরোনামে প্রতিবেদন প্রকাশ হয়। ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রক্রিয়াজাতকরণ ছাড়া গাভীর দুধে সহনীয় মাত্রার চেয়ে বেশি কীটনাশক, বিভিন্ন অ্যান্টিবায়োটিকের উপাদান ও অণুজীব মিলেছে। পাশাপাশি প্যাকেটজাত গাভির দুধেও অ্যান্টিবায়োটিক ও সিসা মিলেছে মাত্রার অতিরিক্ত। এসব পাওয়া গেছে দই ও দুগ্ধজাত পণ্যেও।

    এনএফএসএলের গবেষণায় এসব ফল উঠে আসে। সংস্থাটি জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার (এফএও) আর্থিক সহায়তায় গাভির খাবার, দুধ, দই ও প্যাকেটজাত দুধ নিয়ে এ বিষয়ে জরিপ চালিয়েছে।

    ওই প্রতিবেদন নজরে আসলে ১১ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্ট নিজ ইচ্ছায় রুলসহ আদেশ দেন। আদেশে প্রক্রিয়াজাতকরণ ছাড়া গাভির দুধ ও বাজারের প্যাকেটজাত দুধ, দই ও গো-খাদ্যের নমুনা সংগ্রহ করে তাতে কী পরিমাণ ব্যাকটেরিয়া, কীটনাশক, অ্যান্টিবায়োটিক, সিসা, রাসায়নিক মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর তা নিরূপণে একটি কমিটি গঠনের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

    24Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর