ঈদকে সামনে রেখে ব্যস্ত দর্জি কারিগররা - লালসবুজের কণ্ঠ
    রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০৩:০২ পূর্বাহ্ন

    ঈদকে সামনে রেখে ব্যস্ত দর্জি কারিগররা

    • আপডেটের সময় : শনিবার, ১৬ এপ্রিল, ২০২২

    চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি


    চাঁপাইনবাবগঞ্জে ঈদকে সামনে রেখে দর্জি পাড়ার কারিগররা ব্যস্ত হয়ে পড়েছে। দিন-রাত সেলাই মেশিনের শব্দে চারিদিক মুখরিত। যেন দম ফেলার সময় নেই দর্জি কারিগরদের। সব মিলিয়ে এখন ব্যস্ত সময় পার করছে দর্জি কারিগররা।

    ঈদে ধনী-গরিব, নারী-পুরুষ ছোট বড় সকলে নতুন জামা কাপড় পরিধান করে থাকে। আর পছন্দের পোশাক বানাতে দর্জির দোকানগুলোতে ভীড় শুরু করে দিয়েছেন সৌখিন পোশাক গ্রাহকরা, কেননা বাজারে বাহারী পোশাক থাকলেও মানানসই হয়না আর মাপেও ঠিকমত হয়না।

    জেলা শহরের অভিজাত নিউ মার্কেট, ক্লাব সুপার মার্কেট ও সাটু হল মার্কেট-এ ও বি ব্লকে ইয়োর চয়েস টেইলার্স, জননী লেডিস টেইলার্স, হুমা লেডিস টেইলার্সে গ্রাহকরা ভীড় জমাচ্ছেন। আর উৎসব আসলেই বিপণী বিতানগুলোতে নারী-পুরুষের পদচারণা বাড়তে থাকে। তবে, দর্জির দোকানগুলোতে তরুণী ও বিভিন্ন বয়সের নারীদের উপস্থিতি বেশ লক্ষ্যনীয়।

    তৈরীকৃত পোশাক অনেক সময় শরীরের সাথে পুরোপুরি মানানসই হয় না বিধায় দর্জি দোকানে সেলাই করা পোশাকের প্রতি আগ্রহ থাকে বেশি। নাওয়া খাওয়া কথাবার্তা বলার সময় নেই তাদের। শুধুমাত্র গ্রাহকদের সময় মত অর্ডার এবং দেওয়ার জন্য যত ব্যস্ততা। নিউ মার্কেটে আসা ক্রেতারা জানান, ছেলেমেয়েদের চাহিদা অনুযায়ী ভাল কাপড় কিনে পছন্দের পোশাক তৈরীর জন্য দর্জির দোকানে আসা।

    কেউ পছন্দ করেন তৈরীকৃত পোশাক, আবার নিজ পছন্দের ডিজাইনে তৈরি করা পোশাকে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করেন । এক্ষেত্রে তরুণ তরুণীদের আগ্রহই এগিয়ে। আমেনা বস্ত্রালয়ের স্বত্বাধিকারী মুজিবুর রহমান জানান, ক্রেতারা কাপড় কিনে বিভিন্ন দর্জির দোকানে তাদের পছন্দের পোশাক বানাচ্ছে।, এদিকে, কয়েকটি দর্জি কারখানাগুলোতে অতিরিক্ত কারিগর নিয়োগ করে রাত অবধি ক্রেতাদের চাহিদা মোতাবেক পোশাক তৈরীর কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন।

    যাতে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে পোশাক সরবরাহ করা যায়। কারিগরদের নিপুণ হাতের ছোঁয়ায় মান সম্পন্ন পোশাক তৈরীর জন্য অর্ডারীরা ছুটছেন শহরের বিভিন্ন মানসম্পন্ন টেইলার্সে। বিভিন্ন দর্জির দোকান ঘুরে দেখা গেছে, ক্রেতাদের অর্ডার নিতে ব্যস্ত। কেউ কেউ অর্ডার নিচ্ছেন, আবার অনেক দোকানে অর্ডার নেয়া বন্ধ করে দিয়েছে। কারিগররা বলেন, তরুণ তরুণীদের অর্ডার বেশি পাওয়া যাচ্ছে।

    তারা তাদের পছন্দের কাপড় ও ডিজাইনে সেলাই অর্ডার দিচ্ছে। নিউ মার্কেটের হুমা লেডিস টেইলার্সের স্বত্বাধিকারী শাহিন আলী জানান, এবার সাধারণত রমজানের আগেই থেকে কাজের চাপ বেড়ে গেছে। ফলে অর্ডার কম নেয়া হয়েছে।

    ডিজাইনের উপর নির্ভর করে মজুরী নেয়া হচ্ছে। তবে মজুরী নেয়া হচ্ছে ৩২০ টাকা। দাউদপুর রোডের বিসমিল্লাহ টেইলার্সের স্বত্বাধিকারী বাবু জানান, যুগের সাথে তাল মিলিয়ে আধুনিক ফ্যাশন ডিজাইনের পোশাক বানানোর কারণে ক্রেতারা এখানে আসেন। ঈদে এবার বাড়তি চাপ থাকে। তবে অর্ডার নেয়া বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

    কামাল/স্মৃতি

    43Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর