1. [email protected] : News room :
মানবিক আচরণে পুলিশকে গণমানুষের আস্থা অর্জনে সচেষ্ট থাকতে হবে- প্রধানমন্ত্রী - লালসবুজের কণ্ঠ
শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ০৪:১৪ পূর্বাহ্ন

মানবিক আচরণে পুলিশকে গণমানুষের আস্থা অর্জনে সচেষ্ট থাকতে হবে- প্রধানমন্ত্রী

  • আপডেটের সময় : রবিবার, ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

রাজশাহী ব্যুরো:
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘একজন মানুষ তার সবচেয়ে বিপদের সময় পুলিশের কাছে সাহায্যের জন্য আসেন। তাই পুলিশ সদস্যদের সেবা ও মানবিক আচরণের মাধ্যমে গণমানুষের আস্থা অর্জনে সচেষ্ট থাকতে হবে।’
রোবাবর (১৫ সেপ্টেম্বর) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে রাজশাহীর সারদায় অবস্থিত বাংলাদেশ পুলিশ অ্যাকাডেমিতে ৩৬তম বিসিএস সহকারি পুলিশ সুপারদের প্রশিক্ষণ সমাপনী কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা বলেন তিনি।
নবীন পুলিশ কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘জনগণের সমস্যাকে একান্ত আন্তরিক ও মানবিক দৃষ্টিকোন থেকে দেখতে হবে। জনগণের মনে পুলিশ সম্পর্কে যেন অমূলক ভীতি না থাকে, সেজন্য জনগণের সঙ্গে নিবিড় সম্পর্ক গড়ে তুলতে হবে। সমাজের নারী, শিশু ও প্রবীনদের প্রতি সংবেদনশীল আচরণ করতে হবে। সমাজ থেকে অপরাধ নির্মুলে জনসম্পৃক্ততার মাধ্যমে জনবান্ধব পুলিশ গঠনে আপনাদের অগ্রপথিকের ভূমিকা পালন করতে হবে। পেশাগত দায়িত্ব পালনের সময় জনগণের মৌলিক অধিকার, মানবাধিকার ও আইনের শাসনকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিতে হবে।’
শেখ হাসিনা আরও বলেন, ‘আমরা গণতন্ত্রকে সুপ্রতিষ্ঠিত করার মাধমে দেশে আইনের শাসন ও ন্যায়বিচার নিশ্চিত করতে চাই। আমি আশা করি- আপনাদের প্রশিক্ষণলব্ধ জ্ঞান ও অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে ‘রূপকল্প-২০২১’ এবং ‘রূপকল্প-২০৪১’ বাস্তবায়নের মাধ্যমে জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ বিনির্মাণে আন্তরিকভাবে সচেষ্ট থাকবেন। আমি আপনাদের পেশাগত সাফল্য ও উজ্জ্বল ভবিষৎ কামনা করছি।’
বক্তৃতার শুরুতেই প্রধানমন্ত্রী গভীর শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করেন সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু ও বিশ্ববন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, জাতীয় চার নেতা, মহান স্বাধীনতা সংগ্রামে জীবন উৎসর্গকারী ৩০ লাখ শহীদ, ২ লাখ নির্যাতিত মা বোনকে। মুক্তযুদ্ধে শহীদ সকল পুলিশ সদস্যের গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন তিনি।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ কালরাতে পাক হানাদার বাহনীর বিরুদ্ধে প্রথম সশস্ত্র প্রতিরোধ গড়ে তুলেছিলেন রাজারবাগ পুলিশ লাইনসের নির্ভীক পুলিশ সদস্যরা। মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে বাংলাদেশ পুলিশ একাডেমিরও রয়েছে গৌরবময় ইতিহাস। একাডেমির দেশপ্রেমিক ২৪ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী শহিদ হন। স্বাধীনতা সংগ্রামে পুলিশের গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকার স্বীকৃতিস্বরূপ আমরা বাংলাদেশ পুলিশকে ‘স্বাধীনতা পদক-২০১১’ এ ভূষিত করেছি। আমার দৃঢ় বিশ্বাস পুলিশের নবীন কর্মকর্তারাও তাদের পূর্বসূরীদের ন্যায় দেশপ্রেম, পেশাদারিত্ব ও অসীম সাহসিকতার সাথে দেশের কল্যাণে কাজ করে যাবেন।’
শেখ হাসিনা আরও বলেন, ‘১৯৭২ সালের ৯ই মে বাংলাদেশ পুলিশের প্রথম প্রশিক্ষণ সমাপনী কুচকাওয়াজ এই সারদায় অনুষ্ঠিত হয়। সেই কুচকাওয়াজ পরিদর্শন করেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। বঙ্গবন্ধু তার বলিষ্ঠ ও দূরদর্শী নেতৃত্বের মাধ্যমে সর্বদাই দেশের পুলিশকে জনগণের পুলিশ হিসেবে গড়ে তোলার জন্য অনুপ্রাণিত করতেন।’
তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু পুলিশ সদস্যদের উদ্দেশ্যে বলতেন- আপনারা স্বাধীন দেশের পুলিশ। আপনারা বিদেশী শোষকদের পুলিশ নন, জনগণের পুলিশ। আপনাদের কর্তব্য জনগণের সেবা করা, জনগণকে ভালোবাসা, দুর্দিনে জনগণকে সাহায্য করা। আমি আশা করি, আপনারা জাতির পিতার সেই প্রত্যাশা পূরণে আপনাদের উপর অর্পিত পবিত্র দায়িত্ব যথাযথভাবে পালনে সর্বদা সচেষ্ট থাকবেন।’
সরকার প্রধান বলেন, ‘বর্তমান সময়ে অপরাধের ধরণ প্রতিনিয়ত পরিবর্তিত হচ্ছে। গতানুগতিক অপরাধের পাশাপাশি সাইবার ক্রাইম, মানিলন্ডারিং, মানবপাচার ইত্যাদি বৈশ্বিক অপরাধ সংগঠিত হচ্ছে। এর সাথে যুক্ত হয়েছে সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ ও মাদকের মতো অশুভ সামাজিক ব্যাধি। সমাজ থেকে এসব অপকর্ম নির্মূলে এবং সমসাময়িক সকল চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় সবাইকে সর্বদা সচেষ্ট থাকতে হবে।’
শেখ হাসিনা আরও বলেন, ‘জঙ্গিবাদ দমনে বাংলাদেশ পুলিশের অব্যাহত সাফল্য শুধু দেশেই নয়, আন্তর্জাতিক অঙ্গণেও ব্যাপকভাবে প্রশংসিত হয়েছে। বাংলাদেশের মাটিতে কোনভাবেই জঙ্গি, সন্ত্রাসী ও যুদ্ধাপরাধীদের ঠাই হবে না। প্রযুক্তির অপব্যবহার করে একটি স্বার্থান্বেষী মহল বিভিন্ন সময় গুজব রটিয়ে সাধারণ মানুষকে বিভ্রান্ত করছে। এসব গুজব রটনাকারীদের আইনের আওতায় নিয়ে আসার পাশাপাশি সাধারণ মানুষকে সচেতন করার কর্মসূচি গ্রহণ করতে হবে।’
আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন সরকারের তিন মেয়াদে বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকান্ড তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘আমাদের সরকার বিগত ২০০৯ সালে দায়িত্ব গ্রহণের পর এদেশের সার্বিক উন্নয়ন ও জনমানুষের জীবনযাত্রার মানোন্নয়নসহ সেবা প্রাপ্তি সহজতর করার লক্ষ্যে বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। কৃষি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, বিদ্যুৎ ও জ্বালানী, বৈদেশিক নীতি ও সম্পর্ক, গ্রামণি ও নগর অবকাঠামো, ব্যবসা বাণিজ্য, সামাজিক নিরাপত্তা-প্রতিটি সেক্টরেই আজ কাঙ্খিত লক্ষ্য অর্জন সম্ভব হয়েছে। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ উৎক্ষেপন এর মাধ্যমে মহাকাশেও আমাদের অগ্রযাত্রা শুরু হয়েছে। যোগাযোগ খাতে আমাদের যুগান্তকারী উন্নয়ন সাধিত হয়েছে। মেট্রোরেল এবং নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতুন নির্মাণ কাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলেছে। ইতোমধ্যেই জাতিসংঘ বাংলাদেশকে স্বল্পোন্নত দেশ তেকে উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে ঘোষণা করেছে।’
শেখ হাসিনা বলেন, ‘সকলের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় বাংলাদেশ আজ আন্তর্জাতিক অঙ্গণে উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে সমাদৃত হচ্ছে। এই গৌরবময় অর্জনের অন্যতম অংশীদার বাংলাদেশ পুলিশ। বিগত ১০ বছরে আমরা পুলিশের সক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য বিভিন্ন কার্যক্রম বাস্তবায়ন করেছি।’
এর আগে সকাল সাড়ে ১০টায় বিমান বাহিনীর একটি বিশেষ হেলিকপ্টারে করে পুলিশ অ্যাকাডেমির হেলিপ্যাডে অবতরণ করেন প্রধানমন্ত্রী। পরে তিনি পুলিশ অ্যাকাডেমিতে সহকারী পুলিশ সুপারদের প্রশিক্ষণ সমাপনী কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে অভিবাদন গ্রহণ এবং প্যারেড পরিদর্শনে অংশ নেন। অনুষ্ঠানের সমাপনী পর্বে প্রশিক্ষণে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জনকারী কর্মকর্তাদের মাঝে ট্রফি বিতরণ করেন প্রধানমন্ত্রী।
অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কাঁমাল, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন, সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হক, ফজলে হোসেন বাদশা,ডা.সামিল উদ্দীন আহমেদ শিমুল,পুলিশের মহাপরিদর্শক জাবেদ পাটোয়ারীসহ সরকারি উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা অংশ নেন।

53Shares

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর