রংপুর সিটি ভোটের প্রস্তুতি নিচ্ছে ইসি - লালসবুজের কণ্ঠ
    শনিবার, ০৮ অক্টোবর ২০২২, ০২:১৭ পূর্বাহ্ন

    রংপুর সিটি ভোটের প্রস্তুতি নিচ্ছে ইসি

    • আপডেটের সময় : সোমবার, ৮ আগস্ট, ২০২২

    রংপুর প্রর্তিনিধি:


    রংপুর সিটি করপোরেশন (রসিক) নির্বাচন নিয়ে প্রাথমিক প্রস্তুতির কাজ শুরু করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। শিগগিরই এ নির্বাচন নিয়ে কমিশন বৈঠকে বসবে সংস্থাটি।

    ইসির নির্বাচন ব্যবস্থাপনা শাখার কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, রসিক নির্বাচনের তথ্যাবলী নথি আকারে উপস্থাপনের জন্য বলেছে কমিশন। এছাড়া শিগগিরই এ নিয়ে কমিশন সভা হতে পারে। এক্ষেত্রে আগামী সপ্তাহের মধ্যেই সভাটি অনুষ্ঠিত হতে পারে।

    সর্বশেষ এই সিটিতে নির্বাচন হয়েছিল ২০১৭ সালের ২১ ডিসেম্বর। নির্বাচিত করপোরেশনের প্রথম সভা হয়েছিল ২০১৮ সালের ১৯ ফেব্রুয়ারি। যেহেতু কোনো সিটির মেয়াদ ধরা হয় প্রথম সভা থেকে পরবর্তী পাঁচ বছর, তাই এ সিটিতে নির্বাচিতদের মেয়াদ শেষ হবে ২০২৩ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি।

    ইসির যুগ্ম সচিব ফরহাদ আহাম্মদ খান জানিয়েছেন, সিটি করপোরেশন নির্বাচন আইন অনুযায়ী, কোনো সিটির মেয়াদ শেষ হওয়ার আগের ১৮০ দিনের মধ্যে ভোটগ্রহণ করতে হয়।

    এক্ষেত্রে এই সিটি নির্বাচনের সময় গণনা শুরু হবে আগামী ১৯ আগস্ট। অর্থাৎ রসিক সিটি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে ২০২২ সালের ১৯ আগস্ট থেকে ২০২৩ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে।

    ২০১৭ সালে রংপুর সিটির পুরো নির্বাচনে ভোটগ্রহণ করা হয়েছিল ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম)। বাংলাদেশ মেশিন টুলস ফ্যাক্টরির কাছ থেকে কেনা অধিকতর উন্নত এই ভোটযন্ত্রের ব্যবহার ছিল মূলত সংসদ নির্বাচনের ট্রায়াল।

    কেএম নূরুল হুদার নেতৃত্বাধীন তৎকালীন কমিশন ওই নির্বাচনে ব্যাপক সফলতা পায়। কোনো ধরনের নির্বাচনী সহিংসতা ছাড়াই ভোটগ্রহণ শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন হয়।

    নির্বাচনে নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের প্রার্থী সরফু্দ্দিন আহমেদ ঝন্টুকে প্রায় এক লাখ ভোটের ব্যবধানে হারিয়ে জয়লাভ করেন জাতীয় পার্টির প্রার্থী মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা। এবারও এই নির্বাচনে ইভিএমে ভোটগ্রহণ করা হতে পারে।

    পৌরসভা থেকে ৩৩টি ওয়ার্ড নিয়ে রংপুর সিটি করপোরেশন গঠন হয় ২০১২ সালের ২৮ জুন। এরপর প্রথম নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ওই বছর ২০ ডিসেম্বর। এতে আওয়ামী লীগের প্রার্থী সরফুদ্দিন আহমেদ ঝণ্টু প্রথম নগরপিতা হিসেবে নির্বাচিত হন।

    বর্তমানে রংপুর সিটির জনসংখ্যা প্রায় ১০ লাখ। আর ভোটার রয়েছে চার লাখের বেশি। ২০১৭ সালের দ্বিতীয় নির্বাচনের সময় ভোটার ছিল ৩ লাখ ৯৩ হাজার ৯৯৪ জন।


    মিজানুর/এআর

    20Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর