ভারত-পাকিস্তান মহারণ আজ - লালসবুজের কণ্ঠ
    সোমবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২২, ১১:৫০ অপরাহ্ন

    ভারত-পাকিস্তান মহারণ আজ

    • আপডেটের সময় : রবিবার, ২৮ আগস্ট, ২০২২

    নিউজ ডেস্ক, লালসবুজের কণ্ঠ;


    এশিয়া কাপ টি২০ ক্রিকেটের ১৫তম আসরের সবচেয়ে হাইভোল্টেজ ম্যাচে আজ মুখোমুখি হচ্ছে দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারত ও পাকিস্তান। দুই প্রতিবেশীর ধ্রম্নপদি ক্রিকেটীয় দ্বৈরথ দেখতে মুখিয়ে গোটা বিশ্বের ক্রিকেট অনুরাগীরা।

    এ দুই দেশের লড়াইটা বিশ্বক্রিকেটের সবচেয়ে মর্যাদাপূর্ণ হিসেবেই পরিচিতি লাভ করেছে। এই মর্যাদার লড়াইয়ে জিততে মুখিয়ে থাকে দু’দলই। তাই প্রতিবারই ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ নিয়ে থাকে বাড়তি উন্মাদনা।

    এবারও এর ব্যতিক্রম নয়। ম্যাচের আগে চলছে নানা হিসাবনিকাশ। কে কার চেয়ে এগিয়ে, কার জয়ের সম্ভাবনা বেশি, কোন মানদন্ডে একে অন্যকে পেছনে ফেলবে তারা, সেসব নিয়ে চলছে জোর জল্পনা-কল্পনা।

    বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো এশিয়া কাপের মঞ্চে আম্পায়ারিং করতে যাচ্ছেন মাসুদুর রহমান মুকুল এবং গাজী আশরাফুল আফসার সোহেল। সবচেয়ে কাঙ্ক্ষিত ভারত-পাকিস্তান ম্যাচেও মূল আম্পায়ারের ভূমিকায় থাকবেন মুকুল। এমন দায়িত্ব পেয়ে বেশ উচ্ছ্বসিত তিনি। একই সঙ্গে তার কাছে এই কাজটা বেশ চ্যালেঞ্জিংও বটে।

    সংযুক্ত আরব আমিরাতে এবারের এশিয়া কাপে বাংলাদেশ থেকে থাকবেন দুইজন আম্পায়ার। অনফিল্ড আম্পায়ার হিসেবে ভারত-পাকিস্তানের মতো বড় ম্যাচে মাঠে থাকবেন মুকুল। এ ম্যাচ নিয়ে বাড়তি উন্মাদনা থাকবে সবার মনে, তবে এটাকে বড় চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখছেন বাংলাদেশি এই আম্পায়ার।

    টুর্নামেন্টে এ’ গ্রম্নপে দুবাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে আজ (রোববার) বাংলাদেশ সময় রাত ৮টায় মুখোমুখি হবে ভারত ও পাকিস্তান। গ্রম্নপের অন্য দল হংকং। বাছাই পর্ব পেরিয়ে মূল পর্বে নাম লেখায় তুলনামূলক দুর্বল দলটি।

    রাজনৈতিক সমস্যার কারণে দ্বিপাক্ষিক সিরিজ খেলে না দু’দেশের ক্রিকেট বোর্ড। সর্বশেষ ২০১২ সালে দ্বিপাক্ষিক সিরিজ খেলেছিল ভারত-পাকিস্তান। তাই একে অপরের মুখোমুখি হতে ভারত-পাকিস্তানের অপেক্ষা করতে হয়- আইসিসির ইভেন্ট বা এশিয়া কাপের জন্য। এবার এশিয়া কাপের মঞ্চে লড়বে ভারত ও পাকিস্তান।

    ১৯৫২ সালে টেস্ট দিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে মুখোমুখি হয়েছিল ভারত ও পাকিস্তান। তখন থেকেই বাড়তি উত্তেজনা বিরাজ করে ভারত-পাকিস্তান লড়াইয়ে। সেই উত্তাপ এই আধুনিক যুগে একটুও কমেনি, বরং আরও বেড়েছে। নিয়মিত দ্বিপাক্ষিক সিরিজ না হওয়াতেই উত্তাপ বহু গুণে বেড়ে গেছে।

    দেখা হয়েছিল ভারত-পাকিস্তানের। এরপর থেকেই পরের ভারত-পাকিস্তান লড়াই দেখার জন্য উন্মুখ হয়ে পড়ে ক্রিকেটপ্রেমীরা। অবশেষে দীর্ঘ ১০ মাস পর আরও একটি ভারত-পাকিস্তান ম্যাচ।

    তবে ভারত-পাকিস্তান লড়াইকে স্রেফ একটি ‘ম্যাচ’ বলেই মনে করেন দু’দলের বর্তমান ও সাবেক ক্রিকেটাররা। তাদের মতে, এটি অন্যান্য ম্যাচের মতোই। তবে চাপ অনুভব করেন দলে থাকা ক্রিকেটাররা।

    বাড়তি চাপ থাকায়, মর্যাদার লড়াইয়ে জিততে মরিয়া ভারত ও পাকিস্তান। ভারতের অধিনায়ক রোহিত শর্মা বলেন, ‘সকলেই এই ম্যাচের দিকে তাকিয়ে থাকে। খুব চাপের ম্যাচ এটি, তা নিয়ে কোনো সন্দেহ নেই। তবে দলের পরিবেশ হালকা রাখতে চাই।’

    তিনি আরও বলেন, ‘এই ম্যাচ নিয়ে খুব ভেবে নিজেদের চাপে ফেলতে চাই না। যারা কোনো দিন পাকিস্তানের বিপক্ষে খেলেনি বা মাত্র একটি-দু’টি ম্যাচে খেলেছে, তাদের ভালো করে এই ম্যাচের গুরুত্ব বোঝাতে চাই। আমরা পাকিস্তানকে অন্য যে কোনো সাধারণ বিপক্ষের মতোই দেখছি। তবে ম্যাচ জিতেই মাঠ ছাড়ার লক্ষ্য আমাদের।’

    রোহিতের সুরে কথা বলেন পাকিস্তানের অধিনায়ক বাবর আজমও। তিনি বলেন, ‘অন্যান্য ম্যাচের মতো হলেও, ভারত-পাকিস্তান ম্যাচে বাড়তি চাপ এমনতিতেই চলে আসে। এই চাপ সামলেই লড়াই করতে হয় ক্রিকেটারদের। কারণ সকলেই জানে, এমন ম্যাচের গুরুত্ব কত বেশি। তাই জয়ের জন্য মুখিয়ে থাকে ক্রিকেটাররা। এবারও আমরা জয়ের জন্য মাঠে নামব।’

    গত টি২০ বিশ্বকাপে এককথায় ভারতকে উড়িয়ে দিয়েছিল পাকিস্তান। ১০ উইকেটে বিশাল জয়। বিশ্বকাপের মঞ্চে ভারতের বিপক্ষে প্রথমবারের মতো জয়ের দেখা পায় পাকিস্তান। এই সর্বশেষ জয়ে পাকিস্তানের আত্মবিশ্বাস অনেক বেশি এবং কিছুটা হলেও দল এগিয়ে থাকবে বলে মনে করেন বাবর। তিনি বলেন, ‘আমরা সর্বশেষ ম্যাচে জিতেছিলাম। যেভাবে ভারতকে হারিয়েছিলাম সেটি প্রশংসা করার মতোই ছিল। ওই জয় আমাদের বাড়তি অনুপ্রেরণা দিচ্ছে।’

    তবে অতীত নিয়ে ভাবতে রাজি নন রোহিত। সামনের ম্যাচের দিকেই মনোযোগী হতে চান তিনি, ‘গত বিশ্বকাপে আমরা হেরেছিলাম। ওই ম্যাচে আমরা দল হিসেবে মোটেও ভালো খেলতে পারিনি।

    এ ধরনের ম্যাচে নিজেদের সেরাটা দিতে হয়। তবে অতীতে কি হয়েছে, তা নিয়ে এখন আর আমরা ভাবছি না। শূন্য থেকে আবার এশিয়া কাপে শুরু করতে চাই। অতীতে ক’বার দুই দেশ মুখোমুখি হয়েছে এবং কে বেশি জিতেছে, এ ধরনের পরিসংখ্যান থাকবে। কিন্তু ম্যাচের দিন দু’দলকেই প্রথম থেকে শুরু করতে হবে।’

    গত আড়াই বছরেরও বেশি সময় ধরে ফর্ম নেই ভারতের অন্যতম সেরা ব্যাটার বিরাট কোহলির। তাই কোহলির ব্যাটে বড় ইনিংসের প্রত্যাশা দলের। তবে পাকিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচে রানে ফিরতে পারলে যেন এক ঢিলে দুই পাখি মারার মতো অবস্থা হবে কোহলির। পাকিস্তানের বিপক্ষে একাদশে থাকলেই, বিশ্বের ১৪তম ও ভারতের দ্বিতীয় ক্রিকেটার হিসেবে টি২০তে শততম ম্যাচ খেলতে নামবেন কোহলি।

    এ ব্যাপারে রোহিত বলেন, ‘আমাদের সবারই প্রত্যাশা কোহলি ফর্মে ফিরবে। বড় ও ম্যাচজয়ী ইনিংস খেলবে। তবে কোহলির অফফর্ম নিয়ে আমরা খুব বেশি চিন্তিত নই। দলের জয়ের জন্য সব সময়ই উন্মুখ থাকে কোহলি। বহু বছর ধরে এটাই করে আসছে সে। এবারও তাই করবে কোহলি। বড় ইনিংস খেলতে ক্ষুধার্ত হয়ে আছে সে। আর আগামী ম্যাচটি কোহলির জন্য স্পেশাল। স্পেশাল ম্যাচটি স্মরণীয় করে রাখার বড় সুযোগ তার।’

    কোহলির ফর্ম নিয়ে চিন্তিত ভারত। অন্যদিকে টুর্নামেন্ট শুরুর আগে জোড়া ধাক্কা খেয়েছে পাকিস্তান। ইনজুরির কারণে আগেই এশিয়া কাপ থেকে ছিটকে গেছেন দুই পেসার শাহিন শাহ আফ্রিদি ও মোহাম্মদ ওয়াসিম। তাদের পরিবর্তে মোহাম্মদ হাসনাইন ও হাসান আলিকে দলে নিয়েছে পাকিস্তান।

    দুই পেসারের ছিটকে যাওয়ায় হতাশ বাবর। তিনি বলেন, ‘বিশ্বমানের বোলার আফ্রিদি। সে খেললে খুব ভালো লাগত। দুর্ভাগ্যবশত ওয়াসিমও ছিটকে গেছেন। ইনজুরির ওপর তো কারও হাত নেই। আশা করছি, যারা আছে সকলেই ভালো করবে।’

    টি২০তে এখন পর্যন্ত ৯ বার মুখোমুখি হয়েছে ভারত-পাকিস্তান। সেখানে ৭বার জিতেছে ভারত। ২বার জয় পায় পাকিস্তান।

    আর এশিয়া কাপের মঞ্চে মোট ১৫ বার মুখোমুখি হয় ভারত-পাকিস্তান। তাতে জয়ের পালস্না ভারী ভারতেরই। ৮বার জয় পায় ভারত এবং ৫বার জেতে পাকিস্তান। ২টি ম্যাচ পরিত্যক্ত হয়। ২০১৬ সালের এশিয়া কাপ হয়েছিল টি২০ ফরম্যাটে। ওই আসরে ভারত ৫ উইকেটে হারিয়েছিল পাকিস্তানকে।

    পাকিস্তান দল :বাবর আজম (অধিনায়ক), শাদাব খান, আসিফ আলি, ফখর জামান, হায়দার আলি, হারিস রউফ, ইফতিখার আহমেদ, খুশদিল শাহ, মোহাম্মদ নাওয়াজ, মোহাম্মদ রিজওয়ান (উইকেটরক্ষক), হাসান আলি, নাসিম শাহ, শাহনেয়াজ দাহানি, মোহাম্মদ হাসনাইন ও উসমান কাদির।

    ভারত দল :রোহিত শর্মা (অধিনায়ক), লোকেশ রাহুল, বিরাট কোহলি, সূর্যকুমার যাদব, ঋষভ পান্ত (উইকেটরক্ষক), দিনেশ কার্তিক, হার্দিক পান্ডিয়া, রবীন্দ্র জাদেজা, রবিচন্দ্রন অশ্বিন, ভুবনেশ্বর কুমার, আর্শদিপ সিং, রবি বিষ্ণই, আভেশ খান, দীপক হুডা ও যুজবেন্দ্রা চাহাল।


    লালসবুজের কণ্ঠ/তন্বী

    25Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর