সিরাত চর্চার গুরুত্ব - লালসবুজের কণ্ঠ
    মঙ্গলবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ০১:০২ পূর্বাহ্ন

    সিরাত চর্চার গুরুত্ব

    • আপডেটের সময় : শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২২

    লালসবুজের কণ্ঠ ডেস্ক


    আল্লাহ তাআলা যেদিন প্রথম মানুষকে পৃথিবীতে পাঠান, সেদিনই তিনি বলে দেন—সেখানে যাওয়ার পর কী করতে হবে তা জানিয়ে দেওয়া হবে। সে অনুযায়ী যারা চলবে, তারা সরল পথে পরিচালিত হয়ে জান্নাতে ফিরে আসবে আর যারা বিরোধিতা করবে, তাদের পার্থিব জীবনও সুখকর হবে না এবং আখিরাতেও তাদের অবস্থা ভয়াবহ হবে। আল্লাহ তাআলা তাঁর কথা অনুসারে মানবজাতিকে সৎ পথ প্রদর্শনের জন্য যুগে যুগে মানুষের মধ্য থেকেই অসংখ্য নবী-রাসুল পাঠান। তাঁরা আল্লাহর পাঠানো বিধিনিষেধ কথা ও কাজের মাধ্যমে মানুষকে বোঝান। পৃথিবীতে মানবজাতির সূচনা থেকে আজ পর্যন্ত এমন কোনো জাতি নেই, যাদের কাছে নবী-রাসুলের মাধ্যমে আল্লাহর বিধিনিষেধ পৌঁছানো হয়নি। আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘এমন কোনো জাতি নেই, যাদের কাছে সতর্ককারী আসেনি।’ (সুরা ফাতির: ২৪)

    সবশেষে আল্লাহ তাআলা শ্রেষ্ঠ রাসুল হজরত মুহাম্মদ (সা.)-কে গোটা বিশ্ববাসীর হেদায়াতের আলোকবর্তিকা হিসেবে পাঠান। তাঁর কথা ও কাজের মাধ্যমে আল্লাহর বিধিবিধান কিয়ামত পর্যন্ত সব মানুষের সামনে স্পষ্ট করে দেন। আল্লাহর বিধান অনুসারে মানুষের কথাবার্তা, আচার-আচরণ, ব্যবসা-বাণিজ্য, পারস্পরিক বোঝাপড়া ও লেনদেন, পরিবার, সমাজ ও রাষ্ট্রনীতি কেমন হওয়া চাই, সবকিছু তিনি হাতে-কলমে শিখিয়ে যান। সুতরাং একজন মানুষ নিজেকে আল্লাহর নির্দেশিত পথে পরিচালিত করতে চাইলে তাঁর অনুসরণের বিকল্প নিই।
    এ জন্যই পবিত্র কোরআনে আল্লাহ বলে দিয়েছেন, ‘যে রাসুলের আনুগত্য করে, সে তো আল্লাহরই আনুগত্য করে।’ (সুরা নিসা: ৮০) অন্য আয়াতে বলেন, ‘রাসুল যা নির্দেশ দেয়, তা মেনে চলো এবং যা থেকে নিষেধ করে, তা থেকে বিরত থাকো।’ (সুরা হাশর: ৭) অন্যত্র রাসুল (সা.)-কে উদ্দেশ করে বলেন, ‘বলো, যদি তোমরা আল্লাহকে ভালোবাসো, তবে আমার আনুগত্য করো; তিনি তোমাদের ভালোবাসবেন।’

    (সুরা আল-ইমরান: ৩১) অন্য আয়াতে আল্লাহ বলেন, ‘নিশ্চয়ই রাসুলের মধ্যে তোমাদের জন্য রয়েছে উত্তম আদর্শ।’ (সুরা আহজাব: ২১)
    আয়াতগুলো থেকে বোঝা যায়, সব শ্রেণির মানুষের জন্য মহানবী (সা.)-এর জীবনের প্রতিটি দিক সম্পর্কে জানা কতটা জরুরি। তা ছাড়া পরিপূর্ণ মুমিন হওয়ার জন্য রাসুলের প্রতি গভীর ভালোবাসা থাকা শর্ত। রাসুল (সা.) বলেন, ‘তোমরা ততক্ষণ ইমানদার হতে পারবে না, যতক্ষণ আমাকে নিজেদের প্রাণ, বাবা-মা, সন্তানসন্ততি ও সব মানুষ থেকে বেশি ভালোবাসবে না।’ (বুখারি ও মুসলিম) আর মহানবী (সা.)-এর জীবনের বিভিন্ন দিক আলোচনা করার নামই সিরাত চর্চা। সাহাবায়ে কেরামের সময় থেকে যুগে যুগে মানুষ সিরাতের চর্চা করে আসছে। আজও এই ধারা অব্যাহত রয়েছে। যত দিন পৃথিবী থাকবে, তত দিন মহামানব মহানবী (সা.)-এর মহাজীবন চর্চার প্রয়োজনীয়তাও থাকবে। কখনো তা বন্ধ হবে না।

    লেখক: শিক্ষক ও ইসলামবিষয়ক গবেষক

    2Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর