1. [email protected] : News room :
বিশ্বকে বিস্মিত করে বাংলাদেশের জয় - লালসবুজের কণ্ঠ
বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ০৭:১৬ পূর্বাহ্ন

বিশ্বকে বিস্মিত করে বাংলাদেশের জয়

  • আপডেটের সময় : সোমবার, ১৭ জুন, ২০১৯

লালসবুজের কণ্ঠ ডেস্ক:
সাকিব-লিটন দাসের দাপুটে ব্যাটেই অসাধারণ এক জয় তুলে নিয়েছে বাংলাদেশ এই ম্যাচের আগে হিসেবটা ছিলো এমন।

বিশ্বকাপে টিকে থাকতে হলে এই ম্যাচ জিততেই হবে। সেই হিসেব পূরণ করলো বাংলাদেশ দাপুটে কায়দায়। ওয়েস্ট ইন্ডিজের ৩২১ রানের বিশাল রান পাহাড় টপকে বাংলাদেশ ম্যাচ জিতলো ৭ উইকেটে! তখনো ম্যাচের ৫১ বল বাকি!

যে ভঙ্গিতে বাংলাদেশ এই ম্যাচ জিতলো তাতেই আরেকবার পরিস্কার-বড় একটা মিশন নিয়েই এসেছে এবারের বিশ্বকাপে বাংলাদেশ! সাকিবের ১২৪ রানের সেঞ্চুরি ও লিটন দাসের ৯৪ রানের সেঞ্চুরি ছুঁইছুঁই ইনিংস সেই প্রমাণই দিচ্ছে।

ওয়ানডে ক্রিকেটে এত বেশি রান তাড়া করে আগে কখনো জেতেনি বাংলাদেশ। এই ম্যাচ জিতে সেই নতুন রেকর্ড তৈরি করলো মাশরাফির দল। ম্যাচের আগে বলাবলি হচ্ছিলো ওয়েস্ট ইন্ডিজ ঝড় তুলবে টন্টনে। কিন্তু ব্যাট হাতে যে উল্টো প্রলয় বইয়ে দিলো বাংলাদেশই। সাকিব হাঁকালেন বিশ্বকাপে তার টানা দ্বিতীয় সেঞ্চুরি। চার ম্যাচে তার দুটো সেঞ্চুরি। দুটো হাফসেঞ্চুরি। উইকেট শিকার পাঁচটি।

সময় এবং ম্যাচের হিসেবে ইংল্যান্ড বিশ্বকাপের মাত্র অর্ধেক পথ শেষ হয়েছে। আর এই সময়ের বিশ্বকাপের সেরা তারকা আর কেউ নন-বাংলাদেশের সাকিব আল হাসান!

টন্টনে টসে জিতে মাশরাফি বোলিং বেছে নেন। সকালের শীতল আবহাওয়া ও আকাশে মেঘের আনাগোনা দেখে বাংলাদেশ অধিনায়ক এই সিদ্ধান্ত নেন। বোলিংয়ের শুরুটা বাংলাদেশের দুর্দান্ত হয়। ক্রিস গেইল ১৩ বল খেলে শূন্য রানে আউট। প্রথম পাওয়ার প্লে’তে ওয়েস্ট ইন্ডিজের ব্যাটিংকে ‘ঘুম’ পাড়িয়ে রাখেন বাংলাদেশের বোলিং। ১০ ওভারে ১ উইকেটে মাত্র ৩২ রান। মাশরাফি বিন মর্তুজা কোনো উইকেট না পেলেও ওপেনিং স্পেলটা হয় তার দেখার মতো। ৫ ওভারে ১ মেডেনসহ মাত্র ৯ রান খরচ করেন তিনি। সাকিব মাঝের বোলিংয়ে এসে ফেরান এভিন লুইস ও নিকোলাস পুরানকে। মুস্তাফিজ ও সাইফুদ্দিন রান খরচা একটু বেশি দিলেও দুজনেই তিনটি করে উইকেট পান।

এভিন লুইস, সাই হোপ ও শিমরান হেটমায়া-এই তিন ব্যাটসম্যানের হাফসেঞ্চুরি এবং অধিনায়ক জ্যাসন হোল্ডারের ১৫ বলে দ্রæতগতির ৩৩ রানের সুবাদে ওয়েস্ট ইন্ডিজ পৌছে যায় ৩২১ রানের চুড়ায়।

সেই চূড়াকে সহজ এবং সমতল রাস্তা বানিয়ে ফেলে বাংলাদেশ নিজেদের ব্যাটিংয়ে। সৌম্য-তামিমের ৫৬ রানের ওপেনিং জুটিতে ভালো শুরু মিললো। সৌম্য ফিরলেন ২৯ রান করে। চমৎকার খেলতে থাকা তামিম ইকবাল রান আউট হলেন শেল্ডন কটরোলের দুর্দান্ত ফিরতি থ্রোতে।

মুশফিক লেগসাইডের যে বলে ক্যাচ দিলেন সেটা ব্যাটে না লাগলে নিশ্চিত ওয়াইড হয়। জীবনের প্রথম বিশ্বকাপ ম্যাচ খেলতে নেমে লিটন দাস যে দক্ষতার পরিচয় দিলেন তাতে নিশ্চিত করে বলা যায় পাঁচ নম্বরে বাকি ম্যাচ গুলোতে তার অবস্থান পাকা।

আর সাকিব তো তুলনাহীন! ৪০ বলে হাফসেঞ্চুরি পেলেন। সেঞ্চুরির হাসিতে তার ব্যাট হাসলো ৮৩ বলে। পুরোটা ইনিংস জুড়ে সাকিব যে ব্যাটিং করে গেলেন তাতে নিশ্চিত ওয়েস্ট ইন্ডিজের অনেকদিনের ঘুম হারাম!

নিয়ন্ত্রণ। আগ্রাসন। প্রভাব। দাপট! এমনসব আরো অনেক শব্দমালাকে একসঙ্গে যোগ করলে যা পাবেন সেটাই সাকিবের ১২৪ রানের ইনিংস!

150Shares

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর