মানবাধিকার নিয়ে জাতিসংঘের উদ্বেগের জায়গায় নেই বাংলাদেশ - লালসবুজের কণ্ঠ
    শনিবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ১১:৩১ পূর্বাহ্ন

    মানবাধিকার নিয়ে জাতিসংঘের উদ্বেগের জায়গায় নেই বাংলাদেশ

    • আপডেটের সময় : শনিবার, ২৭ আগস্ট, ২০২২

    লালসবুজের কন্ঠ,নিউজ ডেস্ক


    জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনার এবং চিলির সাবেক প্রেসিডেন্ট মিশেল ব্যাচেলেটের সর্বশেষ রিপোর্ট অনুযায়ী জাতিসংঘের দৃষ্টিতে মানবাধিকার বা অন্যান্য বিষয়ে বাংলাদেশ সম্পর্কে কোনো উদ্বেগ প্রকাশিত হয়নি। সম্প্রতি বাংলাদেশ সফর শেষে যেসব দেশ ও অঞ্চলে মানবাধিকার এবং মানবিক অধিকার নিয়ে সমস্যা ও উদ্বেগ রয়েছে তা নিয়ে এক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছেন মিশেল। ওই প্রতিবেদনে উল্লিখিত দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশের নাম দেখা যায়নি।

    জাতিসংঘের প্রতিবেদনে যেসব দেশ গুম বা খুনের মতো বিশেষ মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা রয়েছে সেসব দেশের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। আগামী ৩১ আগস্ট জাতিসংঘের মানবাধিকার প্রধান হিসেবে চার বছর মেয়াদ পূর্ণ করবেন মিশেল। এ উপলক্ষে জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনার গত বৃহস্পতিবার (২৫ আগস্ট) প্রেস কনফারেন্সের মাধ্যমে এই রিপোর্ট প্রকাশ করেন।

    মিশেল ব্যাচেলেটের সাম্প্রতিক সফরের কথা উল্লেখ করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান গণমাধ্যমকে বলেন, তিনি বারবার বলেছেন বাংলাদেশ কোনো মানবাধিকার লঙ্ঘন করছে না এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অত্যন্ত যত্নের সঙ্গে দেশ পরিচালনা করছেন। গতকাল ঢাকার একটি হোটেলে এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি।

    তিনি আরও বলেন, ‘মিশেল ব্যাচেলেট যখন বাংলাদেশ সফরে আসেন, তখন আমরা তার সঙ্গে দীর্ঘ আলোচনা করেছি। তিনি আমাদের আগে যে প্রশ্ন পাঠিয়েছিলেন আমরা তার ভিডিও উপস্থাপনা দেখিয়েছি। সরকার তাকে জোরপূর্বক ৭৬ টি গুমের বিষয়েও ব্যাখ্যা করেছে এবং সমস্ত প্রমাণ দেখে ব্যাচেলেট বলেন, বাংলাদেশ মানবাধিকার লঙ্ঘন করছে না।

    প্রকাশিত প্রতিবেদনে রোহিঙ্গা ইস্যুকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিয়েছেন মিশেল। দেশের অর্থনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক অধিকার সম্পর্কিত মানবাধিকারকে বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে এসব ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার যুগান্তকারী অর্জনগুলোও বিশেষভাবে স্বীকৃত হয়েছে।

    এছাড়াও, কক্সবাজারের রোহিঙ্গা ক্যাম্পগুলো নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। কক্সবাজারে রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করার সময় মিশেল একজন রোহিঙ্গা শিক্ষকের সঙ্গে কথা বলেন এবং জানতে পারেন কীভাবে তার স্বপ্ন ভেঙ্গে যায়।

    প্রদিবেদনে তিনি বলেন, ৭ লাখের বেশি রোহিঙ্গা নারী, শিশু এবং পুরুষ মিয়ানমার থেকে অত্যাচারিত, নীপিড়িত অবস্থায় বাধ্য হয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছিল। মিয়ানমারের মানবাধিকার বিপর্যয় ক্রমাগত খারাপ হচ্ছে। দেশটির সেনাবাহিনী দক্ষিণ-পূর্বে কায়াহ এবং কাইনের পাশাপাশি উত্তর-পশ্চিমে চীন রাজ্য এবং বার্মার কেন্দ্রস্থলে সাগাইং এবং ম্যাগওয়ে অঞ্চলে সামরিক অভিযান পরিচালনা করছে।

    সেখানকার গ্রাম ও আবাসিক এলাকায় বিমান শক্তি ও কামানের ব্যবহার তীব্র হয়েছে। রাখাইন রাজ্যে সহিংসতার সাম্প্রতিক বৃদ্ধিও ইঙ্গিত দেয় যে দেশের সবশেষ মোটামুটি স্থিতিশীল এলাকা সশস্ত্র সংঘাতের পুনরুত্থান এড়াতে পারেনি। রোহিঙ্গা সম্প্রদায়গুলি প্রায়শই তাতমাদও এবং আরাকান আর্মিদের শিকার হয়েছে বা সরাসরি অভিযানের লক্ষ্যবস্তু হয়েছে। ১ কোটি ৪০ লাখের বেশি মানুষের জন্য এখন মানবিক সহায়তা প্রয়োজন।

    প্রতিবেদনে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে মিয়ানমারের জনগণের বিরুদ্ধে সহিংসতার প্রচারণা বন্ধ করতে, দ্রুত বেসামরিক শাসন পুনরুদ্ধারের জন্য এবং নিরাপত্তা বাহিনীর দ্বারা সংঘটিত লঙ্ঘনের বিষয়ে জবাবদিহিতায় জোর দেওয়ার জন্য সেনাবাহিনীর ওপর চাপ জোরদার করার আহ্বান জানানো হয়েছে।

    তার রিপোর্টে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে মৃত্যুদণ্ড প্রথা বাতিল করার ক্ষেত্রে নানা উদ্যোগ, অগ্রগতি ও প্রতিবন্ধকতার তথ্য উঠে আসে। কোন কোন দেশে কী কী অগ্রগতি হয়েছে, সে কথাও এসেছে এই রিপোর্টে।

    নিজের দেশ চিলিতে দুইবার রাষ্ট্রপতির দায়িত্বে পালনের অভিজ্ঞতার আলোকে মিশেল উল্লেখ করেন, রাষ্ট্র পরিচালনা অনেক কঠিন কাজ। রাষ্ট্র পরিচালনার ক্ষেত্রে সবসময়ই নানা দাবি, সংকট ও সমস্যা থাকে। রাজনৈতিক সদিচ্ছা থাকলে সব সংকটই অতিক্রম করা যায়।

    জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনার হিসেবে মিশেল ব্যাচেলেট বাংলাদেশসহ অনেক দেশ ভ্রমণ করেছেন এবং তিনি যে দেশগুলো ভ্রমণ করেছেন তার একটি তালিকা তৈরি করেছেন। দেশগুলো হলো বুরকিনা ফাসো, নাইজার, আফগানিস্তান, চীন, বসনিয়া ও হার্জেগোভিনা, পেরু এবং বাংলাদেশ।

    তিনি তার চার বছরের মেয়াদকালে সফর করা এসব দেশের যতজন মানবাধিকার কর্মী ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের ভিকটিমদের সঙ্গে কথা বলেছেন, সে বিষয়ে একটি সারসংক্ষেপ প্রকাশ করেন। এর মধ্যে আফগানিস্তানের নারী মানবাধিকার কর্মীদের সাহসের প্রশংসা, মেক্সিকোর হারিয়ে যাওয়া মানুষদের মায়েদের শক্ত মনোবলের কথা, কঙ্গো প্রজাতন্ত্রের যৌন নিপীড়নের শিকার নারীদের কথা, জলবায়ু পরিবর্তন ও অবৈধ মাইনিংয়ের কারণে নানা ঝুঁকিতে থাকা পেরুর আদিবাসীদের অধিকারের কথা এবং বুরকিনা ফাসোতে অভ্যন্তরীণ বসতিহারা মানুষের কথাও উল্লেখ করেন তিনি।

     

    নিউজ ডেস্ক/স্মৃতি

    6Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর