পাস হলো ইতিহাসের সবচেয়ে বড় বাজেট - লালসবুজের কণ্ঠ
    সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৯:২৭ পূর্বাহ্ন

    পাস হলো ইতিহাসের সবচেয়ে বড় বাজেট

    • আপডেটের সময় : রবিবার, ৩০ জুন, ২০১৯

    লালসবুজের কণ্ঠ ডেস্ক:
    পাস হলো ২০১৯-২০ অর্থ বছরের বাজেট। এবারের বাজেট পেশ করা হয়েছিল ৫ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকার। যা ছিল ইতিহাসের সবচেয়ে বড় অংকের বাজেট।

    এর আগে রবিবার সকাল ১০টায় স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে নতুন ২০১৯-২০ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট অধিবেশন শুরু হয়। শুরুতেই ৫৯টি বিল উথাপিত হয়।

    আগামীকাল সোমবার (১ জুলাই) থেকে এই বাজেট কার্যকর হবার কথা রয়েছে।

    সংসদ অধিবেশনে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন জানান, বর্তমানে সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে ৩ লাখ ৮ হাজার ৩৯২টি পদ শূন্য রয়েছে। শূন্যপদ পূরণের জন্য পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। তবে আদালতে মামলা, নিয়োগ বিধি না হওয়া এবং পদোন্নতিযোগ্য প্রার্থী না পাওয়ায় কিছু শূন্য পদ পূরণ করা যায় না বলে জানান তিনি।

    কুড়িগ্রাম-১ আসনের সংসদ সদস্য আছলাম হোসেন সওদাগারের প্রশ্নের জবাবে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী আশরাফ আলী খান খসরু জানিয়েছেন, বাংলাদেশ থেকে ৫০টির বেশি দেশে মৎস্য ও মৎস্যজাত পণ্য রফতানি করা হয়।

    চলতি ২০১৮-১৯ অর্থবছরের ১১ মাসে (মে ২০১৯ পর্যন্ত) বিভিন্ন দেশে প্রায় ৬৮ হাজার ৬৫৫ টন মৎস্য ও মৎস্য পণ্য রফতানি করে ৩ হাজার ৮৪৫ কোটি টাকা রাজস্ব অর্জিত হয়েছে। এর মধ্যে ৩১ হাজার ১৫৮ টন চিংড়ি রফতানি করে ২ হাজার ৯১৬ কোটি এবং ৩৫ হাজার ১৪৮ টন ফিনফিশ রফতানি করে ৮৯৯ কোটি ৩০ লাখ টাকা আয় হয়েছ।

    রংপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য মসিউর রহমান রাঙ্গার এক প্রশ্নের জবাবে আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক জানান, ২০০৮ সাল থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ ও হাইকোর্ট বিভাগে মোট ১০০ জন বিচারপতি নিয়োগ দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে আপিল বিভাগে ৬ জন ও হাইকোর্ট বিভাগে ২৮ জন।

    আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে সারাদেশে ১ লাখ ৬৪ হাজার ৫৫১টি মামলা বিচারাধীন রয়েছে।

    এর আগে শনিবার (২৯ জুন) রাত সোয়া আটটার দিকে বিদ্যমান কর ও শুল্ক হার পরিবর্তনের বিধান করে জাতীয় সংসদে অর্থবিল-২০১৯ সংশোধিত আকারে কণ্ঠভোটে পাস করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের পক্ষে বিলটি পাসের প্রস্তাব করেন। বিলটি গত ১৩ জুন উত্থাপন করা হয়।

    বিলে ২০১৯ সালের ১ জুলাই থেকে শুরু অর্থবছরের জন্য আর্থিক বিধান সম্বলিত কর ও শুল্ক প্রস্তাবের জন্য কতিপয় আইন ও বিধানের সংশোধন করা হয়েছে। এছাড়া বিলে উল্লেখিত বিধানসমূহ ২০১৯ সালের ১ জুলাই থেকে কার্যকর করারও বিধান করা হয়েছে। এ বিলের বিভিন্ন কর প্রস্তাবের ওপর বেশ কয়েকটি সংশোধনী গ্রহণ করা হয়।

    সরকারি দলের আ স ম ফিরোজ, আবদুস শহীদ, ইসরাফিল আলম, জাতীয় পার্টির কাজী ফিরোজ রশীদ, ফখরুল ইমাম, মশিউর রহমান রাঙ্গা, পীর ফজলুর রহমান, বেগম রওশন আরা মান্নান, মজিবুল হক চুন্নু, রুস্তম আলী ফরাজী, লিয়াকত হোসেন খোকা, বিএনপির হারুনুর রশীদ, রুমিন ফারহানা, জাসদের শিরীন আকতার ও গণফোরামের মোকাব্বির খান বিলের ওপর জনমত যাচাই, বাছাই কমিটিতে প্রেরণ ও সংশোধনীর প্রস্তাব আনেন।

    এর মধ্যে আ স ম ফিরোজ, আবদুস শহীদ, ইসরাফিল আলম, কাজী ফিরোজ রশীদ, ফখরুল ইমাম, মজিবুল হক চুন্নু, মশিউর রহমান রাঙ্গা, রওশন আরা মান্নান ও হারুনুর রশীদের আনা ২৯টি সংশোধনী গ্রহণ করা হয়। বাকি সংশোধনী ও অন্যান্য প্রস্তাবগুলো কণ্ঠভোটে নাকচ হয়ে যায়।

    বাজেট অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রী ছাড়াও অর্থমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, আইনমন্ত্রীসহ অনেক মন্ত্রী উপস্থিত ছিলেন।

    9Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর