স্বস্তির বৃষ্টির সঙ্গে শিলা, আমের ব্যাপক ক্ষতি - লালসবুজের কণ্ঠ
    সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৮:৩৬ পূর্বাহ্ন

    স্বস্তির বৃষ্টির সঙ্গে শিলা, আমের ব্যাপক ক্ষতি

    • আপডেটের সময় : সোমবার, ১৮ এপ্রিল, ২০২২

    নিউজ ডেস্ক,লালসবুজের কণ্ঠ;


    আমের রাজধানীখ্যাত জেলা চাঁপাইনবাবগঞ্জে আধা ঘণ্টা ধরে স্বস্তির বৃষ্টি হয়েছে। রোববার (১৭ এপ্রিল) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে সদর ও শিবগঞ্জ উপজেলায় ঝোড়ো হাওয়াসহ শিলা বৃষ্টি শুরু হয়।

    এই সময়ে বৃষ্টি আমের গুটির জন্য ভালো হলেও শিলা পড়ায় ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

    জানা গেছে, সদর উপজেলার গোবরাতলা, বারোঘরিয়া, বালিয়াডাঙ্গা, ইসলামপুর, সুন্দরপুর ও শিবগঞ্জ উপজেলার শ্যামপুর, মনাকষা, দলর্ভপুর, কানসাট, বিনোদপুরসহ বিভিন্ন স্থানে শিলা বৃষ্টি হয়েছে। তবে জেলার অন্য কোথাও শিলা বৃষ্টির খবর পাওয়া যায়নি।

    শিবগঞ্জের নয়ালাভাঙ্গা ইউনিয়ন বিরামপুরের আমচাষি জিয়াউর রহমান ঢাকা পোস্টকে বলেন, রোববার সন্ধ্যার দিকে হঠাৎ ঝোড়ো হাওয়া ও শিলা বৃষ্টি শুরু হয়। প্রায় ১০-১৫ মিনিট ধরে চলে বৃষ্টি। এতে ছোট আমের গুটির ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। অনেক আম ঝরে পড়েছে। অনেক আমে দাগ পড়ে নষ্ট হয়ে গেছে।

    সদর উপজেলার গোবরাতলা ইউনিয়নের চাঁপাই-মহেশপুর গ্রামের আমচাষি দুরুল ইসলাম জানান, কয়েক দিন থেকে তাপদাহ চলছে। এ সময় একটু বৃষ্টির দরকার ছিল। রোববারের বৃষ্টি আমের গুটির জন্য খুবই উপযোগী। কারণ বৃষ্টির পানি পেয়ে আমের গুটি এখন দ্রুত বাড়বে। তবে শিলা বৃষ্টিতে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। অনেক আম ঝরে পড়েছে।

    শিবগঞ্জ ম্যাংগো প্রডিউসার কো-অপারেটিভ সোসাইটি লিমিডেটের সাধারণ সম্পাদক ইসমাঈল খান শামীম বলেন, শিলা বৃষ্টির আকার খুব বড় নয়। কিন্তু আমের গুটিগুলো এখনো বড় হয়নি। তাই আমের বেশি ক্ষতি হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

    কৃষক রফিকুল ইসলাম বলেন, ধানের পুরোপুরি এখন ফলন হয়নি। তাই খুব বেশি ক্ষতি না হলেও ঝোড়ো হাওয়ার কারণে মাটিতে নুইয়ে পড়েছে ধানগাছ। এতে বাড়তি ভোগান্তিতে পড়তে হবে। এমনকি ফলন কমে যাবে। তবে বৃষ্টির পানি এই মুহূর্তে ধানচাষের জন্য ভালোই হয়েছে।

    চাঁপাইনবাবগঞ্জ আঞ্চলিক উদ্যানতত্ত্ব গবেষণা কেন্দ্রের বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা আবু সালেহ মো. ইউসুফ ঢাকা পোস্টকে জানান, এই সময়ে একটি বৃষ্টি প্রত্যাশিত ছিল আমচাষিদের জন্য। বৃষ্টির ফলে আমের গুটির ঝরে পড়া অনেকাংশেই কমে যাবে।

    এমনকি ফলনের দ্রুতবর্ধন ঘটবে। তবে এ বছর এমনিতেই আমের ফলন কম। তার ওপর বৃষ্টির সঙ্গে ব্যাপক শিলাবৃষ্টি হয়েছে। এতে একদিকে যেমন আম ঝরে পড়েছে, তেমনি যে আমের ওপর শিলা পড়েছে, সে আম নষ্ট হয়ে গেছে। এতে আমের ফলন আরও কমে যাবে।

    চাঁপাইনবাবগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মুহাম্মদ নজরুল ইসলাম ঢাকা পোস্টকে বলেন, জেলার সদর ও শিবগঞ্জ উপজেলায় ২০ মিলিমিটার করে ও নাচোল উপজেলায় ৫ মিলিমিটার বৃষ্টির পানি রেকর্ড করা হয়েছে। গোমস্তাপুর ও ভোলাহাট উপজেলায় বৃষ্টি বা শিলা বৃষ্টি হয়নি।

    এদিকে শিবগঞ্জ ও সদর উপজেলায় অনেক শিলা বৃষ্টি হয়েছে। আমের পাশাপাশি এই বৃষ্টির পানি ধানের জন্যও উপকারী। বৃষ্টির পাশাপাশি হওয়া শিলা বৃষ্টি ধান ও আমের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। তবে এই মুহূর্তে ক্ষতির পরিমাণ সঠিকভাবে বলা যাবে না।

    প্রসঙ্গত, এ বছর চাঁপাইনবাবগঞ্জে ৩৮ হাজার হেক্টর জমিতে আমের চাষাবাদ হয়েছে। চলতি মৌসুমে কৃষি বিভাগ জেলায় আম উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে ৩ লাখ ২৫ হাজার মেট্রিক টন।

    গত বছর জেলায় ৩৫ হাজার হেক্টর জমিতে আড়াই লাখ মেট্রিক টন এবং তার আগের বছর ৩৩ হাজার হেক্টর জমিতে ২ লাখ ৪৫ হাজার মেট্রিক টন আম উৎপাদন হয়েছে। এছাড়া চলতি বোরো মৌসুমে ৫০ হাজার ২০০ হেক্টর জমিতে ধান চাষাবাদ করা হয়েছে।

    চলতি মৌসুমে ৩ লাখ ৩০ হাজার ৫৮৫ মেট্রিক টন ধান উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে কৃষি বিভাগ।


    লালসবুজের কণ্ঠ/তন্বী

    40Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর