ভেঙ্গে পড়েছে বরেন্দ্র অঞ্চলের সড়ক ব্যবস্থা - লালসবুজের কণ্ঠ
    রবিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, ০১:৪৭ পূর্বাহ্ন

    ভেঙ্গে পড়েছে বরেন্দ্র অঞ্চলের সড়ক ব্যবস্থা

    • আপডেটের সময় : রবিবার, ২৩ জুন, ২০১৯

    আসাদুজ্জামান মিঠু,বরেন্দ্র অঞ্চল: গ্রামের মানুষের ভাগ্য উন্নয়নে প্রায় দেড় যুগ আগে পর্যায়ক্রমে বরেন্দ্র অঞ্চলে রাস্তাগুলো নির্মাণ করা হয়েছিল। এরপর থেকে কোনো ধরনের সংঙ্কার নেই। রাস্তাগুলোর বেশিরভাগ চলাচলের অনুপোযোগী হয়ে পড়েছে।

    রাস্তার কার্পেটিং উঠে এমন পর্যায়ে গেছে যে, মনে হয় রাস্তাটি কাঁচা আবার অনেক রাস্তার মাঝে এমন গর্ত হয়েছে একটু বৃষ্টি হলে রাস্তা মধ্যে হাটু পানি জমে যায়। আর পুকুর পাশ ঘিষে যাওয়া পাকা সড়কগুলো ভেঙ্গে চলে যাচ্ছে পুকুরের পেটে।

    এসব চিত্র রাজশাহীসহ বরেন্দ্র অঞ্চলে গ্রামে গ্রামে মেঠোপথে দিয়ে বয়ে যাওয়া পাকা সড়কগুলোর। দীর্ঘদিন এসব সড়ক সংস্কার না হওয়াই গ্রামীণ আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের পিছিয়ে পড়ছেন মানুষ।
    এক সময় রাস্তাগুলোর কারণে এলাকার অনেক উন্নয়ন হয়েছে। কিন্তু এখন এসব রাস্তার কারণেই এলাকার উন্নয়ন থেমে যাচ্ছে। মানুষ ঠিকভাবে তাদের গন্তব্যে যেতে পারছেন না। মাঠে উৎপাদিত পণ্য ঠিকভাবে বাজারে নিয়ে আসতেও পারছে না।

    রাজশাহী স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ি, জেলার ৯টি উপজেলায় মোট সড়কের দৈর্ঘ্য ৬ হাজার ১০২ দশমিক ৩০ কিলোমিটার। এরমধ্যে পাকা সড়কের দৈর্ঘ্য ২ হাজার ৩২৫ দশমিক ২০কিলোমিটার। বাকি সড়কগুলো এখনো কাঁচা।

    সম্প্রতি রাজশাহীর তানোর ও গোদাগাড়ী উপজেলার কিছু এলাকায় ঘুরে দেখা গেছে। তানোর উপজেলা হতে তালন্দ সড়কের মাঝে বেলপুকুর মোড়। বেলপুকুর মোড় থেকে গ্রামের মেঠোপথ বয়ে ১২ কিলোমিটার ইলমদহী হাট-দুবইল-প্রকাশনগর হতে পাকা সড়ক গিয়ে ঠেকেছে মু-ুমালা বাজারে।

    এ সড়কে কার্পেটিং এমন ভাবে উঠেছে যানবহন তো দুরের কথা পায়ে হেটেও যাতায়াত করতে কষ্ট পাচ্ছে সাধারণ মানুষ। এছাড়াও এ রাস্তার মাঝে নারায়পুর গ্রাম। গ্রামটিতে রাস্তার পাশঘিষে বড় একটি পুকুরে পেটে ঢুকে গেছে প্রায় ৩০০ মিটার পাকা সড়ক। সড়কে অপরিচিত কোন যানবহন মাল বোঝায় নিয়ে গেলেই প্রতিদিনই ঘটে ছোট বড় দূর্ঘটনা।

    এদিকে মু-ুমালা হতে আমনুরার ৮ কিলোমিটার প্রধান সড়কটি কার্পেটিং উঠে শত শত খানেখন্দে ভরপুর। বাসসহ সকল যানবহন চলছে হেলেদুলে। তবে বর্ষমৌসুমে বাস চলাচল বন্ধ থাকে। এছাড়া মু-ুমালা হতে গোদাগাড়ী উপজেলার যাতায়াতের প্রধান সড়ক ১৮ কিলোমিটার। এর মধ্যে গোদাগাড়ীর বটতলা মোড় পর্যন্ত ১৩ কিলোমিটার কয়েক দীর্ঘ একযুগ সংস্কার না হওয়াই এমন পর্যায়ে রয়েছে যে পাঁচ বছর ধরে বাস চলাচল বন্ধ আছে। চলছে চাইছেনা ভটভাটিও। এতে করে স্কুল কলেজ পড়–য়া শিক্ষার্থীরা পড়েছেন বিপাকে।

    এমন অবস্থা শুধু তানোর-গোদাগাড়ীর সড়কের নয়,বরেন্দ্র অঞ্চলের বেশি ভাগ উপজেলার গ্রামে সড়ক গুলো কমবেশি একই অবস্থা রয়েছে। সংস্কারে অপেক্ষায় রয়েছে গ্রামের মানুষ।

    তানোর উপজেলার নারায়নপুর গ্রামের মেছের আলী ও হারুন নামের দুইজন কৃষক লালসবুজের কণ্ঠকে জানান, এক সময় আর্শিবাদ হলেও এখন রাস্তাগুলো এলাকাবাসীদের কাছে অভিশাপ হয়ে উঠেছে। বর্তমানে তানোর উপজেলাতে প্রচুর পরিমাণে মাঠে আলু উৎপাদিত হচ্ছে,বেড়েছে তাজা মাছের সরবরহ। এসব পণ্য জেলা শহর ও রাজধানী পাঠাতে শুধু রাস্তার জন্য দ্বিগুন ভাড়া দিয়েও মিলছেনা যানবহন। তাতে আর্থ সামাজিক উন্নয়নে পিছিয়ে পড়ছেন গ্রামের মানুষ।

    গোদাগাড়ী উপজেলার চাঁনন্দলায় গ্রাম। মু-ুমালা হতে চানন্দাল গ্রাম ৫ কিলোমিটার। সেই রাস্তায় বোঝার উপায় নাই যে এটি পাকা রাস্তা। সাজ্জাদ আলী একজন ভ্যানচালক। বুধবার সকালে ওই রাস্তা দিয়ে মু-ুমালা বাজারে ভ্যান চালিয়ে যাচ্ছিলেন তিনি। সমস্যার কথা বলতে গিয়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধির ওপরে ক্ষোভ ঝাড়লেন তিনি।

    স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর(এলএজিইডি) তানোর উপজেলা প্রকৌশলী আব্দুল্লাহ আল মামুন লালসবুজের কণ্ঠকে জানান,চলতি বছরেই গ্রামের অধিকাংশ সড়ক সংস্কার করা প্রক্রিয়া শেষ পর্যয়ে রয়েছে।
    এছাড়াও ২০০৮ সাল থেকে তানোর উপজেলায় নতুন পাকা সড়ক প্রায় ১০০ কিলোমিটার করা হয়েছে। আর ভাঙ্গা সড়কগুলো চলতি বছরেই তানোর হতে চৌবারিয়া ১২ কিলোমিটার মু-ুমালা হতে কাকন হাট ১৪ কিলোমিটার মু-ুমালা হতে গোদাগাড়ীর জটেবটতলা মোড় পর্যন্ত ১৩ কিলোমিটার এবং আমনুরা ধামধুম হতে মু-ুমালা ৮ কিলোমিটার টেন্ডারের কাজ শেষ পর্যায়ে রয়েছে। কয়েক মাসের মধ্যে কাজ শুরু হবে। বাকী সড়ক গুলো আগামী অর্থ বছরে বরাদ্দ পাওয়া গেলে সংস্কার করা হবে।

    গ্রামীণ সড়কগুলোর বিষয়ে একই বক্তব্য দিচ্ছেন স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর (এলএজিইডি) বরেন্দ্র অঞ্চলের উপজেলার প্রকৌশলীরা। তারা বলছেন সংস্কারে জন্য প্রোপজল পাঠানো হয়েছে। অনেক রাস্তা সংস্কার কাজ চলছে।

    139Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর