1. [email protected] : News room :
রাবির অধিকাংশ হলের সিট ছাত্রলীগের নিয়ন্ত্রণে, নিরব প্রশাসন - লালসবুজের কণ্ঠ
শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০:০৯ পূর্বাহ্ন

রাবির অধিকাংশ হলের সিট ছাত্রলীগের নিয়ন্ত্রণে, নিরব প্রশাসন

  • আপডেটের সময় : বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

সানজানা শ্রুতি,রাবি প্রতিনিধি:

সানজানা শ্রুতি, রাবি প্রতিনিধি :
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) প্রায় অধিকাংশ ছাত্র হলে একচ্ছত্র আধিপত্য বিস্তার করে অবৈধভাবে সিট দখল করে রেখেছে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। নিয়ম অনুযায়ী হলে সিট বন্টনের দায়িত্ব কর্তৃপক্ষের হলেও ছাত্রলীগ নেতাকর্মীর বেপরোয়া আচরণের কারণে হল কর্তৃপক্ষ তা করতে পারছে না। নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে হলগুলোতে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরাই সিট নিয়ন্ত্রণ ও বন্টন করছে। তাদের এমন কর্মকা-ে একদিকে যেমন কোণঠাসা হয়ে পড়েছে প্রশাসন অন্যদিকেও সিট পেতে ভোগান্তিতে পড়ছে আবাসিকতা প্রাপ্ত শিক্ষার্থীরা।

হলগুলোতে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, দলের বিভিন্ন কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ ও নিজের দলে ভিড়ানোর শর্তে দলীয় কর্মী কিংবা পছন্দের কোন ছোট ভাইকে হলে সিটের ব্যবস্থা করে দিচ্ছে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। আর যাদের সিট দিচ্ছে তাদের মধ্যে অনেকের সংশ্লিষ্ট হলে সংযুক্তিও থাকেনা। এমনকি যেসব নেতা এমন কর্মকা-ে জড়িত তাদের অধিকাংশেরই সংশ্লিষ্ট হলে সংযক্তি থাকে না। শুধু তাই নয়, অনেক নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীদের কাছে সিট বিক্রি করার অভিযোগও রয়েছে।

শের-ই বাংলা হলের বাবর নামের এক ছাত্রলীগ নেতা আকাশ (ছদ্মনাম) নামের এক শিক্ষার্থীর কাছ থেকে তিন হাজার টাকায় সিট বিক্র করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। শুধু বাবর নয়, তার মতো আরও অনেক শিক্ষার্থী আছেন যাদেরকে টাকার বিনিময়ে হলে সিট দিয়েছেন ছাত্রলীগ। এ বিষয়ে বক্তব্য নিতে বাবরের ফোনে কল দিলে ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

খোঁজ নিয়ে আরও জানা যায়, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল, শের-ই বাংলা হল, সোহরাওয়ার্দী হল, মাদার বখশ, জিয়াউর রহমান, নবাব আব্দুল লফিত হল, জোহা হল ও হবিবুর রহমান হলে বিভিন্ন সময়ে ছাত্রলীগের কর্মীরা রুমে রুমে গিয়ে মাস্টার্সের শিক্ষার্থীদের লিস্ট করে। তাদের পরীক্ষা কবে শেষ এবং কবে তারা হল ছাড়বে এ সময়গুলো লিখে নেয় তারা। এসব শিক্ষার্থী চলে গেলে ওই সিটগুলো দখলে নেয় ছাত্রলীগ।

এছাড়া প্রায় প্রতিটি হলেই পলিটিক্যাল ব্লকের নামে নিজেদের দখলে রাখছে অসংখ্য সিট। আর সেসব সিটে যাদের বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে তারা সিটে না উঠেও মাসে মাসে হলের ভাড়া দিচ্ছে। এছাড়া হল প্রশাসন থেকেও যদি কোন শিক্ষার্থীকে সিটে তুলে দেওয়া হয় ছাত্রলীগ তাদেরও বের করে দিচ্ছে অভিযোগ পাওয়া গেছে। তাদের এমন বেপরোয়া কর্মকা-ে প্রশাসন নিশ্চুপ থাকার কারণে সিট পেতে শিক্ষার্থীদের ভোগান্তি দিনকে দিন বেড়েই চলেছে।

খোঁজ নিয়ে আরও জানা গেছে, বিশ্ববিদ্যালয়ের হবিবুর রহমান হলের ৪০৫ নম্বর রুমে অবৈধভাবে থাকছে বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের জার্নালিজম বিভাগের চতুর্থ সেমিস্টারের শিক্ষার্থী সাদিক। ওই হলের ছাত্রলীগ নেতা মিনহাজ তাকে হলে তুলেছে বলে জানা গেছে।

এ বিষয়ে হবিবুর রহমান হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক জাহিদুল ইসলাম বলেন, ‘আমি বিষয়টি জানি না। তবে খোঁজ নিয়ে দেখছি কেউ এমন করে থাকলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

এদিকে, গত ৯ সেপ্টেম্বর শিক্ষার্থী সাকিবুল হাসান হবিবুর রহমান হলে উঠতে গেলে হল ছাত্রলীগের নেতা মিনহাজুল ইসলাম বাধা দেন। জোরপূর্বক সিট থেকে তার জিনিসপত্র ফেলে দিয়ে সিটটি দখলে নেয় মিনহাজ। পরে বিষয়টি মীমাংসা হয়। ঠিক এর আগের দিন একই ঘটনা ঘটে সোহ্রাওয়ার্দী হলে। উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের এক শিক্ষার্থীকে হলের ৩৪৭ নম্বর কক্ষে তুলে দেয় হল প্রাধ্যক্ষ। পরে শাখা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি মাহমুদুল হাসান শাকিল তাকে সিট থেকে নামিয়ে দেন। প্রাধ্যক্ষ শাকিলের কাছে বিষয়টি জানতে চাইলে সে প্রাধ্যক্ষের সঙ্গে খারাপ আচরণ করে। পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরিয়াল বডি গিয়ে বিষয়টি সমাধান করে। এছাড়া ওই হলের ছাত্রলীগ কর্মী মাজহারুল ইসলামের বিরুদ্ধেও অবৈধভাবে সিট দখলের অভিযাগ রয়েছে।

এছাড়া গত ১ ফেব্রুয়ারি মতিহার হল থেকে অবৈধ এক শিক্ষার্থীকে হল থেকে বের করে দেন প্রাধ্যক্ষ আলী আসগর। পরে আবার ওই শিক্ষার্থীকে হলে তুলে দেয় ছাত্রলীগ। যদিও ছাত্রলীগ তখন দাবি করেছিল প্রক্টর ওই শিক্ষার্থীকে হলে তুলে দিয়েছে কিন্তু প্রক্টর হলে তুলে দেননি বলে জানিয়েছিলেন। এ ঘটনার জেরে প্রাধ্যক্ষ আলী আসগর পদত্যাগ করেন।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক হল প্রাধ্যক্ষ বলেন, গায়ের জোরে কিংবা দল ভারি করা যাই হোক না কেন নেতাকর্মীরা হলগুলোতে এসব করে যাচ্ছে। যারা অবৈধ তাদের হল থেকে বের করে দিতে গেলে বিভিন্নভাবে বাঁধা আসে।

জানতে চাইলে রাবি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ রুনু বলেন, ‘আমরা দুয়েকদিনের মধ্যেই হলের দায়িত্বে থাকা নেতাকর্মীদের নিয়ে বসবো। হলগুলোতে স্বাভাবিক পরিস্থিতি যেন বজায় থাকে আমরা সেই চেষ্টাই করবো।’

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাধ্যক্ষ পরিষদের আহ্বায়ক অধ্যাপক রেজাউল করিম বকসী বলেন, ‘আমি এ বিষয়ে শুনেছি। আগামী দুয়েকদিনের মধ্যেই উপাচার্যের সঙ্গে হল প্রাধ্যক্ষরা বসে এগুলো কীভাবে বন্ধ করা যায় সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবো।’

119Shares

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর