1. [email protected] : News room :
মোসাদ্দেক-আফিফে জয় টাইগারদের - লালসবুজের কণ্ঠ
শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৮:১৪ পূর্বাহ্ন

মোসাদ্দেক-আফিফে জয় টাইগারদের

  • আপডেটের সময় : শুক্রবার, ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

লালসবুজের কণ্ঠ স্পোর্টস ডেস্ক:
মিরপুরে ত্রিদেশীয় টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম ম্যাচে জয় দিয়ে শুরু করলো টাইগাররা। জয়ের জন্য বাংলাদেশের প্রয়োজন ছিলো ১৮ ওভারে ১৪৫ রানের। বৃষ্টির কারণে দুই ওভার কমে আসা ম্যাচে জিম্বাবুয়ে তুলে ৫ উইকেটে ১৪৪ রান। সে লক্ষ্য ব্যাটিংএ নেমে বাংলাদেশ নিয়মিত উইকেট হারালেও আফিফ হোসেনের ২৫ বলে ৫২ ও মোসাদ্দেক হোসেনের ৩০ রানে ভর করে ২ বল হাতে রেখেই জয় তুলে নেয় বাংলাদেশ।

আফিফ হোসেন ধ্রুবর সঙ্গে ৮২ রানের জুটি গড়ে বাংলাদেশকে অবিশ্বাস এক জয় এনে দিলেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকতও। মাত্র ২৪ বলে হাফ সেঞ্চুরি পূরণ করেন তিনি। জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে বাংলাদেশকে জয় এনে দিয়েছেন ৩ উইকেটের ব্যবধানে।

এর আগে মিরপুরে টস জিতে প্রথমে জিম্বাবুয়েকে ব্যাটিং করার আমন্ত্রণ জানান বাংলাদেশ অধিনায়ক সাকিব আল হাসান। শুরু থেকেই নিয়ন্ত্রিত বোলিং করেছে টাইগাররা। প্রথম ওভারটি বেশ দেখেশুনে কাটিয়ে দেন দুই ওপেনার ব্রেন্ডন টেলর আর হ্যামিল্টন মাসাকাদজা, ওঠে ৭ রান।

ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারেই অভিষিক্ত স্পিনার তাইজুল ইসলামকে ডেকে আনেন সাকিব। আর বল হাতে নিয়ে প্রথম বলেই উইকেট তুলে নেন তাইজুল। জিম্বাবুয়ের মারমুখী ব্যাটসম্যান ব্রেন্ডন টেলর তুলে মারতে চেয়েছিলেন তাকে, বল ভেসে যায় বাতাসে।

টেলরের স্লগ সুইপটি ঠিক মতো ব্যাটে না লাগায় সেটি থার্ড ম্যানে দাঁড়ানো মাহমুদউল্লাহর হাতে চলে যায়। টেলর করেন ৫ বলে ৬। তবে দ্বিতীয় উইকেটে বড় জুটি গড়ে তুলেন হ্যামিল্টন মাসাকাদজা আর ক্রেইগ আরভিন। এই উইকেটে ৩৩ বলে তারা যোগ করেন ৪৪ রান।

এর মধ্যে এক ওভারে ১৮ রান দিয়ে বসেন প্রথম দুই ওভারে মাত্র ৮ রান খরচায় ১ উইকেট নেয়া তাইজুল। ইনিংসের ষষ্ঠ ওভারে তার ওপর ঝাল মেটান দুই ব্যাটসম্যান মাসাকাদজা আর আরভিন।

শেষ পর্যন্ত এই জুটিটি ভেঙেছেন মোস্তাফিজুর রহমান সপ্তম ওভারে। নিজের করা প্রথম ওভারটির চতুর্থ বলেই ক্রেইগ আরভিনকে তুলে নেন কাটার মাস্টার। ১৪ বলে ১১ রান করে বাঁহাতি এই পেসারকে তুলে মারতে গিয়ে ডিপ মিডউইকেটে মোসাদ্দেকের সহজ ক্যাচ হন আরভিন।

এরপর অভিজ্ঞ মাসাকাদজাকে সাজঘরের পথ দেখান মোহাম্মদ সাইফউদ্দীন। ২৬ বলে ৫ চার আর ১ ছক্কায় ৩৪ রানে পৌঁছে যাওয়া জিম্বাবুইয়ান অধিনায়ক হয়েছেন মিড অফে দাঁড়ানো সাব্বির রহমানের দুর্দান্ত এক ক্যাচ।

জিম্বাবুয়ের এই উইকেট শিকারের খেলায় পরের ওভারে যোগ দেন মোসাদ্দেক হোসেনও। নবম ওভারে হাত ঘুরাতে এসে প্রথম বলেই শন উইলিয়ামসকে (২) ফিরতি ক্যাচ বানান এই অফস্পিনার। পরের ওভারে দুর্দান্ত এক থ্রোতে তিমিসেন মারুমাকে (১) রানআউট করেন সাকিব। তার থ্রো থেকে দ্রুতই বেল ফেলে দেন বোলার মোস্তাফিজ।

তবে ষষ্ঠ উইকেটে মুতুমবদজি আর রায়ান বার্ল ইনিংস মেরামতের দায়িত্ব নেন। এই জুটিতে সবচেয়ে মারমুখী ছিলেন বার্ল। ১৬তম ওভারে সাকিবকে রীতিমত কাঁদিয়ে ছাড়েন এই ব্যাটসম্যান। ওই এক ওভারেই তিনি তুলে নেন ৩০ রান। ২৮ বলে করেন ফিফটি।

শেষ পর্যন্ত এই জুটি থেকে ৫১ বলে আসে ৭৭ রান। বার্ল ৩২ বলে ৫৭ আর মুতুমবদজি ২৫ বলে অপরাজিত থাকেন ২১ রানে।

বাংলাদেশের পক্ষে একটি করে উইকেট নিয়েছেন তাইজুল, মোসাদ্দেক, মোস্তাফিজ আর সাইফউদ্দীন।

জিম্বাবুয়ে একাদশ: হ্যামিল্টন মাসাকাদজা, শন উইলিয়ামস, নেভিল মাডজিভা, টিনোটেন্ডা মুটুমবদজি, টনি মুনিয়োঙ্গা, কাইল জারভিস, টেন্ডাই চাটারা, ক্রেইগ আরভিন, ব্রেন্ডন টেইলর, টিমিসেন মারুমা, রায়ান বুর্ল।

বাংলাদেশ একাদশ: সাকিব আল হাসান, সৌম্য সরকার, লিটস দাস, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ, আফিফ হোসেন, মোসাদ্দেক হোসেন, সাব্বির রহমান, তাইজুল ইসলাম, সাইফ উদ্দিন, মুস্তাফিজুর রহমান।

28Shares

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর