প্রশংসায় ভাসছেন চাঁপাইনবাবগঞ্জের বিচারক হুমায়ুন কবীর - লালসবুজের কণ্ঠ
    মঙ্গলবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ০১:১০ পূর্বাহ্ন

    প্রশংসায় ভাসছেন চাঁপাইনবাবগঞ্জের বিচারক হুমায়ুন কবীর

    • আপডেটের সময় : শনিবার, ২৭ আগস্ট, ২০২২

    চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি


    আড়াই মাস আগে গর্ভাবস্থায় ডিভোর্স হওয়া এক দম্পতির আদালতে আবার বিয়ে এবং আট মাসের ছোট্ট শিশুর পিতৃস্নেহ ফিরে পাওয়ার গল্প সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়। বিচারাঙ্গনে এমন মানবিককা ব্যাপক প্রশংসিত হন চাঁপাইনবাগঞ্জের জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম আমলি আদালতের বিচারক হুমায়ুন কবীর।

    দেশের অনেক সংবাদমাধ্যম গুরুত্বসহকারে সেই সংবাদটি প্রকাশ করে। এবার ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের প্রার্থনার স্থান মসজিদ নিয়ে চলামান মামলা নিষ্পত্তি করে প্রশংসায় ভাসছেন সেই বিচারক। আট মাসপর গত শুক্রবার মসজিদে নামাজ আদায় করেছে মানুষ। ঘটনার বিবরণ দিয়ে গত শুক্রবার সন্ধ্যায় তিনি নিজের ফেসবুক আইডিতে ওই মসজিদের সামনে মুসল্লিরা খাওয়া-দাওয়া করছেন এমন কয়েকটি ছবি পোস্ট করেছেন।

    স্ট্যাটাসটি ছড়িয়ে পড়ার পর  থেকেই প্রশংসায় ভাসছেন তিনি। বিচারকের ফেসবুক স্ট্যাটাসের শেষ বাক্য ‘বিচারের বিস্তৃতি শুধু আদালত চত্বরে না মানুষের অন্তরে ঘটুক, প্রতিষ্ঠিত হোক ন্যায়বিচার’। এ বাক্যটি সবার হৃদয় ছুয়ে গেছে।

    বিচারক মো. হুমায়ুন কবীর লিখেছেন- প্রতিদিনের মতো সেদিনও এজলাসে উঠলাম বিচার কাজ পরিচালনার জন্য। সাক্ষীর জন্য একটি মামলার ডাক পড়লো। মামলাটি মসজিদ সংক্রান্ত। মসজিদ কমিটির সেক্রেটারি ১৩ জনকে আসামি করে একটি ফৌজদারি মামলা করেছেন। আমি বাদীকে জিজ্ঞাসা করলাম মসজিদটি কি বর্তমানে চালু আছে? বাদী বললো মাননীয় আদালত মসজিদ বন্ধ আছে।

    এবার আসামিদের জিজ্ঞাসা করলাম তারা বললো মাননীয় আদালত মসজিদ চালমান আছে। দুই পক্ষের দুই বক্তব্য শুনে সিদ্ধান্ত নিতে পারছিলাম না। মামলার কার্যক্রম একদিনের জন্য স্থগিত রেখে পরের দিন সকল সাক্ষীর জন্য তারিখ নির্ধারণ করলাম। এজলাস  থেকে নেমে গোমস্তাপুর থানার ওসি তদন্তকে ফোন করে মসজিদের বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য সংগ্রহের নির্দেশ দিলাম।

    ওসি তদন্ত আন্তরিকতার সহিত আমার নির্দেশনা অনুসারে মসজিদের সমস্ত তথ্য প্রেরণ করলেন। জানালেন ২০০৪ সনে মসজিদটি প্রতিষ্ঠিত হয় কিন্তু  দীর্ঘ আট মাস ধরে মসজিদটি বন্ধ আছে। মামলার কারণে গ্রামবাসীদের মধ্যে দুইটি পক্ষে বিভক্ত হওয়ার জন্য এই ঘটনা ঘটেছে। পরের দিনে যথারীতি মামলা শুনানির জন্য আমার সামনে পেশ করা হলো। সাক্ষী সমাপ্ত অন্তে মামলার উভয় পক্ষের উদ্দেশ্যে কিছু কথা বলার সুযোগ হলো।

    আমার বক্তব্য, আমার অনাকাঙ্খিত হস্তক্ষেপে মামলার উভয়পক্ষকে একত্রিত করতে সক্ষম হলাম। তাদেরকে নির্দেশনা দিলাম শুক্রবার জুম্মার নামাজ শেষে মুসল্লিদের জন্য খাবারের আয়োজন করবেন। তাদের আন্তরিকতা দেখে আমিও লোভ সামলাতে পারলাম না। তাদের সেই আয়োজনে কন্ট্রিবিউট করার চেষ্টায় বাদীর হাতে ৫ হাজার টাকা দিলাম। আজই সেই মাহেন্দ্রক্ষণ। জুম্মার নামাজ হলো বাদী আসামী একসঙ্গে বসে খাবার খেলো এবং একটি মামলার যবনিকা ঘটলো। বিচারের বিস্তৃতি শুধু আদালত চত্বরে না মানুষের অন্তরে ঘটুক, প্রতিষ্ঠিত হোক ন্যায়বিচার।

    এদিকে, এ রায়ে সাধুবাদ জানিয়েছেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা জজকোর্টের আইনজীবিরা। জেলা জজ কোর্টের আইনজীবি ইয়াসমিন সুলতানা রুমা জানান, স্ব-প্রনোদিত এবং তাৎক্ষণিক তদন্তের মাধ্যমে এ ধরনের বিচারের রায় এবং বিচার নিষ্পত্তির ঘটনা প্রশংসনীয়। যা আগামীতে বিচার ব্যবস্থার যে প্রতিবন্ধকতা ও দীর্ঘসূত্রিতা তার অবসান হবে।


    টিআর/স্মৃতি

    0Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর