‘মরে যাওয়া ছাড়া কোনো পথ দেখছি না’ - লালসবুজের কণ্ঠ
    বৃহস্পতিবার, ১৮ অগাস্ট ২০২২, ০৪:০৯ পূর্বাহ্ন

     ‘মরে যাওয়া ছাড়া কোনো পথ দেখছি না’

    • আপডেটের সময় : শনিবার, ৬ আগস্ট, ২০২২

    লালসবুজের কন্ঠ,নিউজ ডেস্ক


    জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধিকে অস্বাভাবিক আখ্যা দিয়ে এর কারণে জীবনযাত্রার ব্যয় বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বাগেরহাটে সাধারণ মানুষ। তাদের দাবি, সরকারের উচিৎ জ্বালানি তেলের দাম সহনীয় পর্যায়ে রাখা। ক্ষোভ প্রকাশ করে ইব্রাহিম শেখ নামে শহরের এক বাসিন্দা বলেন, ‘সরকার যা খুশি তাই করছে। জ্বালানি তেলের দাম অস্বাভাবিক বেড়েছে। তেলের সঙ্গে সবকিছুর সম্পর্ক জড়িত। তেলের দাম বেড়ে যাওয়ায় সবকিছুর দাম আবার নতুন করে বেড়ে যাবে। এখন মরে যাওয়া ছাড়া কোনো পথ দেখছি না।’

    জেলা শহরের এক ব্যবসায়ী জাহিদুর রহমান ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘সাধারণ মানুষের আয় বাড়েনি অথচ ব্যয় বেড়েই চলেছে। সরকারি চাকরিজীবীদের প্রতি বছর বেতন বাড়লেও সাধারণ মানুষের আয় তো আর বাড়েনি। আমাদের সংসার চালানো কঠিন হয়ে যাচ্ছে। সবকিছুর দাম বেড়ে যাওয়ায় আমাদের চলতে কষ্ট হচ্ছে। সাধারণ মানুষের কথা বিবেচনা করে তেলের দাম কমানোর দাবি করছি।’

    মোটরসাইকেল চালক আরিফ শেখ বলেন, ‘বাগেরহাটের বিভিন্ন সড়কে মোটরসাইকেলে চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করি। সরকার হঠাৎ তেলের দাম অস্বাভাবিকহারে বাড়িয়েছে। এখন যাত্রীদের কাছে বেশি ভাড়া চাইলে তারা বাড়তি ভাড়া দিয়ে যেতে চাইছে না।’

    বাগেরহাট-খুলনা মহাসড়কের বাস চালক খায়রুল ইসলাম বলেন, ‘বর্তমানে বাগেরহাট থেকে খুলনার ভাড়া জনপ্রতি ৫৫ টাকা। আজ সকাল থেকে বাড়তি দামে জ্বালানি কিনে গাড়ি রাস্তায় বের করেছি। তেলের দাম বাড়লেও আমরা এখনো ভাড়া বাড়াইনি।’

    বাগেরহাটের খানজাহান আলী ফিলিং স্টেশনের ব্যবস্থাপক নজরুল ইসমলাম বলেন, ‘জ্বালানির দাম বৃদ্ধি পাওয়ার পর রাত থেকেই পাম্পে ক্রেতারা ভিড় করতে থাকেন। আমরা তাদের কাউকে ফিরাইনি। সরকারের বেঁধে দেওয়া দামে সকাল থেকে তেল বিক্রি করছি।’

    বাগেরহাট আন্ত:জেলা বাস মিনিবাস মালিক সমিতির সভাপতি শেখ নজরুল ইসলাম বলেন, ‘বাগেরহাটের অভ্যন্তরীণ ১৬টি রুটে বাস চলাচল করে। সরকার জ্বালানি তেলের দাম যে হারে বৃদ্ধি করেছে সেই হারে নতুন করে আবার ভাড়া নির্ধারণ করতে হবে। প্রশাসনের সঙ্গে সভা করে ভাড়া ঠিক করা হবে।’

    শনিবার সকাল থেকে বাগেরহাটের তেলের পাম্পগুলো বর্ধিত দামে জ্বালানি তেল বিক্রি করছে।

    প্রসঙ্গত, শুক্রবার রাতে হঠাৎ জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর ঘোষণা দেয় সরকার। বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ভোক্তা পর্যায়ে খুচরা মূল্য লিটারপ্রতি ডিজেল ও কেরোসিন ১১৪ টাকা, লিটারপ্রতি অকটেন ১৩৫ টাকা ও লিটারপ্রতি পেট্রোল ১৩০ টাকা। সর্বশেষ ২০২১ সালের ৪ নভেম্বর ডিজেল ও কেরোসিনের দাম বাড়ানো হয়। সেই সময় এই দুই জ্বালানির দাম লিটারপ্রতি ৬৫ টাকা থেকে ১৫ টাকা বাড়িয়ে ৮০ টাকা করা হয়। ৮ মাসের ব্যবধানে আবার বাড়ানো হলো তেলের দাম। তবে ওই সময় পেট্রোল আর অকটেনের দাম অপরিবর্তিত রাখা হয়েছিল। এবার সব ধরনের জ্বালানি তেলেরই দাম বাড়ানো হলো।

    নিউজ ডেস্ক/স্মৃতি

    50Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর