বিলুপ্তির পথে গ্রাম-বাংলার ঐতিহ্যবাহী মহিষের গাড়ি - লালসবুজের কণ্ঠ
    মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ০৩:১৮ পূর্বাহ্ন

    বিলুপ্তির পথে গ্রাম-বাংলার ঐতিহ্যবাহী মহিষের গাড়ি

    • আপডেটের সময় : বুধবার, ২৬ জুন, ২০১৯

    সিরাজগঞ্জ সংবাদাতা:
    এক সময় উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন এলাকায় শুষ্ক মৌসুমে একমাত্র বাহন ছিল গরু কিংবা মহিষের গাড়ি। সিরাজগঞ্জ এলাকার মানুষ ধান-চাল, পাটসহ সব ধরনের কৃষিপণ্য পরিবহনে মহিষের গাড়ি ব্যবহার করত। কিন্তু এখন আর সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার বাথান (গো-চারণ ভূমি) ও পাথার (নিচু জমি) আগের মতো আর মহিষের গাড়ি চোখে পড়ে না!

    এখন মহিষের গাড়ির জায়গা দখল করে নিয়েছে, শ্যালোইঞ্জিন চালিত ভটভটি, করিমন, নছিমন, অটোভ্যান, পিকাপভ্যানসহ নানা যান্ত্রিক পরিবহন। ফলে বিল, বাথান ও পাথার এলাকায় মহিষের গাড়ি আর চোখে পড়ে না তেমন। মাঝে মধ্যে দুই-একটা দেখা গেলেও তা আসে অন্য কোনো স্থান থেকে। ফলে শাহজাদপুর উপজেলায় মহিষের গাড়ি এখন প্রায় বিলুপ্তির পথে।

    এ ব্যাপারে জামসাদ ও আমজাদ আলী নামের দুই মহিষের গাড়িয়াল জানান, আগে সারা বছর গাড়ি চালাতাম। এখন শুধু ইরি-বোরো ধান কাটার সময় কাজ করি। আর সারা বছর বেকার বসে থাকি। ইরি-বোরো ধান কাটা শুরু হলে ভাঙ্গুড়া থেকে এসে শাহজাদপুর উপজেলার পোতাজিয়া ও কায়েমপুর ইউনিয়নের রাউতারা, পোতাজিয়া, চরাচিথুলিয়া, বহলবাড়ি, রেশমবাড়ি, ভাইমারা, চুলধরি, সড়াতৈল, বনগ্রাম, বৃ-আঙ্গারু গ্রামের কাটা ধান পাথারের জমি থেকে বাড়িতে এনে দিই।

    এ দিয়ে যা আয় হয় তা দিয়ে সারা বছর চলি। আগে চলনবিল অঞ্চলের অন্তত ১০টি উপজেলার শতাধিক গ্রামে এ কাজ করতাম। এখন সবাই ভটভটি, করিমন, নছিমন দিয়ে এ কাজ করায়। ফলে আমাদের চাহিদা কমে গেছে। এতে আমরা চরম অভাবের মধ্যে দিন যাপন করছি।

    এ ব্যাপারে রাউতারা গ্রামের কৃষক আকবর আলী, খোকন মণ্ডল, আব্দুল গফুর, আব্দুল মান্নান, আজাদ রহমান, পোতাজিয়া গ্রামের সোহেল রানা, আজগর আলী, আব্দুল কুদ্দুস, চরাচিথুলিয়া গ্রামের সোহেল মণ্ডল, আব্দুল আলীম, আশিকুর রহমান, জেলহক আলী বলেন, অল্প সময়ের মধ্যে যান্ত্রিক পরিবহনে কৃষিপণ্য এক স্থান থেকে আরেক স্থানে সহজে পরিবহন করা যায়। তাই এই এলাকা থেকে মহিষের গাড়ি, গরুর গাড়ি ও ঘোড়ার গাড়ি প্রায় বিলুপ্ত হয়ে গেছে। যারা এখন এ পেশা বদলায়নি, তারা বাপ দাদার পেশা হিসেবে ধরে রেখে কাজের অভাবে মানবেতর জীবন যাপন করছে।

    কৃষকরা বলেন, যান্ত্রিক পরিবহনে খরচ বেশি। তাছাড়া যে সকল স্থানে যান্ত্রিক পরিবহন ব্যবহার করা সম্ভব হয় না। সেখানে মহিষের গাড়ি সহজে ব্যবহার করা যায়। ফলে এখনো দুই-একটি মহিষের গাড়ি ইরি-বোরো ধান কাটার সময় এ অঞ্চলে দেখা যায়। হয়তো এক সময় হয়তো গ্রামবাংলার ঐতিহ্যবাহী বাহনটা আর চোখে পড়বে না।

    এ ব্যাপারে শাহজাদপুর উপজেলা বাসদের সভাপতি অ্যাডভোকেট আনোয়ার হোসেন ও সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল আলীম ফকির বলেন, গ্রামবাংলার চিরায়ত এ ঐতিহ্যবাহী মহিষের গাড়ির চাহিদা এখনো একেবারে শেষ হয়ে যায়নি। তাই যে সকল মশিয়ালরা এখনো টিকে আছেন তাদের বিভিন্ন সরকারি পরিবহন কাজে ব্যবহার করে টিকিয়ে রাখা সম্ভব।

    যেমন- উপজেলা সদরের গুদাম থেকে ইউনিয়ন পরিষদে ভিজিএফ, ভিজিডির চাল পরিবহন, সরকারি ঠিকাদারি মালামাল গন্তব্যে পৌঁছানোসহ বিভিন্ন সরকারি কাজে মহিষের গাড়ি ব্যবহার করা সম্ভব। তাই সরকার এ দিকে দৃষ্টি দেবে বলে তারা জোর দাবি করেন।

    এ ব্যাপারে শাহজাদপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাজমুল হুসেইন খান বলেন, গ্রামবাংলার এ ঐতিহ্যবাহী মহিষের গাড়ি যাতে এ অঞ্চলে টিকে থাকে সে জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করা হবে।

    408Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর