আমান রোপন নিয়ে দুশ্চিন্তায় কৃষক - লালসবুজের কণ্ঠ
    রবিবার, ০৩ জুলাই ২০২২, ০৫:৩৪ পূর্বাহ্ন

    আমান রোপন নিয়ে দুশ্চিন্তায় কৃষক

    • আপডেটের সময় : বুধবার, ২৬ জুন, ২০১৯

    আসাদুজ্জামান মিঠু,বরেন্দ্রঅঞ্চল:
    চলছে বর্ষা কাল। আষাঢ়ের ১১ দিন পেরিয়েছে তবুও বৃষ্টির দেখা নেই বরেন্দ্র অঞ্চলে। আষাড় মাস যতই যাচ্ছে ততই তিব্রতা বাড়ছে তাপমাত্রার। আবহাওয়া অধিদপ্তরও বৃষ্টি নিয়ে কোন সুখবর দিতে পারছেনা। অন্যদিকে আমনের বীজতলার মাস পেরিয়ে যাচ্ছে। তাই সময় মত বৃষ্টি না হওয়া ও বীজতলা বয়স হতে থাকায় আমন রোপন নিয়ে দুশ্চিন্তায় রয়েছে রাজশাহী সহ বরেন্দ্র অঞ্চলের কৃষকেরা।

    রাজশাহীসহ বরেন্দ্র অঞ্চলে চলতি মৌসুমে আউসের লক্ষ্য মাত্রা পুরণ না হলেও জ্যৈষ্ঠ মাসের মাঝা মাঝি সময় থেকে আমন চাষে প্রস্ততি শুরু করেছিলেন এ অঞ্চলের কৃষকেরা। এই জন্য মাঠে মাঠে আমনের বীজতলা তৈরি করছেন তারা।

    আষাঢ় মাস শুরুর পর পরেই জরেসরে বীজতলা পরিচর্যা ও সার প্রয়োগ শুরু করেছেন কৃষকেরা। আষাঢ়ের ১২ থেকে ১৫ দিন পরেই বীজতলা থেকে চারা তুলে আমন রোপন শুরু করবে ক্ষেতে। কিন্তুু আষাঢ়ের ১১ দিন পেরিলেও বৃষ্টির দেখা নাই বললেই চলে। তাই এখন পর্যন্ত কোন প্রকার আমন ক্ষেত প্রস্তত করতে পারেনি কৃষকেরা॥ ফলে আমন রোপন করতে না পারেই দুশ্চিন্তায় পড়েছেন বরেন্দ্র অঞ্চলের চাষীরা।

    গত বছরের আমন ধান পানির দরে বিক্রি করে লোকসান গুনতে হয়েছে। সেই লোকসানের বোঝা মাথায় নিয়েই চলতি মৌসুমে আবারও আমন চাষের প্রস্ততি শুরু করেছেন এই অঞ্চলের কৃষকেরা। চলতি মৌসুমে আমনের প্রস্ততি শুরুর প্রথমে বৃষ্টির অভাবে হচট খাচ্ছে এ অঞ্চলের কৃষকেরা।

    রাজশাহী জেলা কৃষি সম্প্রাসরণ অধিদপ্তরের তথ্য অনুযায়ী,চলতি মৌসুমে জেলায় আউস চাষের লক্ষ্যমাত্রা না পুরণ হলেও আমন চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।
    চলতি মৌসুমে রাজশাহী জেলায় আমনের লক্ষ্য মাত্রা ধরা হয়েছে ৭৩ হাজার ৩৩৫ হেক্টর জমিতে। এর জন্য জেলায় এবার বীজতলা হয়েছে ৩ হাজার ৬৬৭ হেক্টর জমিতে। এছাড়াও রাজশাহী অঞ্চলের,রাজশাহী,নঁওগা,নাটোর ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায় আমন চাষাবাদ হবে আরো ৩ লক্ষ্য ৫০ হাজার হেক্টরের উপরে। এই জন্য এ অঞ্চলে বীজতলা হয়েছে ১৮ হাজার হেক্টরের বেশি জমিতে।

    রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলা চান্দলায় গ্রামের কৃষক জালাল উদ্দিন জানান, চলতি মৌসুমে ১২ বিঘা জমিতে আমন চাষাবাদ করবেন। এই জন্য গত ১ মাস আগে বাড়ির পার্শে ৩৫ শতক জমিতে সুমন স্বর্না জাতের বীজতলায় বীজ বোপন করেছেন। আষাঢ়ের ১২ দিন পেরিয়ে গেলও বষ্টির দেখা নেই। আমন রোপন শুরু করতে পারেনি এক বিঘা জমিতে তিনি।
    তিনি আরো জানান,আমন চাষে সেচ খরচ লাগে না। সার খরচও কম।বর্ষার পানির উপর নির্ভর করে উচুঁ নিচু সকল জমিতে আমন চাষাবাদ করা হয়ে থাকে। তবে বর্ষার অতিরিক্ত বর্ষন হলে উজান থেকে ঢল এসে নিচু এলাকার আমনের রোপা গুলো তলিয়ে যায়। সে ক্ষেত্রে কৃষকেরা ক্ষতির স্বীকার হয়ে থাকে। তবে এবার বৃষ্টির অভাবে আমন রোপন করতে পারেনি এখন পর্যন্ত।

    রাজশাহীর তানোর উপজেলার পাঁচন্দর গ্রামের কৃষক আমজাদ আলী জানান,গত বছর আমন চাষ করে দাম না পেয়ে লোকসান গুনতে হয়েছিল। তবুও চলতি মৌসুমে গত বছরের লোকসান মাথায় নিয়ে গত ৩৫ দিন আগে দেড় বিঘা জমিতে বীজ বোপন করেছেন।এতে তিনি ২২ বিঘা জমিতে আমন চাষাবাদ করবেন ।
    কৃষক আমজাদ আলী আরো জানান,বীজতলার বীজের বয়স হয়ে যাচ্ছে। আর কয়দিনের মধ্যে বৃষ্টি না হলে বীজে গিট হয়ে যাবে। সে বীজ ক্ষেতে রোপন করলে ধানের ফলন একেবারে হবে না। সে ক্ষেত্রে আবারও লোকসান গুনতে হতে পারে।

    শুধু গোদাগাড়ী উপজেলার চান্দলায় গ্রামের কৃষক জালাল উদ্দিন ও তানোর উপজেলার পাঁচন্দর গ্রামের কৃষক আমজাদ আলী নয়,রাজশাহীসহ বরেন্দ্র অঞ্চলের হাজার হাজার কৃষক গত বছরের আমনের লোকসান মাথায় নিয়েই চলতি মৌসুমে আমনের বীজতলা তৈরি করে শুধু বৃষ্টির অভাবে বসে রয়েছে। আষাঢ় মাস শুরু থেকে বরেন্দ্র অঞ্চলে বৃষ্টি হয়নি বললেই চলে। আগামী কয়েক দিনের মধ্যে বৃষ্টি না হলে এ অঞ্চলের হাজার হাজার কৃষকের বীজ তলার বীজ বয়স হয়ে যাবে।

    রাজশাহীর তানোর উপজেলা উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা সমসের আলী জানান,চলতি মৌসুমে আমন চাষাবাদ করার জন্য জ্যৈষ্ট মাসের ২০ তারিখ থেকে বীজতলার কাজ শুরু করেছেন এই অঞ্চলে কৃষকেরা। আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় এবার বীজতলায় চারা ভালই হয়েছে। কিন্তুু আষাঢ়ের কোন প্রকার এ অঞ্চলে বৃষ্টিপাত না হওয়াই কৃষকেরা আমন রোপন করতে পারেনি এখন পর্যন্ত। তবে আগামী কয়একদিনের মধ্যে বৃষ্টি না হলে অঞ্চলের অনেক কৃষকের বীজতলার বীজ বয়সের ভরে গিট হয়ে যাবে। তাতে পুনোরাই বীজ তৈরি করে আমন রোপন করতে অনেক দেরি হয়ে যাবে।

    184Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর