অবেশেষে পরিচয় মিললো ফেরদৌসির - লালসবুজের কণ্ঠ
    বৃহস্পতিবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২২, ০৬:৩৫ পূর্বাহ্ন

    অবেশেষে পরিচয় মিললো ফেরদৌসির

    • আপডেটের সময় : মঙ্গলবার, ২ জুলাই, ২০১৯

    রাজশাহী ব্যুরো : চলতি বছর ১৫ জানুয়ারি। রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের অজ্ঞাত রোগি ভর্তি হয়। শরীরে অসংখ্য জখম। কোমরের কয়েকটি হাঁড় ভাঙা। অজ্ঞাত বলে দেখার কেউ ছিল না। হাসপাতালের এক নং ওয়ার্ডের বারান্দায় ঠাঁই হয় তার। অবহেলা ও অযতেœ পড়ে থাকতো। অবেশেষে তার দায়িত্ব নেয় আয়া আলেয়া বেগম। দীর্ঘ সেবার পরে সুস্থ করে আলেয়া। কিন্তু মেয়েটি কথা বলতে পারতো না। হাসপাতাল ছেড়ে দিলেও মেয়েটিকে একা ছাড়তে পারেনি আলেয়া। অবশেষে সেই মেয়েটির পরিবারের খোঁজ মিলেছে সোমবার (পহেলা জুলাই)।

    মেয়েটির নাম ফেরদৌসি (২২)। তিনি মানসিক প্রতিবন্ধী। পাবনার ঈশ^রদীর পূর্ব বাঘহইল গ্রামের আব্দুল কুদ্দুসের মেয়ে।

    ফেরদৌসির মামাতো বোন পাপিয়া রামেক হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য বড় বোন চুন্নুকে নিয়ে আসেন। সেখানে এসে হাসপাতালের সামনে বসে থাকা ফেরদৌসিকে দেখে তিনি প্রথমে চিনত পারেন।

    পাপিয়া জানান, তার বড় বোন চুন্নু অসুস্থ। তার চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়েছে। সোমবার বিকেলে হাসপাতালের সামনে বসে থাকা অবস্থায় চুন্নুকে দেখে চিনতে পান তিনি। পরে তিনি তার মামার কাছে ফোন দেন।

    ফেরদৌসির বড় ভাই জসিম জানান, ১০ জানুয়ারি ফেরদৌসি বাড়ি থেকে নিখোঁজ হয়। এরপরে তার কোন খোঁজ পাওয়া যায়নি। পরে আশেপাশের বিভিন্ন থানায় অনেক খোঁজ করা হয়। কিন্তু কোথাও তাকে পাওয়া যায়নি।

    জসিম আরো জানান, তার বোন ফেরদৌসি মানসিকভাবে অসুস্থ। প্রায় সে নিখোঁজ থাকেন। ১০ জানুয়ারি বাড়ি থেকে সে নিখোঁজ হয়। পরে সম্ভব্য জায়গায় খোঁজখবর নিয়েও তাকে পাওয়া যায়নি।

    ফেরদৌসিকে সেবা করে সুস্থ করে তোলা আলেয়া বেগম বলেন, আজ অনেক ভালো লাগছে। তাকে সুস্থ করে পরিবারের হাতে তুলে দিতে পেয়েছি এটাই অনেক আনন্দের। ফেরদৌসি তার পরিবারের কাছে গিয়ে ভালো থাকুক এটাই আমি চাই।

    17Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর