রাজশাহীতে রেল লাইনে বাঁশের বাতা ও কাঠের গুজ - লালসবুজের কণ্ঠ
    মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ০২:৩২ পূর্বাহ্ন

    রাজশাহীতে রেল লাইনে বাঁশের বাতা ও কাঠের গুজ

    • আপডেটের সময় : রবিবার, ৩০ জুন, ২০১৯

    ইলিয়াস আরাফাত,রাজশাহী:
    রাজশাহীর বাঘা উপজেলার আড়ানী বড়াল নদীর উপর নির্মিত রেলওয়ের ব্রিজের স্লিপারগুলো নড়বড়ে। ব্যস্ত এ রেল ব্রিজের উপর দিয়ে দিনে অনেক ট্রেন যাতায়াত করে। এমন অবস্থায় ট্রেন দুর্ঘটনা ঘটার চরম আশঙ্কা থাকে। কিন্তু রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ নেননি তেমন উদ্যোগ। স্লিপারগুলোতে ঠেকাতে কাঠের গুজ এবং বাঁশের বাতা ব্যবহার করা হয়েছে।

    স্থানীয় লোকজন জানান, আড়ানী বড়াল নদীর উপর ব্রিটিশ আমলে তৈরি এই রেল ব্রিজটির উপর দিয়ে রাজশাহী থেকে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে প্রতিদিন প্রায় ১৫টি ট্রেন (আসা-যাওয়া) গড়ে ৩০ বার চলাচল করে থাকে। বর্তমানে এই ব্রিজটির উপরে কাঠের যে স্লিপার রয়েছে তার অবস্থা একে বারে নড়বড়ে। এ কারনে ব্রিজের উপর ট্রেনগুলোকে ঝুকি নিয়ে আস্তে-আস্তে চলাচল করতে হয়।

    সরেজমিন শনিবার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে ওই ব্রিজে গিয়ে দেখা যায়, সেতুর উপর স্লিপারের সঙ্গে লাইন আটকানোর জন্য একটি স্লিপারের দুই পাশে ৮টি করে লোহার পিন দেয়ার কথা থাকলেও রয়েছে দুই থেকে তিনটি। আবার কোনটাতে একটিও নেই। এছাড়া কোনটাতে নাট বল্টু, ক্লিপ, হুক কিছুই নেই। দুই লাইনের গোড়ায় ফিসপ্লেটে চারটি নাট-বল্টু থাকার কথা সেখানেও ঘাটতি। আর যে স্লিপার গুলো রয়েছে তা বহু যুগের পুরাতন। বেশির ভাগ নষ্ট হয়ে গেছে।

    এ ছাড়াও সেতুর উপর স্লিপারের সঙ্গে লাইন আটকানো কিছু পিন একেবারে খোলা, সেগুলো হাত দিয়েও বের করা যাচ্ছে। কোন কোন স্থানে লোহার পিনের জায়গায় ব্যবহার করা হয়েছে কাঠের গুজ, স্লিপারের লোহার মোটা পাতের পরিবর্তে ব্যবহার করা হয়েছে পাতলা প্লেন সিটের পাত, বর্তমানে সেটিরও কমতি হওয়ায় স্লিপার আটকানোর জন্য ব্যবহার করা হয়েছে বাঁশের বাতা।

    এ সেতুটিতে মোট ব্যবহার করা হয়েছে ২৬২টি স্লিপার, সেই স্লিপারে ২ হাজার ৯৮টি ক্লিপ থাকার কথা। কিন্তু সেখানে রয়েছে মাত্র প্রায় ৯২৮টি। এর কিছু অংশে কাঠের গুজ এবং অন্য জায়গায় ফাঁকা রয়েছে। ২৬২টি স্লিপারের মধ্যে ৬০টি স্লিপার অত্যান্ত ঝুঁকিপুর্ণ অবস্থায় রয়েছে। সেতুটির পূর্ব দিক থেকে দুটি পিলারের পর তিন নম্বর পিলারটির নিচে কয়েক বছর আগে গোড়ায় পাথর ফেলা হয়। সেই পাথরগুলো পিলার থেকে দুরে সরে গেছে। সেখানকার পিলারের গোড়ায় পাথর, মাটি কিছুই নেই। ফলে পিলারের উত্তর দিকের নিচে ফাঁকা হয়ে গেছে। ফলে সেতুটি এখন ঝুঁকিপূর্ন হিসেবে ব্যবহার হচ্ছে।

    এ বিষয়ে আড়ানী হামিদকুড়া গ্রামের মৎস্য শিকারী আবদুল খালেক বলেন, আমি ছিপ দিয়ে প্রতিনিয়ত এ সেতু এলাকায় মাছ শিকার করি। যখন এ সেতু দিয়ে ট্রেন চলাচল করে, তখন তিন নম্বর পিলারটি আমার কাছে নড়ছে বলে মনে হয়। এছাড়া সেতুর গোড়ায় পাথর ও মাটি সরে গিয়ে ফাঁকা হয়ে গেছে। দূর্ঘটনা এড়াতে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া দরকার।
    রাজশাহীর পি-ডাব্লু আই এর ওয়েমেনের প্রধান ইয়াকুব আলী বলেন, আমি আড়ানীর ১৪ নম্বর রেল সেতুর ২৩৫ নম্বর থেকে কালাবিপাড়া ২৪১/০ নম্বর পর্যন্ত ৬ কিলোমিটার রেল রক্ষনাবেক্ষনের দায়িত্বে রয়েছি। এ এলাকার রেলের সমস্যা ব্যাপারে কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেছি।

    তবে রাজশাহীর পি-ডাব্লু আই ভবেশ চন্দ্র রাজবংশী কাঠের গুজ ও বাঁশের বাতা ব্যহারের বিষয়ে জানতে চাইলে বলেন, পিন বরাদ্দ না থাকায় ঝুঁকি এড়াতে কাঠের গুজ ও ট্রেন চলাচলের সময়ে স্লিপার যেন না নড়ে সে জন্য বাঁশের বাতা ব্যবহার করা হয়েছে। ইতিমধ্যেই ১০০টি পিন বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। সেগুলো সেতুসহ রেল লাইনের বিভিন্নস্থানে লাগানো হচ্ছে। এছাড়া আড়ানী সেতুর নষ্ট হয়ে যাওয়া ৬০টি স্লিপারের জন্য কর্তৃপক্ষের কাছে চাহিদা দেয়া হয়েছে। সেগুলো পেলে তাৎক্ষনিক লাগানো হবে।

    বাংলাদেশ রেলওয়ের রাজশাহী পশ্চিম প্রধান প্রকৌশলী আফজাল হোসেনে বলেন, আমাদের এই অঞ্চলের রেল সেতুগুলো অনেক পুরাতন হলেও এখনো অনেকটা ভালো। আজ অবধি কোন দুর্ঘটনা ঘটেনি। রেল চলার সময় জাম্পিং এ ক্লিপারগুলো সরে বা নড়ে না যায়, এজন্য বাঁশের বাতা ব্যবহার করা হয়েছে।

    42Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর