অব্যাহত পদ্মার ভাঙনে নারায়নপুর সঙ্কুচিত হয়ে যেতে পারে - লালসবুজের কণ্ঠ
    মঙ্গলবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ১২:১৭ পূর্বাহ্ন

    অব্যাহত পদ্মার ভাঙনে নারায়নপুর সঙ্কুচিত হয়ে যেতে পারে

    • আপডেটের সময় : শনিবার, ২৭ আগস্ট, ২০২২

    চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি:


    অব্যাহত পদ্মার ভাঙনে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার দুর্গম নারায়নপুর ইউনিয়ন সঙ্কুচিত হয়ে পড়ছে। বছরের পর বছর নদী ভাঙনে দিশেহারা হয়ে চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন মানুষ।

    এরই মধ্যে অসংখ্য ঘর-বাড়ি ও ফসলি জমি নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। ভাঙনকবলিত এলাকার অনেক মানুষ নিঃস্ব হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন। ভাঙনের কবলে পড়ে পরিচয়টুকুও হারিয়ে সঙ্গায়িত হচ্ছেন বাস্ত্যচ্যুত মানুষ হিসেবে। স্থানীয়দের অভিযোগ, পরিস্থিতি ভয়াবহ হলেও ভাঙন রোধে কোনো কার্যকর পদক্ষেপ এখনও লক্ষ্য করা যায়নি। সমস্যা যে তিমিরে ছিল, সেই তিমিরেই রয়ে গেছে।

    জানা গেছে, নদীর গতিপথ পরিবর্তন হওয়ায় এবার চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার প্রত্যন্ত চর নারায়নপুর ইউনিয়নের ডাকাতপাড়া, খলিফাচর, বান্নাপাড়া, মরাপাড়া ও ধূলাউড়িতে ভাঙন দেখা দিয়েছে। ইতিমধ্যে বত্রিশরশিয়া, স্কুলপাড়া বিলীন হয়ে গেছে। এছাড়া সরকারপাড়ার একাংশ ভাঙনের মুখে পড়তে শুরু করেছে।

    যেভাবে ভাঙন দেখা দিয়েছে তাতে ভাঙনকবলিত মানুষ কোথায় বসবাস করবে তা নিয়ে ভাবনার শেষ নেই। পদ্মা নদীর পানি বাড়ার পাশাপাশি কমতে থাকলেও এলাকাগুলোতে ভাঙনের তীব্র আকার ধারণ করে। অনেকের বাড়ি-ঘর নদীগর্ভে তলিয়ে গেছে আবার অনেকেই ভাঙন আতঙ্কে বাড়ি ঘরসহ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ভেঙে অন্যত্র স্থানান্তর করছে। চোখের সামনে পদ্মার বুকে বিলীন হয়ে যাচ্ছে স্থাপনা আর ক্ষতিগ্রস্থ মানুষগুলো যেন নির্বাক হয়ে তাকিয়ে দেখছে।

    পদ্মার ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্থ একাধিক পরিবার জানান, প্রতিবছরই কমবেশী ভাঙছে, কিন্তু এবার বিভিন্ন স্থানে পদ্মার ভাঙন বেড়েছে। পদ্মার ভয়াল স্রোতের টানে প্রতিদিন নতুন নতুন বাড়ি-ঘর নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যাচ্ছে। ভাঙ্গনকবলিত এলাকার জন্য আগাম ব্যবস্থা নিলে হয়তো এতো বাড়িঘর বিলীন হতো না।

    বত্রিশরশিয়ার আব্দুল মান্নান ও মোঃ বাদল জানান, পদ্মার গতিপথ পরিবর্তন হওয়ায় কয়েকবছর থেকে এ গ্রামসহ আশপাশের গ্রামে ভাঙন দেখা দেওয়ায় মানুষ দিশেহারা হয়ে পড়েছে। অথৈই পানি, যা কিনা শুধুই স্মৃতি। নিজ চোখে না দেখলে বিশ্বাসই করতে চাইবেনা যে, কয়েক মাস আগে এই জায়গাগোলোতে ছিল বাড়িঘর আর জমি। আর আজ সেখানে শুধুই হাহাকার, নেই বাড়িঘর, সব বিলীন হয়ে গেছে পদ্মার গর্ভে।

    নারায়নপুরের আব্দুল মোমিন জানান, ভাঙন অব্যাহত থাকায় বড় কষ্টে পড়েছে এ ইউনিয়নের মানুষ। ভাঙন রোধ করতে না পারলে এ ইউনিয়ন মানচিত্র থেকে হারিয়ে যাবার সম্ভাবনা রয়েছে। এছাড়া পাশর্^বর্তী পাঁকা ইউনিয়নও ভাঙছে।

    এদিকে সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ তোসিকুল আলম বকুল জানান, এ ইউনিয়ন একসময় সমৃদ্ধ ছিল। কিন্তু এখন সেসব মানুষের মাঝে হতাশা বিরাজ করছে। অনেক পরিবার স্বাবলম্বী ছিল, এখন অসহায়। বাড়ি, ফসলভরা জমি, গোলাভরা ধান, গোয়াল ভরা গরু হারিয়ে তারা এখন আশ্রয় নিয়েছেন অন্যত্র। কিন্তু নিজেদের আভিজাত্য ধরে রাখতে গিয়ে তারা যেন মুখও খুলতে পারছেন না।

    সরকারের কাছে আবেদন অতি দ্রুত ভাঙন রোধে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য। ইতিমধ্যে নারায়নপুর ও পাঁকা ইউনিয়নের ভাঙন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করেছেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য ডা. সামিল উদ্দিন আহমেদ শিমুল, ফেরদৌসী ইসলাম জেসি এমপি, পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ মোখলেছুর রহমান।

    এদিকে সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইফফাত জাহান জানান, ভাঙন কবলিত এলাকা আজ শনিবার সরেজমিন পরিদর্শন করেছেন জেলা প্রশাসক।

    এসময় তিনি নদী পাড়ের মানুষের সাথে কথা বলেন। ভাঙনকবলিত মানুষের দুর্দশার কথা তাৎক্ষনিক মোবাইলে ফোনের মাধ্যমে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিবের কাছে তুলে ধরেন। যত দ্রুত সম্ভব ভাঙ্গন রোধে সংশ্লিষ্ট দপ্তর ব্যবস্থা গ্রহন করবে।


    কামাল/এআর

    21Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর