‘গুলি করে আসামিদের ধরব’সাবেক এমপি দেলোয়ার - লালসবুজের কণ্ঠ
    শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৯:০৮ অপরাহ্ন

    ‘গুলি করে আসামিদের ধরব’সাবেক এমপি দেলোয়ার

    • আপডেটের সময় : শনিবার, ২৯ জুন, ২০১৯

    বরগুনা সংবাদাতা:
    শাহনেওয়াজ রিফাত শরীফ হত্যায় জড়িতদের সঙ্গে কোনো ধরনের সম্পর্ক নেই বলে দাবি জানিয়ে বরগুনার সাবেক এমপি ও বর্তমান জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেছেন, প্রয়োজনে নিজের বৈধ অস্ত্র দিয়ে গুলি করে হত্যাকারীদের ধরবো।

    একইসঙ্গে হত্যাকাণ্ডের প্রধান দুই অভিযুক্ত সাব্বির আহমেদ নয়ন (নয়ন বন্ড) এবং নিজের ভায়রার ছেলে রিফাত ফরাজীর মৃত্যুদণ্ডও চেয়েছেন সাবেক এই এমপি।

    শুক্রবার (২৮ জুন) রাতে বরগুনা প্রেসক্লাবে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। রিফাত হত্যার পর থেকেই বিভিন্ন গণমাধ্যম ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অভিযোগ ওঠে, দেলোয়ার হোসেনের ক্ষমতার অপব্যবহার করেই রিফাত ফরাজী ও তার ভাই রিশান ফরাজী তাদের অপরাধ জগত নিয়ন্ত্রণ করতো। এ কারণেই এই সংবাদ সম্মেলন আয়োজন করেন দেলোয়ার হোসেন।

    রিফাত হত্যাকাণ্ডের ঘটনাকে মর্মান্তিক ও একটি নৃশংস হত্যাকাণ্ড বলে দুঃখ প্রকাশ করে সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের দেলোয়ার হোসেন বলেন, এ ঘটনায় জড়িতদের আমি দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করছি।

    রিফাত হত্যার মূল হোতা নয়ন বন্ড ও রিফাত ফরাজী বলে উল্লেখ করে জেলার চেয়ারম্যান বলেন, এখানে বিভিন্নভাবে ফেসবুকে দেখি আমাকে নিয়ে একটা নোংরা খেলা শুরু হয়েছে, কারণ রিফাত ফরাজী আমার আত্মীয়। ওদের সঙ্গে আমার কোনো রক্তের সম্পর্ক নেই। ওরা আমার ছেলেও না, ভাইও না, ভাইয়ের ছেলেও না, বোনের ছেলেও না, কিচ্ছু না।

    বৈবাহিক সূত্রে রিফাত তার আত্মীয় তবে এ ঘটনায় দেলোয়ার হোসেন কোনো ধরনের প্রশ্রয় দেননি বলে দাবি জানিয়ে বলেন, বৈবাহিক সূত্রে অনেক আত্মীয় থাকে। তারা কেউ ভালো হয়, কেউ খারাপ হয়, কেউ চোর হয়, কেউ সন্ত্রাসী হয়, ডাকাত হয়। সুতরাং সেখানে আমার ওপর এতটা দোষ চাপিয়ে দেওয়ার কারণটা কী আমি ঠিক বুঝতে পারি না। আমি এদের কোনোদিন প্রশ্রয় দেইনি।

    নয়ন বন্ডের সঙ্গে তার কোনো সম্পৃক্ততা নেই বলে দাবি জানিয়ে চেয়ারম্যান বলেন, জীবনে কোনোদিন নয়ন বন্ডকে দেখছি বলে আমার মনে পড়ে না।

    হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত আরেক আসামি ও তার ভায়রার ছেলে রিফাত ফরাজী মাদকসেবী বলে অভিযোগ তুলে তিনি বলেন, যে দিন আমি শুনেছি ও মাদকসেবী ওর বাবাকে আমি ফোন করে বলেছি, তোমার ছেলে মাদক সেবন করে, অতএব তুমি তাকে সংশোধন করো। কিন্তু ওর বাবা ব্যর্থ হয়েছে অথবা চেষ্টা করে নাই। যখন দেখলাম একটার পর একটা ঘটনা চলছে তখন আমি তাদের সঙ্গে সব সম্পর্ক ছেদ করে ফেলেছি। আমি আমার স্ত্রীকে বলেছি ওদের সঙ্গে কোনো সম্পর্ক রাখা যাবে না। কারণ মাদক, সন্ত্রাস এগুলো মানা যায় না।

    তিনি আরও বলেন, আমি পাঁচবার জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত হয়েছি। রুট লেভেল থেকে শুরু করে পার্লামেন্ট পর্যন্ত আল্লাহ আমাকে নিয়েছেন। কিন্তু কোনোদিন আমি অন্যায়, সন্ত্রাস ও মাদককে প্রশ্রয় দেইনি।

    তিনি বলেন, আমি পরিষ্কারভাবে আপনাদের মাধ্যমে সবাইকে জানাতে চাই, এই সন্ত্রাসী মাদকসেবী খুনীর সঙ্গে আমার বহু বছর ধরে কোনো সম্পর্ক নেই এবং কোনোদিন সম্পর্ক হবেও না। আমাকে নিয়ে এই ধরনের খেলায় যারা মত্ত হয়েছে আমি তাদের কাছে অনুরোধ করবো আপনারা এই খেলা থেকে বিরত থাকুন।

    সাবেক এই এমপি বলেন, আমার জনপ্রিয়তা ও আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতাদের ভালোবাসা আমার জীবনের কাল হয়ে দাঁড়িয়েছে। প্রয়োজনে রাজনীতি ছেড়ে দেব, কিন্তু দুর্নাম নিয়ে ঘরে ফিরে যেতে পারব না। প্রয়োজন হলে আমার বৈধ অস্ত্র দিয়ে গুলি করে রিফাত হত্যার আসামিদের ধরব বলেও হুঁশিয়ারি দেন তিনি।

    প্রসঙ্গত, বুধবার (২৬ জুন) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বরগুনার সরকারি কলেজের সামনে নয়ন ও তার সহযোগী সন্ত্রাসীরা প্রকাশ্যে রামদা দিয়ে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে গুরুতর আহত করে রিফাত শরীফকে (২৫)। এরপর অস্ত্র উচিয়ে বীরদর্পে এলাকা ত্যাগ করে তারা। পরে গুরুতর আহত অবস্থায় রিফাতকে প্রথমে বরগুনা সদর হাসপাতালে নেওয়া হয় এবং পরে বরিশাল শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান রিফাত।

    ঘটনাটির ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও ছড়িয়ে পড়ে। এ ঘটনায় সারা দেশের মানুষ প্রতিবাদ জানাচ্ছেন। সোশ্যাল মিডিয়ায় ইতোমধ্যে ব্যাপক ক্ষোভের ঝড় উঠেছে। জড়িতদের গ্রেফতারে খোদ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নির্দেশ দিয়েছেন।

    এই ঘটনায় ১২ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন রিফাতের বাবা দুলাল শরীফ। মামলার প্রধান আসামি সাব্বির হোসেন নয়ন। দুই নম্বর আসামি রিফাত ফরাজী ও তিন নম্বর আসামি রিশান ফরাজী।

    38Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর