পাওয়ার যেভাবে ধর্ষণ করে কিশোরীকে - লালসবুজের কণ্ঠ
    রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০২:৫৭ পূর্বাহ্ন

    পাওয়ার যেভাবে ধর্ষণ করে কিশোরীকে

    • আপডেটের সময় : বৃহস্পতিবার, ২৭ জুন, ২০১৯

    রাজশাহী ব্যুরো :
    রাজশাহীর একটি আদালতে ১৪ বছরের এক কিশোরী তাকে ধর্ষণ এবং গর্ভপাতের বর্ণনা দিয়েছে। বুধবার বিকালে রাজশাহী মহানগর মুখ্য হাকিম আদালতের বিচারক ১৬৪ ধারায় তার জবানবন্দি রেকর্ড করেন। জবানবন্দিতে ওই কিশোরী জানিয়েছে, যখন গর্ভপাত ঘটানো হয় তখন তার গর্ভের সন্তানের বয়স ছিল সাত মাস।

    ভুক্তভোগী ওই কিশোরী নগরীর গোরহাঙ্গা এলাকার এক ব্যক্তির পালিত মেয়ে। পাওয়ার (২২) নামে প্রতিবেশি এক যুবক তাকে ধর্ষণ করেছিল বলে সে তার জবানবন্দিতে উল্লেখ করেছে। গত সোমবার থেকে অভিযুক্ত পাওয়ার পলাতক। পাওয়ারের বাবার নাম আবুল হোসেন।

    ওই কিশোরীকে ধর্ষণ এবং গর্ভপাত ঘটানোর বিষয়ে গত সোমবার রাতে পাওয়ার ও তার বোন রিতা খাতুনের বিরুদ্ধে নগরীর বোয়ালিয়া থানায় মামলা হয়। কিশোরীর পালিত বাবা বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন। এরপর আসামি রিতাকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে। তবে এখনও পলাতক পাওয়ার।

    সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, প্রেমের ফাঁদে ফেলে ওই কিশোরীর সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করেন পাওয়ার। এতে ওই কিশোরী অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে। এর পর থেকেই কিশোরীর পরিবারের পক্ষ থেকে বেকার হলেও পাওয়ারের সঙ্গে বিয়ের জন্য প্রস্তাব দেয়া হয়। কিন্তু পাওয়ার তখন তার সম্পর্কের কথা অস্বীকার করে আসছিলেন।

    পরে অবশ্য তিনি বিয়ে করতে রাজি হন। ততদিনে ওই কিশোরী সাত মাসের অন্তঃসত্তা। ওই সময় পাওয়ারের পরিবারের পক্ষ থেকে বলা হয়, অন্তঃসত্তা অবস্থায় বিয়ে দেয়া যায় না। তাই ওই কিশোরীর গর্ভপাত ঘটাতে হবে। বিয়ের কথা চিন্তা করে কিশোরীর পরিবারও এতে রাজি হয়।

    এরপর গত সোমবার পাওয়ারের বোন রিতা খাতুন ও দুলাভাই সেলিম রেজা ওই কিশোরীকে নগরীর কলাবাগান এলাকার একটি ক্লিনিকে নিয়ে যান। সেখানে তাকে একটি ইনজেকশন দেয়া হয়। এরপর তাকে বাড়ি পাঠিয়ে দেয়া হয়। বাড়িতে আসার পর রাতে একটি মেয়ে সন্তান প্রসব করে ওই কিশোরী। তখনই বিয়ের জন্য প্রস্তাব দেয় কিশোরীর পরিবার।

    কিন্তু সন্তান প্রসবের পরই পাওয়ারের বোন ও দুলাভাই বিয়ে দিতে অস্বীকার করেন। এ সময় অভিযুক্ত যুবকও বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে যায়। এদিকে জন্ম নেয়ার ঘণ্টা খানেক পরই নবজাতক সন্তানটি মারা যায়। উপায় না দেখে তখন ওই কিশোরীর বাবা-মা বাড়ির পাশেই শিরোইল পুলিশ ফাঁড়িতে গিয়ে সমস্ত বিষয় অবহিত করে।

    পুলিশ তখন পাওয়ারের ভাই রঞ্জু ও বোন রিতাকে ফাঁড়িতে ধরে আনে। খবর পেয়ে ফাঁড়িতে যান স্থানীয় সাবেক ওয়ার্ড কাউন্সিলর রবিউল ইসলাম মিলু। তিনি বিষয়টি সমাধানের আশ্বাস দিয়ে রঞ্জু ও রিতাকে ফাঁড়ি থেকে নিয়ে আসেন। কিন্তু তিনিও বিয়ের আয়োজন করতে পারেননি।

    ফলে বাধ্য হয়ে রাতেই ওই কিশোরীর বাবা বাদী হয়ে থানায় মামলা করেন। মামলায় পাওয়ার এবং তার বোন রিতাকে আসামি করা হয়। মামলা দায়েরের পর পুলিশ ওই কিশোরীর মৃত সন্তানের মরদেহ উদ্ধার করে। মঙ্গলবার রাজশাহী মেডিকেল কলেজের মর্গে মরদেহের ময়নাতদন্তও করা হয়। এছাড়া এ দিন রিতাক গ্রেপ্তার করে কারাগারে পাঠানো হয়। পরে বুধবার পুলিশ ওই কিশোরীকে আদালতে নিয়ে গিয়ে ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে তার জবানবন্দি রেকর্ড করায়।

    মামলার তদন্ত কর্মকর্তা শিরোইল পুলিশ ফাঁড়ির উপ-পরিদর্শক (এসআই) আবদুল হাই বলেন, রাজশাহী মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মাহবুবুর রহমান তার খাস কামরায় ওই কিশোরীর জবানবন্দি রেকর্ড করেছেন। অভিযুক্ত পাওয়ারকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

    11Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর