৪২ বছর ধরে ঘোড়ায় ঘুরেন জেকের আলী - লালসবুজের কণ্ঠ
    শনিবার, ০৮ অক্টোবর ২০২২, ০২:০৫ পূর্বাহ্ন

    ৪২ বছর ধরে ঘোড়ায় ঘুরেন জেকের আলী

    • আপডেটের সময় : বুধবার, ২৬ জুন, ২০১৯

    সামসুজোহা তানোর:
    যানবাহনে আধুনিকতার ছোঁয়া লেগেছে। মানুষ এখন যন্ত্র নির্ভর হয়ে পড়েছে। যানবাহনের জন্য বাস, ট্রাক, ট্রেনের ব্যাবহার। এমন কি এক সময় প্যাডেল ভ্যানের লেগেছে যন্ত্রের ছোঁয়া।
    কিন্তু রাজশাহীর তানোর উপজেলার কচুয়াপুকুর এলাকার জেকের আলীর বিষয়টি আলাদা। ৪২ বছর আগে তার ঘোড়ার পিঠে চড়া শুরু। আজও তাই। যন্ত্রের যানবাহন তার ভালো লাগে না। ঘোড়ার পিঠে চড়েই তিনি ঘুড়ে বেড়ান।

    হাট-বাজার, জেলা শহর, কিংবা আত্মীয়-স্বজনের বাড়ি সব জায়গাই ঘোড়ার পিঠে চড়েই ঘুরেন জেকের আলী। সভ্যতা ও যান্ত্রিক যুগেও তিনি এ অভ্যাস বদলাতে পারেন নি। তাই পরিবহনের সঙ্গি হিসেবে তিনি আজোও ঘোড়া পোষেন। দীর্ঘ ৪২ বছর ধরেই ঘোড়াই তার সঙ্গি।
    ঘোড়ার পিঠে চেপে রাস্তা দিয়ে মানুষ যাওয়ার আজ থেকে দুই দশক আগেও দেখা মিললের বর্তমান সময়ে দেখা মেলা ভার।

    কচুয়াপুকুর গ্রামের মেহের আলীর ছেলে জেকের আলী শুধু সখের বসেই ১২ বছর বয়স থেকেই ঘোড়াকেই সঙ্গি করে রেখেছেন।

    জেকের আলী জানান, তার দাদা সোভান মন্ডল এই গ্রামের ধনী ব্যাক্তি ছিলেন। ১৯২০ সালে জন্ম তার। সেই সময় এসব এলাকায় চলাচল করার মতো কোন রাস্তা ঘাট বা যানবহনের কোন ব্যবস্থা ছিল না। তাই সে সময় সখের বসে একটি ঘোড়া কিনেছিলেন। সেই যুবক বয়স থেকে ঘোড়াই ছিল তার চলাচলের সঙ্গি। ১৯৭৫ সালে দাদা মারা যাওয়ার পর তার বড় চাচা জনাব আলী মন্ডল দাদার রেখে যাওয়া ঘোড়ার দেখাশোনা করতেন। সেই সময় চাচার সাথে সাথে তিনিও ১০ থেকে ১২ বছর বয়সেই ঘোড়াই চড়া শেখেন।
    সে থেকেই আজও হাট-বাজার, জেলা শহর, কিংবা আত্মীয়-স্বজনের বাড়ি সব জায়গাই ঘোড়ার পিঠে চড়েই ঘুরেন তিনি।

    জেকের আলী আরো জানান, মুখে লোহার লাগাম, গলায় ঘুগরা, পিঠে উপর বেল্ট দিয়ে আটকানো জিন। জিনের উপর বসে এক হাতে চাবুক, অন্য হাতে লাঘাম, খট, খট শব্দে ঘোড়ার পিঠে উঠে ঘুড়ে বেড়ানোর মজাই আলাদা। আধুনিক যুগে বিষয়টিকে অনেকই খারাপভাবে নেন। তাতে তার কিছু যায় আসে না।
    তিনি জানান, বয়সের ভারে তিনিও আজ বিভিন্ন জটিল রোগে ভুগছেন। ঘোড়া পোষা অনেক কষ্টের ব্যাপার। তবুও তিনি ঘোড়া না দেখলে থাকতে পারে না। এখনো তিনি নিজ হাতে ঘোড়ার খাওয়ার দিয়ে থাকেন। তার খাওয়ার তালিকায় রয়েছে, ছোলা, দুধ, ডিম, ঘাস ইত্যাদি। কষ্ট হলেও তিনি পুর্বপুরুষের ঐতিহ্য ধরে রাখার চেষ্টা করছেন।

    রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) বন্যপ্রাণি বিভাগের অধ্যাপক ড. বিধান চন্দ্র দাস জানান, ঘোড়ার প্রচলন প্রাচীন যুগ থেকেই রয়েছে। ভারত বর্ষসহ সারা পৃথিবিতে ঘোড়ার ইতিহাস রয়েছে। ঘোড়াই চড়ে মানুষ যুদ্ধ করে। একটা সময় আমাদের দেশের সখিন ব্যাক্তিরা ঘোড়ার পিঠে চড়ে যাতায়েত করতো।
    বর্তমানে যান্ত্রীক ও ডিজিটাল যুগে মানুষে রুচির অনেক পরির্বতন এসেছে। আগে অনেক মানুষ ঘোড়া পুষে নিজেদের যাতায়াতের প্রধান যানবহন হিসাবে ব্যবহার করতো। ঘোড়া অল্প সময়ে অনেক দুর যেতে পারে। মানুষ ঘোড়ার গাড়ী তৈরি করে ব্যবসাও করতো। ঘোড়াকে ঠিক মত তার পছন্দের খাওয়ার দিলে অনেক শক্তি পায়।

    717Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর