যশোরে একই বাড়ি থেকে পাঁচটি গরু চুরি - লালসবুজের কণ্ঠ
    মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ০৩:২০ পূর্বাহ্ন

    যশোরে একই বাড়ি থেকে পাঁচটি গরু চুরি

    • আপডেটের সময় : শনিবার, ১৬ এপ্রিল, ২০২২
    লালসবুজের কণ্ঠ রিপোর্ট, যশোর


    যশোর সদর উপজেলার নরেন্দ্রপুর ইউনিয়নের একটি বাড়ি থেকে ৫টি গরু নিয়ে গেছে চোরেরা। শনিবার (১৬ এপ্রিল) দিবাগত রাতে অত্র ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের শ্রীপদ্দি (ঘোড়াগাছা) গ্রামের রফিকুল ইসলামের বাড়ি থেকে গরু গুলো চুরি যায়।
    এঘটনায় রফিকুল ইসলামের ছেলে মোঃ রায়হান উদ্দিন যশোর কোতয়ালী মডেল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।
    চুরি যাওয়া এসব গরুর মধ্যে ২টি কালো ও ১টি লাল রংয়ের দুধের গাভী, ১ টি লালচে রংয়ের বড় বকনা, ১টি লাল ও সাদা রংয়ের এঁড়ে গরু রয়েছে। এরমধ্যে ২টি গাভীর দেড় মাস বয়সের দুধের বাছুর ফেলে যায় চোরেরা। চুরি যাওয়া এসব গরুর অনুমানিক বাজার মূল্য ৪ লাখ ৭০ হাজার টাকারও অধিক বলে জানিয়েছে পরিবারের সদস্যরা।
    পরিবারের সদস্যরা জানান, প্রতিদিনের ন্যায় ঘটনার দিন রাতে বাড়ির মধ্যের উত্তর ও দক্ষিণ পাশের ২টি গোয়াল ঘরের একটি টিনের দরজা ও একটি লোহার দরজায় তালা দিয়ে যারযার মত ঘুমিয়ে পড়ে। শনিবার ১৬ এপ্রিল আনুমানিক সকাল ৬টার দিকে ঘুম থেকে উঠে দেখতে পান গোয়াল ঘরের তালা গুলো কাঁটা ও গোয়ালের মধ্যে কোনো গরু নেই। এসময় ডাক-চিৎকারে প্রতিবেশীরা ছুঁটে আসলে সকলে আশপাশে খোঁজাখুজি করেও ৫ লক্ষাধিক টাকার গরুর কোনো সন্ধান মেলেনি। দেড় মাস বয়সের ২টি এঁড়ে বাছুর পেলেও মোট ৫টি গরু নিয়ে যায় চোরেরা।
    স্থানীয় ইউপি সদস্য (মেম্বার) আব্দুল মালেক ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ‘ এ ঘটনায় যশোর কোতয়ালী মডেল থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন চুরি যাওয়া গরুর মালিক রায়হান উদ্দিন।’
    তিনি সহ এলাকাবাসী জানান, গেলো কয়েক মাসের ব্যাধানে অন্তত ৩০ টির অধিক গরু চুরির ঘটনা ঘটেছে শ্রীপদ্দি গ্রামে। এরমধ্যে শ্রীপদ্দি (ঘোড়াগাছা) গ্রামের আব্দুর রাজ্জাকের ছেলে শাহাদাৎ হোসেনের ২টি গাভী চুরি হয়। চোরেরা এসময় ছোট বাছুর (বাচ্চা) ফেলে রেখে যায়। একই গ্রামের সামাদ হোসেনের ছেলে সাইদ হোসেনের ২টি গরু, রবিউল ইসলামের ছেলে সাইফুদ্দিন ১টি (বকনা) গরু চুরি হয়। এরমধ্যে সাইদের গোয়ালের গরু নিয়ে চিরকুট লিখে রেখে যায় গোয়াল আপনার আর গরু আমাদের।
    একই এলাকার মোশারফ হোসেনের ছেলে বজলুর রহমান নালু’র গোয়াল থেকে গরু নিয়ে যেতে না পেরে পাঁয়ের রগ কেটে রেখে যায় চোরেরা। পরদিন সকালে স্থানীয়দের সহায়তায় গুরুত্বর যখম গরুটি জবাই করে মাংস বিক্রি করতে বাধ্য হয় মালিক।
    এই গ্রামে একের পর এক গরু চুরির ঘটনা ঘটলেও কোনো প্রতিকার পাচ্ছেনা ভুক্তভুগী অসহায় পরিবার গুলি। প্রশাসনের পক্ষ থেকে নেয়া হচ্ছেনা কার্যত পদক্ষেপ। স্থানীয় একাধিক বাসিন্দা অভিযোগ করেন অত্রাঞ্চলে একটি অপরাধী চক্র সক্রিয় রয়েছে। তারা মূলতঃ মাদক কারবারের সাথে সরাসরি যুক্ত। তারাই মূলতঃ এসব কর্মকান্ডের সাথে জড়িত। এরা সবায় এলাকার চিহ্নিত হওয়া শর্তেও স্থানীয়রা ভয়ে মুখ খুলতে পারেনা।
    চুরির ঘটনা বেশ কিছুদিন বন্ধ থাকলেও ঈদকে সামনে রেখে ফের ব্যাপক ভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। তাই অতিসত্বর এই চক্রটিকে চিহ্নিত করে আইনের আওত্বায় নিয়ে আসার দাবী এলাকাবাসীর।
    তরিকুল/শ্রুতি
    0Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর