চাঁপাইনবাবগঞ্জে পটাশ সারের তীর্ব সংকট - লালসবুজের কণ্ঠ
    শনিবার, ০৮ অক্টোবর ২০২২, ১২:০৯ পূর্বাহ্ন

    চাঁপাইনবাবগঞ্জে পটাশ সারের তীর্ব সংকট

    • আপডেটের সময় : মঙ্গলবার, ১৬ আগস্ট, ২০২২

    লালসবুজের কণ্ঠ রিপোর্ট,


    চাঁপাইনবাবগঞ্জে পটাশ সারের তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। এতে ভোগান্তিতে পড়েছে প্রান্তিক ও ক্ষুদ্র কৃষকরা। স্থানীয় কৃষি বিভাগ বলছে- তাদের কাছে পটাশ সার মঙ্গলবার পৌঁছেছে। আশা করা যাচ্ছে- আগামী দুদিনের মধ্যে এ সংকট নিরসন হবে।

    মঙ্গলবার (১৬ আগস্ট) সন্ধ্যায় জেলার বিভিন্ন বিসিআইসি ডিলারদের দোকানে গিয়ে এমন তথ্য পাওয়া গেছে।

    শহরের শিবতলা মোড় এলাকার সজিব নামে এক আম চাষি বলেন, আমের এখন শেষ সময়। গত ১০ দিন আগেই গাছের সব আম পেড়ে শেষ করেছি। গাছগুলোতে বর্তমানে সার দেয়া প্রয়োজন। কিন্তু গত তিনদিন ধরে বিভিন্ন স্থানে পটাশ সার খুঁজছি। দু:খজনক হলেও সত্য যে, কোন দোকানে সার পাচ্ছিনা।

    শিবগঞ্জ উপজেলার এনামুল নামে এক আম চাষি লালসবুজের কণ্ঠকে বলেন, গত দুদিন ধরে শ্রমিক ঠিক করে রেখেছি। আম বাগানে সার দিব বলে। কিন্তু বাগানে ডাই অ্যামোনিয়াম ফসফেট (ডিএপি) ও পটাশ সারের দরকার। মঙ্গলবার দুপুরে সার কিনতে গিয়ে দেখি, ডিএপি সার কিনে পেলেও মিলছে না পটাশ। এতে বিপাকে পড়েছি আমি।

    তিনি আরও বলেন, সকালে শিবগঞ্জ বাজারের বিসিআইসি ডিলার আনোয়ারের দোকানে ডিএপি সার ক্রয় করতে গেলে দাম চাইছেন ১ হাজার টাকা বস্তা। কিন্তু এ ডিএপি সারের বস্তার সরকারি দাম ৮০০ টাকা। তিনি ২০০ টাকা বেশি দামে বিক্রি করছেন।

    জেলার রাকিব, নাজমুল, হাকিম ও শরীফসহ বেশকিছু চাষি কাছে এমন অভিযোগ করেছেন।

    এছাড়াও উপজেলার বিভিন্ন খুচরা দোকানে পটাশ পাওয়া গেলেও দাম বেশ চড়া। সরকারি মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ৭৫০ টাকা। কিন্তু তারা বিক্রি করছেন ১৫০০ থেকে ১৬০০ টাকা বস্তা।

    সদর উপজেলার গোবরাতলা এলাকার বিসিআইসি ডিলার তানিউল হাসান ব্রাদার্সের মালিক তানিউল হক বলেন, গত দুই মাস ধরে পটাশ সারের তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। কৃষকের চাহিদামত সার পাওয়া যাচ্ছেনা। ইতিমধ্যেই পটাশ সারের অর্ডার দিয়ে রেখেছি। কিন্তু পাচ্ছিনা।

    শিবগঞ্জ বাজারের বিসিআইসি ডিলার আনোয়ার হোসেন বলেন, দেড় মাস থেকেই পটাশ সারের সংকট রয়েছে। আর ৮০০ টাকার ডিএপি ১ হাজার টাকা বিক্রির বিষয়ে তিনি বলেন, আমার কাছে যে সারগুলো আছে এগুলো বাইরে থেকে কেনা তাই দাম বেশি।

    শিবগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শরিফুল ইসলাম বলেন, সরকারি মূল্যের থেকে বেশি দামে সার বিক্রির কোন সুযোগ নেই। বিষয়টি আপনি বললেন দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

    এ বিষয়ে জানতে চাইলে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত উপ-পরিচালক (শস্য) রাজিবুর রহমান বলেন, কিছুদিন থেকেই পটাশ সারের সংকট ছিল। তবে তাদের কাছে পটাশ সার এসে পৌঁছেছে। আশা করছি আগামী দুদিনের মধ্যে পটাশ সারের সংকট কেটে যাবে।

     


    লালসবুজের কণ্ঠ/এস এস

    9Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর