1. [email protected] : News room :
যাদের ধরা হচ্ছে কেউ চুনোপুঁটি নয় : তথ্যমন্ত্রী - লালসবুজের কণ্ঠ
রবিবার, ১৯ মে ২০২৪, ০৪:৪০ পূর্বাহ্ন

যাদের ধরা হচ্ছে কেউ চুনোপুঁটি নয় : তথ্যমন্ত্রী

  • আপডেটের সময় : রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক

ক্যাসিনো ব্যবসায় জড়িত থাকার অভিযোগে যাদের গ্রেফতার করা হয়েছে, তাদের কেউ চুনোপুঁটি নয় বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক ও তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

রবিবার (২২ সেপ্টেম্বর) সচিবালয়ে বাংলাদেশ টেলিভিশন ও বেতারের তালিকাভুক্ত শিল্পীদের সংগঠন ‘বাংলাদেশ টেলিভিশন-বেতার শিল্পী সংস্থা’র নেতাদের সঙ্গে বৈঠকের শুরুতে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী এ কথা বলেন।

ক্যাসিনো ব্যবসায় গ্রেফতারকৃতদেরও গডফাদার আছে এমন প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘যাদেরকে ধরা হচ্ছে কেউ কেঁচো নয়। কেউ চুনোপুঁটি নয়।’

প্রশ্রয়দাতাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে কিনা- জানতে চাইলে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘গ্রেফতারকৃতরা যে কথা বলেছে, আমি পত্রপত্রিকায় দুই এক জায়গায় দেখেছি। এই কথাগুলো স্টিল নট ভ্যালিডেটেড, অবশ্যই তাদের সাথে যাদের সংশ্লিষ্টতা পাওয়া যাবে তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা হবে।’

আওয়ামী লীগে শুদ্ধি অভিযান কবে থেকে- জানতে চাইলে দলের প্রচার সম্পাদক বলেন, ‘আওয়ামী লীগ পর পর তৃতীয়বার রাষ্ট্র ক্ষমতায় থাকার কারণে অনেক অনুপ্রবেশকারী আমাদের সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ে ঢুকেছে। তাদেরকে চিহ্নিত করার কাজ চলছে। ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

ক্যাসিনোতে অভিযানের বিষয়ে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, কেঁচো খুড়তে সাপ বেরিয়ে আসছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে পাল্টা প্রশ্ন রেখে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমি মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাহেবকে প্রশ্ন করব- নিজের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান হচ্ছেন বড় অজগর সাপ, যেটি গিলে সব খেয়ে ফেলে। ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানকে সেই জায়গায় রেখে আর বাংলাদেশকে পর পর পাঁচবার দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন বানিয়েছিলেন, তাদের তো এ নিয়ে কথা বলার নৈতিক অধিকার নেই।’

তিনি বলেন, মাদক, ক্যাসিনো বা অনিয়মের বিরুদ্ধে যেখানে প্রধানমন্ত্রী ব্যবস্থা গ্রহণ করছেন সেক্ষেত্রে কে কোন মতের বা কোন পথের সেটি দেখা হচ্ছে না। যেটি বিএনপির আমলে করা হয়নি। তাদের আমলে তারা বরং দুর্নীতিকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিয়েছিল। হাওয়া ভবন বানিয়ে প্রত্যেক ব্যবসায় ১০ পারসেন্ট কমিশন বসানো হয়েছিল। খোয়াব ভবন বানিয়ে আমোদ-ফূর্তি করা হতো। সেই জায়গায় প্রধানমন্ত্রী এখন এসব অনিয়ম ও মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নিয়ে অগ্রসর হচ্ছেন। এতে তো বিএনপির খুশি হওয়ার কথা, সাধুবাদ দেয়ার কথা, তাদের ব্যর্থতার জন্য লজ্জা পাওয়ার কথা।’

8Shares

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর