ভারতে আটক জঙ্গি রাজশাহীর শাহিন - লালসবুজের কণ্ঠ
    শনিবার, ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০২:৩৬ অপরাহ্ন

    ভারতে আটক জঙ্গি রাজশাহীর শাহিন

    • আপডেটের সময় : বুধবার, ২৬ জুন, ২০১৯

    রাজশাহী ব্যুরো :
    ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কলকাতার শিয়ালদহ স্টেশনে পার্কিং এরিয়া থেকে মহসিন ও মামুনুর রশিদ নামে দুই বাংলাদেশী জেএমবি সদস্যকে গ্রেপ্তার করে কোলকাতা পুলিশ। পরে ওই দুইজনের তথ্যে হাওড়া স্টেশন থেকে আল-আমিন ওরফে শাহিন ও রবিউল নামের আরও দুই জেএমবি সদস্যকে গ্রেপ্তার করা হয়।

    মঙ্গলবার কলকাতা পুলিশের হাতে গ্রেপ্তারদের মধ্যে আল আমিন ওরফে শাহিনের (২৩) বাড়ি রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে। শাহীন গোদাগাড়ী পৌরসভা এলাকার বুজরুক রাজারামপুর গ্রামের রিকশা চালক রফিকুল ইসলামের ছেলে বলে জানিয়েছে পুলিশ। শাহিন এলাকায় এক বছর ধরে নিখোঁজ ছিলেন।

    আল আমিন ওরফে শাহিন গোদাগাড়ী স্কুল এন্ড কলেজ থেকে এসএসসি ও গোদাগাড়ী কলেজ থেকে এইচএসসি পাশ করেন। তিনি নবাবগঞ্জ সরকারি কলেজের ব্যবস্থাপনা বিভাগের অনার্স ৩য় বর্ষের ছাত্র ছিলেন।

    স্থানীয়রা জানায়, ২০১৭ সালে বুজরুক রাজারামপুর গ্রামের আমিজুল ইসলাম রনি পুলিশের ওপর হামলা চালায়। পরে সে বন্ধুক যুদ্ধে নিহত হয়। এই আমিজুল ইসলাম রনির সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল কলকাতা পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার আল আমিন ওরফে শাহিনের।

    শাহিনের মা জানান, ২০১৮ সালের জুন মাসে পুলিশ আল আমিন ওরফে শাহিনকে আটক করতে বাড়িতে অভিযান চালায়। এ সময় পুলিশ শাহিনের ছবি, মোবাইল নম্বর ও বইপত্র নিয়ে যায়। এর পর থেকে সে নিখোঁজ ছিল। প্রায় এক বছর পরিবারের সঙ্গে শাহিনের কোনো যোগাযোগ ছিল না।

    গোদাগাড়ী থানার ওসি জাহাঙ্গীর আলম বলেন, আল আমিন ওরফে শাহিনকে গ্রেপ্তার করতে পুলিশ তার বাড়িতে কয়েকবার অভিযান চালিয়েছে। তবে তাকে পাওয়া যায়নি।

    কোলকাতা পুলিশের এসটিএফ এর জয়েন্ট সিপি শুভঙ্কর সিংহ ভারতীয় গণমাধ্যমকে জানায়, গ্রেপ্তারকৃতরা ইসলামিক স্টেট (আইএস) অনুপ্রাণিত বাংলাদেশের নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন নব্য জেএমবির সদস্য। বাংলাদেশে ব্যাপক অভিযানের কারণে তারা ভারতে পালিয়ে গা ঢাকা দেয়। তারা ফের বাংলাদেশ পালানোর ছক কষছিল। কিন্তু তার আগেই কলকাতা পুলিশের জালে ধরা পড়ে।

    কলকাতা পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গ্রেপ্তারদের কাছ থেকে ছবি, ভিডিও, মোবাইল ফোন ও আইএস মতাদর্শের বেশ কিছু প্রচার বই ও পত্রিকা পাওয়া গেছে। জিজ্ঞাসাবাদে তারা জানায়, পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন এলাকা থেকে টাকা সংগ্রহ করে জঙ্গি কার্যকলাপে ব্যবহার করত।

    30Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    এই বিভাগের আরও খবর