1. [email protected] : News room :
বরেন্দ্রের জলাশয় থেকে হারিয়ে যাচ্ছে শাপলা ফুল - লালসবুজের কণ্ঠ
মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪, ০৮:১৫ অপরাহ্ন

বরেন্দ্রের জলাশয় থেকে হারিয়ে যাচ্ছে শাপলা ফুল

  • আপডেটের সময় : রবিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

আসাদুজ্জামান মিঠু: একযুগ আগেও বরেন্দ্র অঞ্চলের গ্রামের খাল বিল-মাঠের পুকুরে অজস্র শাপলা ফুল দেখা যেত। লাল কিংবা সাদা শাপলা ফুল ফোটা জলাশয় দেখে মুগ্ধ হতেন শহর থেকে গ্রামে আসা প্রকৃতি প্রেমিরা। গ্রামের শিশু-কিশোরাও দলে দলে জলাশয়ে নেমে প্রতিনিয়ত ফুল তুলতেন আর আনন্দতে মেতে উঠতেন।

কিন্ত মাত্র একযুগের ব্যবধানে দেশের একমাত্র জাতীয় ফুল শাপলা গ্রামের জলাশয় থেকে কালের গর্ভে বিলিন হতে বসেছে। আর তার সাথে বিপন্নের পথে শাপলার জলাভূমির ফল ঢ্যাপ তবে এর গ্রাম্য ভাষায় নাম ভেট। তবে এখনও কিছু খাল-বিল ও মাঠের পুকুরে অল্প সংখ্যক শাপলা দেখা যায়।

জলাশয় থেকে শাপলা হারানোকে খাল-বিল ও জমিতে অতিমাত্রায় কীটনাশক ব্যবহার, জলবায়ু পরিবর্তন, প্রাকৃতিক জলাভূমিগুলো ধ্বংসই কিত্রিম উপায়ে মৎস্যচাষ বেড়ে যাওয়া নতুন করে জলাশয়গুলো পূর্ণ খনন ইত্যাদিকে দায়ি করছেন কৃষি কর্মকর্তা ও পরিবেশবাদীরা।

তবে গ্রামের শিশু-কিশোরদের দলবেধে শাপলা তোলার সেই হারানো দৃশ্য সম্প্রতি দেখা মিললো বরেন্দ্র অঞ্চল বলে পরিচিত রাজশাহীর তানোর উপজেলা মু-ুমালা পৌর এলাকার পাঁচন্দর বাগমারা পাড়ার একটি মাঠের পুকুরে।

তাতে দেখা যায়,আট থেকে ১০ জন আদিবাসি নারী-পুরুষ একটি মাঠের পুকুরে দলের মধ্যে শামুক ধরতে ব্যস্ত সময় পার করছেন। আর এরই ফাকে কয়েকজন আদিবাসি শিশু-কিশোরের দল পুকুরে নেমে মেতে উঠেছেন শাপলা ফুল তুলতে। এমন শাপলা তোলা দৃশ্য গ্রামের জলাশয়ে এখন দেখা মিলা ভার।

রাজশাহীর তানোর উপজেলার পাচন্দর স্কুল পাড়ার মফিজ উদ্দিন নামের ৭৫ বছর বয়সী এক বৃদ্ধা সাথে কথা হয়। তিনি বলেন,এক সময় গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর একটা বিরাট অংশ শাপলা ফুলের ডাঁটা তরকারি হিসেবে খেতেন। শুধু তাই নয়, এই ‘ফুলের ফল’ভেট আমাশয়, বদহজম এবং রক্ত আমাশয় নিরাময়ের জন্য বেশ কার্যকরী বলেও প্রচলিত রয়েছে গ্রামে। কিন্তু যুগ পরিবর্তন সাথে সাথে‘শাপলা ফল’ বা ‘ভেট প্রকৃতি থেকে হারিয়ে যেতে বসেছে এখন। আর কয়দিন পরে আরো কত কি হারিয়ে যাবেরে বাবা।

তানোর উপজেলা উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা সমশের আলীর জানান,, জলাশয় শুকিয়ে যাওয়ায় হারিয়ে যাচ্ছে বাংলার মানুষের চিরো চেনা শাপলা ফুল। শাপলা সাধারণত আবদ্ধ জলাশয়ে জন্ম নেয়। জেলার অসংখ্য নদ-নদী, খাল-বিল, পুকুরসহ জলাশয় হ্রাস পাওয়ায় দেখা দিয়েছে পানির শূন্যতা। এতে ব্যাপকভাবে কমে যাচ্ছে শাপলা ফুল। সেসাথে ব্যাপকতা বেড়েছে কীটনাশকের ব্যবহার। চাষ হচ্ছে বাণিজ্যি ভাবে মাছ চাষ। সে কারণে অনেকে মাছ চাষ করার জন্য পুরকুর থেকে আগাছা পরিস্কার করে ফেলছে।

তিনি আরো জানান, দেশে দুই ধরনের শাপলা ফুল দেখা যায়, সাদা ও লাল। শাপলাকে সাদা জল ফল ও লাল শাপলাকে লাল রক্ত জল ফল বলা হয়। শাপলা ফুল যখন আবদ্ধ জলাশয়ে একসঙ্গে অনেকগুলো ফুটে থাকে তখন জলাশয়ে এক অন্যরকম অপরূপ সৌন্দর্যয়ের সৃষ্টি করে। আর এ ফুল যখন ফলে রূপান্তরিত হয় তখন তাকে বরেন্দ্র অঞ্চলের স্থানীয় ভাষায় ভেট ফল বলা হয়।

290Shares

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর