চাঁপাইনবাবগঞ্জের আমের বাজারে ক্রেতার সরগরম - লালসবুজের কণ্ঠ
    মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ০২:৫৭ পূর্বাহ্ন

    চাঁপাইনবাবগঞ্জের আমের বাজারে ক্রেতার সরগরম

    • আপডেটের সময় : মঙ্গলবার, ৭ জুন, ২০২২

    চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি


    মধুর মাস জৈষ্ঠ্যে আমের রাজধানী খ্যাত চাঁপাইনবাবগঞ্জের বাজারে সুমিষ্ট পরিপক্ক গোপালভোগ ও খিরসাপাতসহ বিভিন্ন জাতের আম বিক্রি হচ্ছে। ব্যবসায়ীরা বলছেন, আবহাওয়াজনিত কারণে দেরীতে আম
    পাকার কারণে বাজারে আসতে বেশ সময় লেগেছে।

    তবে তারা বলছেন, এ জেলার আম দেশব্যাপী সুখ্যাতি থাকায় ক্রেতার সরগরম বাড়ছে। আমবাজার ঘুরে দেখা যায়, ব্যবসায়ীরা গোপালভোগ ও খিরসাপাতসহ নানান জাতের আম বাজারে নামিয়েছেন। আম বিক্রেতারা আম বিক্রির জন্য অস্থায়ীভাবে টিন সেড ঘর নির্মাণ করে আমের ক্যারেট আর ডালিতে থরে থরে সাজিয়ে রেখেছেন।

    আব্দুর রাকিব ও আব্দুল কাউউম নামে দুই আম ব্যবসায়ী বলেন, এ জেলার সুমিষ্ট আমের চাহিদা থাকায় ক্রেতাদের আগমন দিন দিন বাড়ছে, জৈষ্ঠ্যের শেষভাগে আম পেকে যাওয়ায় বাজারে আম নেমেছে। তবে, এ বছর আবহাওয়া প্রতিকুল থাকায় গোপালভোগসহ অন্যান্য জাতের আম বাজারে দেরীতে নেমেছে এবং আমের আমদানি চাহিদানুযায়ী তেমন বাড়েনি।

    তারপরও ক্রেতাদের আনাগোনা বেড়েছে। তারা বলছেন, আমের বাজার স্থায়ীভাবে নির্মাণ করলে বিক্রেতারা স্বাচ্ছন্দ্যে বিক্রয় করতে পারবে, তেমনি ক্রেতারাও ক্রয় করতে পারবে। তারা আরো জানান, জেলার সুমিষ্ট আম কিনতে দেশের বিভিন্ন্ধসঢ়; প্রান্ত থেকে বেশ কিছু পাইকার আসা শুরু করেছে।

    আবার অনেকেই মোবাইল ফোনের মাধ্যমে আমের চাহিদা পাঠানোর পর সেসব স্থানে কুরিয়ারের মাধ্যমে আম প্রেরণ করা হচ্ছে। আরেক আম ব্যবসায়ী শরিফুল আলম বলেন, আম পরিপক্ক হওয়ার পরেই বাজারে নিয়ে আসা হয়েছে।

    বাজারে গোপালভোগ, খিরসাপাত, খুদি খিরসা ও বৃন্দাবনী আম এসেছে, দাম মোটামুটি ভাল পাওয়া যাচ্ছে। শেষভাগে গোপালভোগ ২৬০০ থেকে ২৮০০ টাকা মণ, খিরসাপাত আম ২৬০০ থেকে ২৮০০ টাকা মণ, পাকা খুদি খিরসা ২২০০ টাকা থেকে ২৬০০ টাকা, বৃন্দাবনী ২২০০ থেকে ২৪ টাকা মণ দরে বিক্রি করা হচ্ছে। এ আমগুলো বাজারে যতদিন থাকবে ততই দাম বাড়বে। অনেক ক্রেতা বাজারে এসে পরখ করার পর আম ক্রয় করে নিয়ে যাচ্ছেন।

    তবে গত বছরের তুলনায় এবার আমের দাম কিছুটা বাড়তি। প্রসঙ্গত, জেলায় ৩৮ হাজার হেক্টর জমিতে আমের চাষাবাদ হয়েছে। প্রায় গাছের সংখ্যা প্রায় ৩২ লাখ। আর আম উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ২ লাখ ৯৩ হাজার মেট্রিক টন।

    কামাল/স্মৃতি

    0Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর