শিবগঞ্জে সার নিয়ে সিন্ডিকেটের চালবাজিতে হয়রানীর শিকার কৃষক-আমচাষী - লালসবুজের কণ্ঠ
    শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ১১:০৯ পূর্বাহ্ন

    শিবগঞ্জে সার নিয়ে সিন্ডিকেটের চালবাজিতে হয়রানীর শিকার কৃষক-আমচাষী

    • আপডেটের সময় : শনিবার, ২৭ আগস্ট, ২০২২

    শিবগঞ্জ (চাঁপাইনবাবগঞ্জ) প্রতিনিধি:


    শিবগঞ্জে রাসায়নিক সার নিয়ে সিন্ডিকেটের চালবাজিতে কৃষক ও আমচাষীরা চরম হয়রানীর শিকার হচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

    তবে ডিলাররা বলছেন- আমাদের নিকট যা সরকারীভাবে সরবরাহ হচ্ছে, তাই কৃষকদের মাঝে সরকারী মূল্যে বিক্রি করছি। অন্যদিকে কৃষকদের অভিযোগ- পটাশ সার নিয়ে তাদের সাথে ছলচাতুরী করা হচ্ছে।

    উপজেলা বিভিন্ন স্থান ঘুরে দেখা গেছে- কৃষকরা ডিলারদের কাছে পটাশসহ অন্যান্য সার চাহিদা মত না পাওয়ায় এখানে ওখানে ছুটাছুটি করছে। খোলা বাজারে পটাশ সার কিনতে গিয়ে ১৫শ‘ টাকা হতে ১৮‘শ টাকা পর্যন্ত দাম নিচ্ছে। বাধ্য হয়ে আমাদের কিনতে হচ্ছে। কারণ আমের গাছে সার দেয়ার এখনই উপাযুক্ত সময়। কিছুদিন পর আর সার প্রয়োগ করা যাবে না। সরকারী রেট অনুযায়ী ইউরিয়ার বস্তা প্রতি ১১‘শ টাকা, ডিএপি বস্তা প্রতি ৮‘শ টাকা, পটাশ বস্তাপ্রতি ৭৫০ টাকা, টিএসপি বস্তা প্রতি ১১‘শ টাকা।

    কিন্তু ডিলারগণ কৃষকদের বাধ্য করছে ৩ বস্তা ডিএপির কেনার পর ১ বস্তা পটাশ দিচ্ছে। কোন কোন ডিলার মাত্র ৫-১০ কেজি পটাশ দিচ্ছে। সূত্র বলছে- ডিলাররা গোপনে খোলা বাজারের দোকানদারদের নিকট বেশী দামে পটাশ বিক্রি করছে। দোকানদাররা আবার সে পটাশ সার কৃষকের কাছে বস্তা প্রতি ১৭-১৮‘শ টাকা বিক্রি করছেন তারা।

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক রানীনগরের এক কৃষক জানান, গ্রামের দোকানদার নয়ালাভাঙ্গা ইউনিয়নের ডিলারের নিকট হতে পটাশ সার ১৩-১৪’শ টাকায় কিনে এনে আমার কাছে নিয়েছে ১৮‘শ টাকা। অন্যদিকে নয়ালাভাঙ্গা ইউনিয়নে ডিলার কৃষকদেরকে মাত্র ৫-১০ কেজি করে পটাশ সার দিচ্ছে। তারা বলছেন, সরবরাহ কম থাকায় চাহিদা মত পটাশ সার দিতে পারছি না। একই অভিযোগ উপজেলার বিভিন্ন স্থানের প্রায় শতাধিক কৃষকের।

    সরজমিনে দেখা গেছে- ডিলারদের আড়তের সামনে কৃষকরা পটাশ সারের জন্য কৃষকরা সারিবদ্ধভাবে প্রখর রৌদ্রে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করছে। ডিলারদের লোকজন কৃষকদের নিকট হতে আইডি কার্ড ও মোবাইল ফোন নম্বর নিয়ে সর্বোচ্চ ২৫ কেজি পটাশ সার দিচ্ছে। কৃষি বিভাগের লোকজন তদারকি করছে। কৃষকও ডিলারের লোকজন কথাকাটাকাটি করছে। এর ফাঁকে এক শ্রেণীর লোকজন সরকারের ভাবমর্তি নষ্ট করতে নানা মুখি কথা বলে কৃষকদের উত্ত্যক্ত করার চেষ্টা করছে।

    কৃষি বিভাগের লোকজন বলছেন- আমরা শুধু দর তদারকি করছি। অন্যদিকে কৃষকদের অভিযোগ- কৃষি বিভাগের লোকজন না আসা পর্যন্ত আমাদের সার না দিয়ে চরম ভাবে হয়রানী করছে। অভিযোগ উঠেছে সরকারী ডিলারই নয় খোলাবাজারের দোকানদাররাও বিভিন্ন কোম্পানীর সার নিতে বাধ্য করছে। যান গুণগত মান অনেক কম।

    কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের শিবগঞ্জ উপজেলা সহকারী উদ্ভিদ সংরক্ষণ কর্মকর্তা শফিকুর ইসলাম জানান, উপজেলায় ১৫টি ইউনিয়নে ১৫ জন, ১টি পৌরসভায় ১ জন ও ৫ জন বিএডিসির ২১ জন ডিলার নিয়োগ দেয়া আছে। যারা প্রতিটি আড়তে সরকারী মূল্যে তালিকা ঝুলিয়ে রাখাসহ সব ধরনের সরকারী নিয়ম মেনে চলতে বাধ্য।

    তিনি আরো বলেন, সার নিয়ে কোন চালবাজি চলে না। এক শ্রেণীর লোক গুজন ছড়িয়ে বেড়াচ্ছে। তবে পটাশের ক্ষেত্রে কিছুটা সংকট দেখা দিয়েছে। আগামী কয়েকদিনের মধ্যেই সরবরাহ বেড়ে কৃষকদের চাহিদা মত সব ধরনের সার দেয়া হবে।


    আতিক/এআর

    23Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর