সড়ক দুর্ঘটনা ও সাবডুরাল হেমাটোমা - লালসবুজের কণ্ঠ
    সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৯:০২ পূর্বাহ্ন

    সড়ক দুর্ঘটনা ও সাবডুরাল হেমাটোমা

    • আপডেটের সময় : সোমবার, ১৮ এপ্রিল, ২০২২

    লালসবুজের কন্ঠ,নিউজ ডেস্ক


    চিকিৎসাবিজ্ঞানের ভাষায় মাথার ত্বককে স্কাল্প বলা হয়। স্কাল্পের নিচে যে হাড় রয়েছে, সেটি স্কাল বা করোটি। সাধারণের কাছে এটা খুলি নামে পরিচিত। আর স্কালের ঠিক নিচেই রয়েছে মস্তিষ্কের বিশেষ পর্দা—ডুরা ম্যাটার। এটি মস্তিষ্ককে ঢেকে রাখে। বাইরের আঘাত থেকে রক্ষা করে। ডুরা ম্যাটার ও মস্তিষ্কের মধ্যে যদি কোনো কারণে রক্তক্ষরণ হয়, তখন তাকে বলা হয় সাবডুরাল হেমাটোমা।

    কারণ ও প্রকারভেদ

    সাবডুরাল হেমাটোমার কারণ বাইরে থেকে মাথায় কিংবা মস্তিষ্কে আঘাত পাওয়া। এ থেকে করোটির অভ্যন্তরে বাড়তি চাপ তৈরি হতে পারে। আর বাড়তি চাপের ফলে মস্তিষ্কে টিস্যু সংকুচিত কিংবা ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। সাবডুরাল হেমোটোমায় রোগীরা প্রাণ হারাতে পারেন। তবে দ্রুত ও সঠিক চিকিৎসা করা গেলে এ সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। এটা প্রধানত দুই ধরনের, অ্যাকিউট সাবডুরাল হেমাটোমা ও ক্রনিক সাবডুরাল হেমাটোমা। অ্যাকিউট সাবডুরাল হেমাটোমা বেশি প্রাণঘাতী।

    দ্রুত অস্ত্রোপচার জরুরি

    সাবডুরাল হেমাটোমার পুরুত্ব ১ সেন্টিমিটারের বেশি হলে রোগীর মস্তিষ্কে দ্রুততম সময়ের মধ্যে অস্ত্রোপচার করতে হয়। চিকিৎসকদের মতে, অ্যাকিউট সাবডোরাল হেমাটোমা শনাক্তের চার ঘণ্টার মধ্যে অস্ত্রোপচার করা সম্ভব হলে প্রতি ১০০ জনের মধ্যে ৭০ জন রোগীকে বাঁচানো সম্ভব। আর চার ঘণ্টার বেশি সময় পরে অস্ত্রোপচার করা হলে মাত্র ১০ শতাংশ রোগীর জীবন বাঁচানো যায়।

    একটি সমীক্ষায় দেখা গেছে, মাথায় আঘাত পাওয়ার কারণে মানুষের মারা যাওয়ার বড় একটি কারণ তীব্র সাবডুরাল হেমাটোমা। এ ক্ষেত্রে ৫০ থেকে ৯০ শতাংশ রোগী শেষ পর্যন্ত মারা যান। এর বিপরীতে মাত্র ২০ থেকে ৩০ শতাংশ রোগী মস্তিষ্কের কার্যকারিতা ফিরে পান। মোটরসাইকেল দুর্ঘটনার শিকার মানুষ এতে বেশি ভোগেন। তাই মোটরসাইকেল যাত্রায় চালক ও আরোহীকে অবশ্যই হেলমেট পরতে হবে।

    বয়স্কদের ঝুঁকি বেশি

    ক্রনিক সাবডুরাল হেমাটোমা সাধারণত বয়স্কদের হতে দেখা যায়। বৃদ্ধ বয়সে মস্তিষ্ক বেশি ক্ষয় হয়। এ সময় মস্তিষ্কের রক্তনালিগুলো ভঙ্গুর থাকে। এর ফলে খুব অল্প আঘাতেই রক্তনালি ছিঁড়ে যেতে পারে। রক্তক্ষরণ হতে পারে। মাথাব্যথা, স্মৃতিভ্রম, কথা বলতে সমস্যা হওয়া, হাত–পা অবশ হয়ে আসা, প্যারালাইসিস হওয়া, খিঁচুনি ইত্যাদি লক্ষণ নিয়ে ক্রনিক সাবডোরাল হেমাটোমার রোগীরা চিকিৎসকের কাছে আসেন। সিটি স্ক্যান করে এ রোগ নির্ণয় করা হয়। শনাক্তের চার ঘণ্টার মধ্যেই অস্ত্রোপচার করা প্রয়োজন।

    অবহেলা করা যাবে না

    মাথায় আঘাত পেলে অবহেলা করা যাবে না। দ্রুত হাসপাতালে যেতে হবে। এ ছাড়া তীব্র মাথাব্যথা, খিঁচুনি হলেও দ্রুত হাসপাতালে যেতে হবে। বাংলাদেশে সাবডুরাল হেমাটোমার রোগী বাড়ছে। এর অন্যতম কারণ দেশে সড়ক দুর্ঘটনা বেশি হয়। তাই সড়কে চলাফেরার সময় সতর্ক থাকা জরুরি।

    নিউজ ডেস্ক/স্মৃতি

    0Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর