মিঠাপুকুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা সরঞ্জাম পাচার তদন্ত টিম গঠন - লালসবুজের কণ্ঠ
    সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ০৮:৪১ পূর্বাহ্ন

    মিঠাপুকুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা সরঞ্জাম পাচার তদন্ত টিম গঠন

    • আপডেটের সময় : মঙ্গলবার, ১৯ এপ্রিল, ২০২২

    রংপুর প্রতিনিধি :


    রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে বিপুল পরিমাণ বস্তাভর্তি চিকিৎসা সরঞ্জাম চুরি করে পালানোর সময়,স্থানীয়রা চোরকে হাতে-নাতে আটক করে চিকিৎসা সরঞ্জাম উদ্ধার করেছে। তবে, অভিযুক্ত ব্যক্তি পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় গতকাল সোমবার তিন সদস্যের একটি তদন্ত টিম গঠন করেছে।

    এলাকাবাসি জানায়, শনিবার(১৬,এপ্রিল) রাতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভবন থেকে একটি বস্তাভর্তি পণ্য নিয়ে পলাশ মিয়া নামে এক যুবককে সন্দেহজনকভাবে বাইরে বের হতে দেখতে পেয়ে তার পিছু নেয় স্থানীয় কিছু ব্যক্তি। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সংলগ্ন হাফিজিয়া মাদ্রাসার কাছে পৌঁছামাত্র ওই যুবককে ধরে ফেলেন স্থানীয় বাসিন্দা রুবেল(৩০), সজিব (৩২) ও রাজু(২৮)। এসময় বস্তা ফেলে পালিয়ে যান অভিযুক্ত পলাশ। পরে বস্তা খুলে বিপুল পরিমাণ ক্যানুলা, ইনজেকশনের সিরিঞ্জ ও হ্যান্ডস গ্লোভস উদ্ধার করা হয়। এগুলো তাদের জিম্মায় রাখেন ওই স্থানীয়রা। বিষয়টি জানাজানি হলে এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়। কিন্তু স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স কর্তৃপক্ষ এ ঘটনায় কোনো আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করেনি।

    অভিযোগ উঠেছে, চুরির সাথে অভিযুক্ত পলাশ মিয়াকে এসব চিকিৎসা সরঞ্জামাদি দিয়েছেন পরিচ্ছন্নাকর্মী (ধুপি) রঙ্গবালা। ষ্টোর কিপার আবদুল মুহিত চিকিৎসা সরঞ্জামগুলো রঙ্গবালাকে সরবরাহ করেছেন। এভাবে তাদের সহযোগিতায় চুরি হয়ে যাচ্ছিল বিপুল পরিমাণ চিকিৎসা সরঞ্জাম।

    সরকারি মালামাল চুরির ঘটনায়, আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা.ওয়াহেদুজ্জামানকে প্রধান করে তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত টিম গঠন করেছে কর্তৃপক্ষ। টিমের অন্য সদস্যরা হলেন- স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক ডা. আশিকুর রহমান ও ডা. মেসবাহ আহম্মেদ। আগামী ৭ কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেওয়ার জন্য বলা হয়েছে।

    মিঠাপুকুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এর স্টোর কিপার আবদুল মহিত বলেন, কিভাবে সরকারি এসব মালামাল বাইরে গেল বলতে পারছিনা। আমাকে ফাঁসানো হচ্ছে বলে জানান তিনি।

    আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা.ওয়াহেদুজ্জামান তদন্ত টিমের প্রধান জানান, কিভাবে চুরির ঘটনা ঘটলো, তা এই মুহুর্তে বলা যাচ্ছেনা তদন্ত চলছে, কারা এই চুরির সঙ্গে জড়িত তা বের করে যথা সময়ে প্রতিবেদন জমা দেওয়া হবে।

    মিঠাপুকুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. রাশেবুল ইসলাম বলেন, মূল শীকড় বের করার চেষ্টা করা হচ্ছে। তদন্ত প্রতিবেদন হাতে পেলে অভিযুক্ত চক্রটির বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।


    মিজান/রংপুর/শান্ত

    0Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর