করোনা টিকার দাম মনে নেই স্বাস্থ্যমন্ত্রীর - লালসবুজের কণ্ঠ
    রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০৩:২৩ পূর্বাহ্ন

    করোনা টিকার দাম মনে নেই স্বাস্থ্যমন্ত্রীর

    • আপডেটের সময় : সোমবার, ৬ জুন, ২০২২

    নিউজ ডেস্ক, লালসবুজের কণ্ঠ;


    করোনার টিকার দাম মনে নেই বলে সংসদকে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। রোববার জাতীয় সংসদ অধিবেশনে জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য মজিবুল হকের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, এখন পর্যন্ত সরকার প্রায় ৩০ কোটি ৫০ লাখ করোনা টিকা সংগ্রহ করেছে।

    এর মধ্যে ১৮ কোটি টিকা নগদ টাকা দিয়ে কেনা হয়েছে। বাকিগুলো কোভ্যাক্সের আওতায় বিনামূল্যে পেয়েছি। তবে দামগুলো এখন মনে নেই। এ বিষয়ে আমাকে নোটিস দিলে এর দাম এবং কোথা থেকে এসেছে সেটা বলতে পারব।

    স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অধিবেশনে প্রশ্নোত্তর পর্বে মুজিবুল হক চুন্নু তার প্রশ্নে করোনা টিকা কতজনকে দেওয়া হয়েছে, কতগুলো টিকা কেনা হয়েছে এবং উপহার পাওয়া গেছে এবং প্রতিটি টিকা কেনার পেছনে সরকারের ব্যয় কত হয়েছে তা জানতে চান।

    জবাবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী মুজিবুল হকের কাছে লিখিত প্রশ্ন চেয়ে বলেন, ‘এ পর্যন্ত সাড়ে ত্রিশ কোটি করোনা টিকা সরকার সংগ্রহ করেছে। এর মধ্যে ২৬ কোটি টিকা দেওয়া হয়েছে।

    এক ডোজ করে টিকা দেওয়া হয়েছে ১৩ কোটি মানুষকে, দুই ডোজ করে দেওয়া হয়েছে পৌনে ১২ কোটি এবং দেড় কোটি মানুষকে বুস্টার ডোজ দেওয়া হয়েছে। সেটা এখন চলছে।

    অবৈধ হাসপাতালের বিরুদ্ধে অভিযান চালানোয় সরকারকে ধন্যবাদ জানান বিএনপির দলীয় সংসদ সদস্য মো. হারুনুর রশিদ। তিনি বলেন, এখনও জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের অনেক আওয়ামী লীগ নেতা পরিচালিত হাসপাতালের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।

    সরকারি দলের সদস্য এম আবদুল লতিফের প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানান, দেশের ৮০ শতাংশ জনগোষ্ঠীকে কোভিড টিকা প্রদানের পরিকল্পনা করা হয়েছে। ৫ বছরের ওপরের সব জনগোষ্ঠীকে পর্যায়ক্রমে টিকা প্রদান করা হবে।

    আওয়ামী লীগের আনোয়ার হোসেন খানের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, দেশের চাহিদার ৯৮ শতাংশ ওষুধ দেশেই উৎপাদিত হয়।

    বর্তমানে ইউরোপ ও আমেরিকাসহ বিশে^র ১৫৭টি দেশে বাংলাদেশে উৎপাদিত প্রায় সব ধরনের ওষুধ রফতানি করা হয়। চলতি অর্থবছরের এপ্রিল মাস পর্যন্ত প্রায় ৫ হাজার ৩২ কোটি ৫৪ লাখ ৯০ হাজার ৪০৯ টাকার ওষুধ রফতানি করা হয়েছে।

    সংসদের সম্পূরক প্রশ্নের সুযোগ নিয়ে বিএনপির দলীয় সংসদ সদস্য রুমিন ফারহানা চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের জন্য বরাদ্দকৃত অর্থের মাত্র ৪১ শতাংশ ব্যয় হয়েছে উল্লেখ করে জানতে চান, কী কারণে বরাদ্দ করা অর্থ ব্যয় করা যায়নি?

    জবাবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, করোনার কারণে কিছু কাজ ব্যাহত হয়েছে। জুন মাস শেষের আগে ৯০ শতাংশের বেশি খরচ হয়ে যাবে।

    আওয়ামী লীগের নুরুন্নবী চৌধুরীর প্রশ্নের জবাবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক জানান, জনস্বাস্থ্যের নিরাপত্তার স্বার্থে ওষুধের গুণগত মান বজায় রাখা ও মান নিয়ন্ত্রণে সরকার সব সময় সচেতন রয়েছে।


    লালসবুজের কণ্ঠ/তন্বী

    42Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর