আত্মহননের আগে ধর্ষণের শিকার হয়েছিল স্কুলছাত্রী বর্ষা - লালসবুজের কণ্ঠ
    রবিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, ১২:৫৪ পূর্বাহ্ন

    আত্মহননের আগে ধর্ষণের শিকার হয়েছিল স্কুলছাত্রী বর্ষা

    • আপডেটের সময় : শনিবার, ৬ জুলাই, ২০১৯

    রাজশাহী ব্যুরো : রাজশাহীর মোহনপুরে স্কুলছাত্রী সুমাইয়া আক্তার বর্ষা আত্মহননের আগে ধর্ষণের শিকার হয়েছিল। এমন প্রমাণ মিলেছে ফরেনসিক প্রতিবেদনে। এরই মধ্যে ফরেনসিক পরীক্ষার প্রতিবেদন আদালতে জমা দিয়েছেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা। রাজশাহীর সহকারী পুলিশ সুপার সুমন দেব এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

    জেলা পুলিশের এই কর্মকর্তা জানান, গত ২৭ জুন রাজশাহীর শিশু ও নারী নির্যাতন আদালত-২ এ বর্ষার ফরেনসিক প্রতিবেদন জমা দেয়া হয়েছে। ওই প্রতিবেদনে বর্ষাকে ধর্ষণের প্রমাণ পাওয়া গেছে। এখন এই মামলাটিতে ধর্ষণের অপরাধের ধারাটিও যুক্ত হবে।

    আত্মহত্যার আগে সুমাইয়া আক্তার বর্ষা এক চিঠিতে লিখে যান, ‘প্রিয় বাবা-মা তোমাদের কাছ থেকে ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি। আমি তোমাদের থেকে অনেক কিছু পেয়েছি, অনেক আদর, অনেক ভালোবাসা। কিন্তু একটা মেয়ের কাছে তার মানসম্মান সবচেয়ে বড়। আমি আমার লজ্জার কথা সবাইকে বলতে বলতে নিজের কাছে অনেক ছোট হয়ে গেছি। প্রতিদিন পরপুরুষের কাছে এসব বলতে বলতে আমি আর পারছি না। অপরাধীকে শাস্তি দিলেই তো আমার মানসম্মান ফেরত পাব না। তাই আমাকে ক্ষমা করো।’

    জেলা পুলিশের একটি দায়িত্বশীল সূত্র জানায়, মোহনপুর উপজেলার বাকশিমইল স্কুলের ছাত্রী বর্ষাকে অপহরণের পর নিপীড়ন করে স্থানীয় বখাটে মুকুল। গত ২৩ এপ্রিল এই নির্যাতনের পর মামলা দায়ের করতে গেলে তার পরিবারকে হেনস্থা করেন মোহনপুর থানার ওসি আবুল হোসেন।

    চারদিন ধরে মামলা না নিয়ে নানাভাবে টালবাহানা করতে থাকেন তিনি। অবশেষে পুলিশ সুপার মো. শহিদুল্লাহর হস্তক্ষেপে ঘটনার চারদিন পর ২৭ এপ্রিল মামলা নেন ওসি ।

    এই মামলায় স্থানীয় বখাটে মুকুলসহ ও বর্ষার সহপাঠী সোনিয়াসহ কয়েকজনকে আসামি করা হয়। পাশাপাশি বাড়ি হওয়ায় এরপরও মুকুলের পরিবার বর্ষাকে নানা ধরনের কটুক্তি অপবাদ দিতে থাকে। এই অপমানে ১৬ই মে নিজ ঘরেই গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে মোহনপুরের বিলপাড়া গ্রামের আব্দুল মান্নানের মেয়ে বর্ষা।

    এরপর থানায় আরেকটি মামলা দায়ের করেন তার বাবা। এই মামলাতেও মুকুল ও তার মাসহ ১৩ জনকে আসামি করা হয়। মামলায় মুকুলসহ ৫ জনকে গ্রেফতার করে জেলহাজতে পাঠায় পুলিশ। মুকুল এখনো জেলহাজতে রয়েছে। বর্ষা আত্মহনন মামলা তদন্তের স্বার্থে ওসি আবুল হোসেনকে গত ২০মে পুলিশ লাইনে ক্লোজড করা হয়।

    14Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর