মেহেরপুর সীমান্তের ত্রাস লিটনের অত্যাচারে অতিষ্ঠ এলাকাবাসি - লালসবুজের কণ্ঠ
    শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৮:৩১ অপরাহ্ন

    মেহেরপুর সীমান্তের ত্রাস লিটনের অত্যাচারে অতিষ্ঠ এলাকাবাসি

    • আপডেটের সময় : সোমবার, ৬ জুন, ২০২২

    মেহেরপুর প্রতিনিধি;


    মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার সিমান্ত ঘেষা গ্রাম খাসমহলের চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ি লিটনের অত্যাচারে এলাকাবাসি অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে।

    বিভিন্ন সময়ে এলাকার নীরিহ লোকজনকে মাদক মামলায় ফাঁসিয়ে দেয়ার ভয় দেখিয়ে প্রশাসনের নামে অর্থ আদায় করেন। সর্বশেষ সরকারী পুকুরের পাড়ের গাছপালা ও মাটি বিক্রি করে আবারো আলোচনায় এসেছে এই লিটন।

    স্থানীয়রা জানান, এই লিটনের নামে একাধিক মাদক মামলা রয়েছে। সীমান্ত সংলগ্ন এলাকা হওয়ায় সে নির্বিঘেœ মাদক পাচার করে থাকে। মাদকের মধ্যে রয়েছে- গাঁজা, ফেনসিডিল, মদ ও ইয়াবা।

    তার গ্যাঙয়ে রয়েছে অন্ততঃ ১০ জন। যারা প্রতিনিয়ত মাদকদ্রব্য দেশের এ প্রান্ত থেকে অন্যপ্রান্তে পৌঁছে দেয়। মাদক নিয়ে ধরা পড়ার পরও অজ্ঞাত কারণে লিটন পার পেয়ে যায়।

    খাসমহল গ্রামের শহিদুল ইসলামের স্ত্রী সাহিদা খাতুনের অভিযোগ, প্রতিবেশি রবজেল হত্যামামলায় আসামী হিসেবে ফাঁসিয়ে দেয়া ভয় দেখায় ও ডিবি পুলিশের হাত থেকে বাঁচতে হলে এক লাখ টাকা দিতে হবে বলে ভয় দেখায়।

    অবশেষে বাড়ির সহায় সম্বল বিক্রি করে লিটনকে ৮৬ হাজার টাকা তুলে দেন সাহিদা খাতুন। গ্রামের সমাজপতিরা বেশ কয়েকবার সালিশ করলেও ওই টাকা ফেরত দেননি লিটন।

    এদিকে গ্রামের সরকারী একটি পুকুর খননের কাজে লিটনকে প্রকল্প সভাপতি করা হয়। আট লাখ টাকা ব্যয়ে খননকৃত পুকুর পাড়ের গাছপালা ও পুকুরের মাটি বিক্রি করেছেন আড়াই লাখ টাকার।

    উপরন্ত পুকুরের ধারে যারা বসত করছেন তাদের বের হবার জন্য রাস্তা তৈরী করতে তাদের কাছ থেকে নিয়েছেন মোটা অংকের টাকা। যদিও ওই বাসিন্দারা ভয়ে মুখ খোলেনি।
    এ ব্যাপারে উপজেলা মৎস অফিসার সহিদুর রহমান জানান, অসচ্ছতার কারণে লিটনকে পিআইসি থেকে বাদ দেয়া হয়েছে।

    স্থানীয় কয়েকজন জানান, লিটন এত ভয়ঙ্কর যে, কেউ তার বিরুদ্ধে কথা বললেই মাদক দিয়ে ফাঁসানো হয়। মাঝে মাঝে ডিবি পুলিশের সোর্স হিসেবেও নিজেকে পরিচয় দেয় এবং পুলিশের নামে চাঁদা উত্তোলন করেন। তবে ডিবি ও পুলিশ বলেছে লিটন নামের কোন সোর্স তাদের নেই।

    এ ব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান রানা জানান, লিটনের ব্যাপারে তিনি অনেক অভিযোগ পেয়েছেন কিন্তু সে কারো কথা শোনে না বরং হত্যার হুমকী দেয়।

    কয়েকদিন আগে সরকারী পুকুরের মাটি বিক্রি ও গাছ বিক্রি করা নিয়ে এলাকাবাসি অভিযোগ করলে লিটন তাদেরকে বোমা মেরে হত্যার হুমকী দেয়।

    গাংনী থানার ওসি আব্দুর রাজ্জাক জানান, লিটন একজন দাগী লোক। তার বিরুদ্ধে অনেক অভিযোগ আছে। সে পুলিশের সোর্স নয়। যদি কেউ অভিযোগ করে তাহলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

    এ ব্যাপারে লিটন জানান, তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগের কোন ভিত্তি নেই।


    জাহিদ/তন্বী

    38Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর