শিবগঞ্জে পাল্টাপাল্টি হামলা মামলায় আটক ১, পলাতক ৩ - লালসবুজের কণ্ঠ
    মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ০৩:০৯ পূর্বাহ্ন

    শিবগঞ্জে পাল্টাপাল্টি হামলা মামলায় আটক ১, পলাতক ৩

    • আপডেটের সময় : রবিবার, ৭ জুলাই, ২০১৯

    শিবগঞ্জ প্রতিনিধি: চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জে জমিজামা সংক্রান্তের জেরে দু’গ্রুপের পাল্টাপাল্টি হামলা মামলায় আজিরুল ইসলাম (৩০) নামে একজনকে দেশীয় হাসুয়াসহ আটক করে জেলহাজতে প্রেরণ করেছে।

    আটক ব্যক্তি হল- শিবগঞ্জ পৌর এলাকার সেলিমাবাদ খাঁনপাড়ার ফাইজুদ্দিনের ছেলে ও উপজেলা থ্রি-হুইলার মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক। এ ঘটনায় এলাকায় তীব্র ক্ষোভ বিরাজ করেছে।

    এদিকে রোববার দুপুরে ৪ মিনিটের একটি ভিডিও ফুটেজ সামাজিক যোগাযোগ ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে সে ফুটেজে জসিম, সাজা, মাসুদ দেশীয় অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে মুঠোফোনে কথা বলতে বলতে আজিরুলের উপর হামলার ঘটনা প্রকাশ পায়।

    এলাকাবাসির সূত্রে জানা গেছে, গত পহেলা জুলাই আজিরুলের প্রতিপক্ষ সেলিমাবাদ দেবীনগর গ্রামের হেদায়েত আলির ছেলে শাজাহান ওরফে সাজা (৩৬), জসিম উদ্দিন (২৮) ও গুধার ছেলে মাসুদ শিবগঞ্জ পাইলিং মোড়ে একটি মাইক্রোবাসে ওঁৎ পেতে বসে থাকে।

    এ সময় তারা আজিরুলকে দেখে মাইক্রোবাস থেকে নেমে দেশীয় হাসুয়া ও লোহার রড নিয়ে অতর্কিতভাবে হামলা চালায়।

    এতে আজিরুলও আত্মরক্ষার্থে দেশীয় নিয়ে প্রতিপক্ষের উপর হামলা করলে প্রতিপক্ষ তা ফেসবুকে একটি ভিডিও ছড়িয়ে দেয় মাসুদ, জসিম ও সাজা। এক পর্যায়ে পুলিশের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি পড়ে এবং শিবগঞ্জ থানা পুলিশকে ঘটনাটি খতিয়ে দেখার নির্দেশ দেন।

    শনিবার আজিরুলের নিজ বাড়ি থেকে একটি দেশীয় হাসুয়াসহ আজিরুলকে আটক করে পুলিশের পক্ষ থেকে একটি মামলা (মামলা নং-৯/৩৯০, তারিখ ০৫-০৭-১৯) দায়ের হয়। এ ঘটনার পর থেকে ওই তিনজন পলাতক রয়েছে।

    প্রতিপক্ষের হামলার শিকার আজিরুলের মা সোহাগী বেগম ক্ষোভের সঙ্গে বলেন- পৈত্রিক সম্পতি নিয়ে প্রতিপক্ষরা দীর্ঘ তিনমাস থেকে বিরোধ সৃষ্টি করে আসছে। এ নিয়ে আমার ছেলে থানায় জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে সাধারণ ডায়েরি (জিডি নং-৫২, তারিখ ০১-০৭-১৯) করেছে।

    এরপরই শিবগঞ্জ পাইলিং মোড়ে তারা আমার ছেলের উপর হামলা করেছে। কিন্তু কৌশলে শুধুমাত্র আমার ছেলের ভিডিও ফুটেজ ফেসবুকে ছড়িয়ে দিয়ে তাদের ভিডিও ফুটেজটি গোপন রাখে।

    তিনি আরও বলেন- প্রকৃত ঘটনাটি সঠিক তদন্ত করে নায্য বিচারের জোর দাবি করছি।

    এ বিষয়ে জানতে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই জুয়েল ইসলাম বলেন- ঘটনাটি সম্পর্কে আমি অবগত নয়।

    তবে আজিরুলকে দেশীয় হাসুয়াসহ আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করে থানার ওসি সিকদার মশিউর রহমান বলেন- এসআই সিরাজুল বাদি হয়ে থানায় একটি মামলা হয়েছে। এছাড়াও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা হিসেবে এসআই জুয়েলকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

    তিনি আরও বলেন- আজিরুলের প্রতিপক্ষরা যেমনটি ভিডিও ফুটেজ দেখাতে সক্ষম হয়েছে। ঠিক আজিরুলের পক্ষও যদি এ ধরনের কোন ভিডিও ফুটেজ দেখাতে পারলে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

    460Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর