রাজশাহীতে পুলিশের সহায়তায় যেভাবে মাকে খুঁজে পেল দুই শিশু - লালসবুজের কণ্ঠ
    শনিবার, ০৮ অক্টোবর ২০২২, ১২:৪৬ পূর্বাহ্ন

    রাজশাহীতে পুলিশের সহায়তায় যেভাবে মাকে খুঁজে পেল দুই শিশু

    • আপডেটের সময় : রবিবার, ২১ আগস্ট, ২০২২

    নিউজ ডেস্ক,লালসবুজের কন্ঠ;


    গত শুক্রবার (১৯ আগস্ট) মায়ের চিকিৎসার জন্য দুই সন্তানকে নিয়ে চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে রাজশাহীতে এসেছিলেন নাজনীন আক্তার। এক পর্যায়ে সেখান থেকে হারিয়ে যায় ৭ বছরের শিশু উম্মে হাবিবা ও ৩ বছরের শিশু আদিয়া।

    শুক্রবার (১৯ আগস্ট) সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের একটি টিম শিশু দুইটিকে উদ্ধার করে তার মায়ের হাতে তুলে দেন।

    রোববার (২১ আগস্ট) দুপুরে রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশের মুখপাত্র ও অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার রফিকুল আলম এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বিষয়টি জানিয়েছেন।

    ঘটনার বিবরণে রফিকুল আলম জানান, শুক্রবার সন্ধ্যায় মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার আরেফিন জুয়েলের সার্বিক তত্ত্বাবধানে এসআই আশরাফুল ইসলাম ও তার টিম নগরী এলাকায় অভিযান ডিউটি করছিলেন।

    এসময় তারা রাজপাড়া থানার ঝাউতলা মোড়ে দুইটি শিশুকে কান্নাকাটি করতে দেখে। এসআই আশরাফুল শিশু দুইটিকে কান্নাকাটির কারণ জিজ্ঞাসা করলে তারা কিছু বলতে পারে না। তখন ডিবি পুলিশের ঐ টিম তাদের ডিবি অফিসে নিয়ে যায়। সেখানে তাদের সাথে বন্ধসুলভ আচরণ করে কান্নাকাটির কারণ জানতে চায়।

    তখন ৭ বছর বয়সী শিশু উম্মে হাবিবা জানায়, তার নাম মোসা. উম্মে হাবিবা ও তার ছোট বোন মোসা. আদিয়া (৩)। তাদের বাবা মৃত হাবিবুর রহমান। তারা মায়ের সঙ্গে ডাক্তার দেখানোর জন্য রাজশাহীতে এসেছিল।

    পরে গোয়েন্দা পুলিশের ওই টিম শিশু দুইটির মায়ের সন্ধানের জন্য আরএমপি কন্ট্রোলকে জানায়। এছাড়াও ডিবি পুলিশ রাজশাহীর বিভিন্ন ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের ম্যানেজারদের বিষয়টি জানান এবং সিকিউরিটি গার্ডদের মাধ্যমে হ্যান্ডমাইকিং করেন। দীর্ঘ প্রচেষ্টায় শিশু দুইটির মা নাজনীন আক্তারকে রাজশাহী অ্যাপোলো হাসপাতালের সামনে কান্নারত অবস্থায় খুঁজে পায়।

    শিশু দুইটির মা নাজনীন জানান, শুক্রবার বিকেলে দুই মেয়ে উম্মে হাবিবা ও আদিয়াকে সঙ্গে নিয়ে তার মায়ের চিকিৎসার জন্য রাজশাহীর জেনারেল হাসপাতালে আসেন। সেখানে নাজনীনের পরিচিত জহুরুল ইসলাম তার দুই মেয়েকে বাইরে নিয়ে আইসক্রিম কিনে দিয়ে আবার হাসপাতালের ভিতরে রেখে যান।

    চিকিৎসা শেষে নাজনীন আক্তার শিশু দুটিকে তার কাছে নিয়ে আসার জন্য জহুরুলকে ফোন দিলে সে জানায়, তাদের অনেক আগেই হাসপাতালে রেখে এসেছে। পরে তারা শিশু দুইটিকে খোঁজা-খুঁজি শুরু করেন।

    রাজশাহী মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের কার্যালয়ে শিশু দুইটিকে তার মায়ের হাতে তুলে দেওয়া হয়। পিতৃহারা শিশু দুইটিকে ফিরে পেয়ে মা নাজনীন আক্তার অত্যন্ত আনন্দিত। তিনিসহ তার নিকট আত্মীয়রা আরএমপি ডিবি পুলিশকে ধন্যবাদ জানিয়ে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন বলেও জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা।


    লালসবুজের কন্ঠ/তন্বী

    0Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর