শেষ মৌসুমেও স্বপনের বাগানে দুলছে ৮শ মণ আম - লালসবুজের কণ্ঠ
    শনিবার, ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৩:১১ অপরাহ্ন

    শেষ মৌসুমেও স্বপনের বাগানে দুলছে ৮শ মণ আম

    • আপডেটের সময় : মঙ্গলবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০২২

    লালসবুজের কণ্ঠ রিপোর্ট,


    চলতি বছরের সিজিনাল আম শেষ পর্যায়ে। কিছু স্থানে আম থাকলেও যা পরিমানে অনেক কম। তবে চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে স্বপন(৩৮) নামে এক ব্যাসায়ীর বাগানে এখনো ঝুলছে প্রায় ৮শ’ মণ আম। কিছু গাছে মুকুলও ফুটেছে। আর প্রায় ৫০ টি গাছে রয়েছে আমের গুটি। এগুলো বিক্রি করা হবে আরও দুই মাস পরে। এবার প্রায় ১ কোটি ১০ লাখ টাকার আম বিক্রির আশা তার।

    স্থানীয় কৃষি বিভাগ বলছে, এই বারোমাসি কাটিমন আমে অর্থনৈতিকভাবে দেখা দিয়েছে নতুন সম্ভাবনা। সারা বছর আমটি থাকায় দ্বিগুন দামে বিক্রি হচ্ছে।

    সম্প্রতী স্বপনের আম বাগানে গিয়ে দেখা যায়, কাটিমন, ফিলিপাইন সুপার, বারি-১১, বারোমাসি খিরসাপাতসহ কয়েক জাতের প্রায় ৭০০-৮০০ মণ আম থোকায় থোকায় ঝুলছে। এর পরিচর্যায় নিয়োজিত রয়েছেন প্রায় ২০ জন শ্রমিক। স্বপরের বাগান জুড়ে যেন এক কর্তযোগ্য শুরু হয়েছে। এই অসময়ে কাজ করতে পেরে তারও খুশি।

    স্বপন বলেন, গত ছয় বছর আগে বারোমাসি আম চাষ শুরু করেছিলাম। ইচ্ছে ছিল শীতের সময়ে আম বিক্রি করার। তাই প্রায় ১ হাজার বারোমাসি জাতের আম গাছ রপণ করেছি। এ থেকে গত বছর প্রায় ১৮ লাখ টাকার আম বিক্রি করেছি। আর এবার প্রায় ৯শ গাছে প্রায় ৭০০-৮০০ মণ আম রয়েছে।

    এখন পর্যন্ত প্রায় ১ লাখ টাকার আম বিক্রি করেছি। আশা করছি প্রায় আরও ১ কোটি ১০ লাখ টাকা পাব। এই আমের চাষ বাড়াতে গড়ে তুলেছি কাটিমনসহ বিভিন্ন আমের গাছের নার্সারি। গাছের চারাও বিক্রি করে থাকি।

    তিনি আরও বলেন, বর্তমান সময়ে আমগুলো চট্রগ্রামসহ দেশের বিভিন্নস্থনে পাঠিয়ে বিক্রি করছি।

    স্বপনের আম বাগনের পরিচর্যাকরী তার আত্মীয় তুষার হোসেন বলেন, গত বছর থেকেই এই বাগানের সব কিছু দেকভাল আমিই করি। এবারও করছি। কিন্তু বর্তমানে একটি পোকাতে আমে আক্রমন করছে। এই পোকা যে আমের উপর দিয়ে হেটে যাচ্ছে। সেই আমটাই নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। কৃষি কর্মকর্তাদের পরমর্শ নিয়েও কোন সুফল পাচ্ছিনা। এই আম বর্তমানে ১৩ থেকে ১৪ হাজার টাকা মণ বিক্রি হচ্ছে।

    আব্দুর রহিম নামে স্বপনের আম বাগনের এক শ্রমিক বলেন, গত তিন মাস সিজিনাল আম ছিল বিভিন্ন স্থানে আমের বাগানে কাজ করেছি। কিন্তু গত ১৫ দিন আগে আম শেষ হওয়ায় কাজ ছিলনা। বাড়ীতে বসে ছিলাম। তাই স্বপন ভাইয়ের বাগানে কাজে এসেছি। ১০ দিন থেকে করছি এই কাজ। আরও প্রায় দুই মাস করতে পাব। দিনে ৩০০ টাকা মুজুরি পায় এই থেকেই চলছে আমার সংসার। আমরা এখানে প্রায় ২০ শ্রমিক কাজ করি।

    শিবগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শরিফুল ইসলাম বলেন, গত কয়েক বছরে সিজিনাল আমে চাষিরা লোকশান করে বারোমাসি আম চাষে ঝুকছেন চাষিরা। এতে লাভবানও হচ্ছেন অনেকে। বিশেষ করে আওয়াল ও স্বপন বেশি লাভবান হয়েছে। এই বারোমাসি কাটিমন আম একটি বাণিজ্যিক সম্ভবনা বলে আশা করা যাচ্ছে। আর আমটি দেখতে স্বাদে ভালো হওয়ায় বিদেশে রপ্তানিরও দ্বার খুলেবে। এই উপজেলায় মোট ৮০ হেক্টর জমিতে কাটিমন আম গাছ রয়েছে।

     


    লালসবুজের কণ্ঠ/এস এস

    64Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    এই বিভাগের আরও খবর