৩ ঘণ্টা পর দুর্ঘটনাকবলিত ক্রেন দিয়েই সরানো হলো গার্ডার - লালসবুজের কণ্ঠ
    শনিবার, ০৮ অক্টোবর ২০২২, ১২:১৪ পূর্বাহ্ন

    ৩ ঘণ্টা পর দুর্ঘটনাকবলিত ক্রেন দিয়েই সরানো হলো গার্ডার

    • আপডেটের সময় : সোমবার, ১৫ আগস্ট, ২০২২

    নিউজ ডেস্ক, লালসবুজের কণ্ঠ:


    দুর্ঘটনার তিন ঘণ্টা পর দুমড়ে মুচড়ে যাওয়া প্রাইভেটকারের ওপর থেকে সরানো হলো গার্ডার। আজ সোমবার সন্ধ্যা ৭টার পর গার্ডার সরিয়ে মরদেহগুলো বের করে দুটি অ্যাম্বুলেন্সে করে নিয়ে যাওয়া হয়। মরদেহগুলো শহীদ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে নেওয়া হবে বলে জানা গেছে।

    এর আগে বিকেল সোয়া ৪টার দিকে রাজধানীর উত্তরায় জসিমউদ্দিন মোড় সংলগ্ন সড়কে বাস র‍্যাপিড ট্রানজিট (বিআরটি) স্থাপনা প্রকল্পের একটি গার্ডার প্রাইভেটকারের ওপর পড়ে। এতে পাঁচ আরোহী নিহত হন। আহত হন আরও দুই জন আরোহী।

    প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, প্রকল্পের কাজ চলাকালীন একটি গার্ডার ক্রেন দিয়ে তোলা হচ্ছিল। হঠাৎ ক্রেনটি গার্ডারসহ কাত হয়ে যায় এবং নিচ দিয়ে যাওয়া একটি প্রাইভেটকারের ওপর গার্ডারটি পড়ে। এতে প্রাইভেটকারটি দুমড়ে মুচড়ে যায়।

    প্রাইভেটকারে আরোহী ছিলেন সাত জন। ছিলেন নববিবাহিত হৃদয়ের বাবা রুবেল (৬০), হৃদয়ের শাশুড়ি ফাহিমা (৪০), কনে রিয়া মনির খালা ঝরনা (২৮), ঝরনার দুই সন্তান জান্নাত (৬) ও জাকারিয়া (২)। ঘটনাস্থলেই তাঁদের মৃত্যু হয়েছে। শুধু বেঁচে আছেন হৃদয় ও রিয়া। তাঁদের হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।

    ঘটনার পর গার্ডার সরিয়ে প্রাইভেটকার থেকে মরদেহ উদ্ধারের চেষ্টা করেন ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা। লিভার দিয়ে উঁচু করার চেষ্টা করেন তাঁরা। কিন্তু তাতে কোনো কাজ না হওয়ায় সাড়ে ৬টার দিকে আনা হয় একটি এক্সক্যাভেটর। সেটি দিয়ে কাত হয়ে থাকার ক্রেনটি সোজা করে সেটি দিয়েই প্রাইভেটকারের ওপর থেকে গার্ডার সরানো হয়।

    ঘটনাস্থলে উপস্থিত স্বজনেরা জানান, গত শুক্রবার হৃদয় ও রিয়ার বিয়ে হয়। তাঁরা আজ ছেলের বাড়ি থেকে মেয়ের বাড়ি যাচ্ছিলেন। হৃদয়ের পরিবার দক্ষিণখান থানার কাওলা আফিল মেম্বারের বাড়ির ভাড়াটিয়া। আর কনে রিয়া মনির বাড়ি আশুলিয়ার খেজুরবাগানে আসরাফউদ্দিন চেয়ারম্যান বাড়ি এলাকায়।


    লালসবুজের কণ্ঠ/তন্বী

    0Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর