1. [email protected] : News room :
ব্যালট পেপারে ভোট গ্রহনের দাবি বিএনপির রিটা রহমানের - লালসবুজের কণ্ঠ
রবিবার, ১৯ মে ২০২৪, ০৫:০৭ পূর্বাহ্ন

ব্যালট পেপারে ভোট গ্রহনের দাবি বিএনপির রিটা রহমানের

  • আপডেটের সময় : বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

শফিউল করিম শফিক,রংপুর ব্যুরো
রংপুর -৩ আসনের উপ নির্বাচনে বিএনপি মনোনীত ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী রিটা রহমান বুধবার সকালে সংবাদ সম্মেলন করেছেন। এসময় তিনি আসন্ন নির্বাচন ও বিভিন্ন অপপ্রচার বিষয়ে সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে গুরুত্বপুর্ণ তথ্য উপস্থাপন করেন। নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহারের বিরোধীতা করে রিটা রহমান বলেন, এতে ফলাফল প্রভাবিত করার আশংকা রয়েছে। এর আগেও আমি ইভিএম পদ্ধতিতে ভোট গ্রহণের বিরুদ্ধে মহামান্য হাইকোর্টে মামলা করেছিলাম। এছাড়াও সংবাদ সম্মেলনে তিনি দাবি করেছেন, তাঁর স্বামী মেজর (অব:) খায়রুজ্জামান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান ও জেলহত্যা মামলার আসামী নন। একটি স্বার্থান্বেষী মহল বিএনপির জনপ্রিয়তাকে ভয় পেয়ে এই ধরণের অপপ্রচারে নেমেছে। যা নীতি নৈতিকতার পরিপন্থী। বুধবার দুপুরে রংপুর মহানগরীর শিমুলবাগ কমিউনিটি সেন্টারে এক জনার্কীণ সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ দাবি করেন।

রিটা রহমান বলেন, উদ্দেশ্যে প্রণোদিত হয়ে একটি মহল আমার স্বামী মেজর (অব:) খায়রুজ্জামানকে বঙ্গবন্ধু ও জেলহত্যা মামলার আসামী বলে অপপ্রচার চালাচ্ছে। এটি সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। আমাকে নির্বাচনে ঘায়েল করতে প্রতিপক্ষরা এ ধরণের অপপ্রচারে লিপ্ত হয়েছে। এসময় তিনি বলেন, ‘১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট আমার স্বামী মেজর (অব:) খায়রুজ্জামান ভারতে ট্রেনিংয়ে ছিলেন। বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার চার্জশিটে তার নাম ছিল না। “বঙ্গবন্ধুর হত্যা মামলার ফাইল” খুললেই এই তথ্য পাওয়া যাবে।’
তিনি আরোও বলেন, ‘মেজর খায়রুজ্জামান আসামী না হলেও ১৯৯৬ সালের ১৩ আগস্ট তাকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। তাকে জেলহত্যা মামলায়ও আসামী করা হয়েছিলো। ২০০২ সালে খায়রুজ্জামানসহ ৫ জনকে মহামান্য আদালত বেখসুর খালাস দেয়। তাই কোন যুক্তিতেই খায়রুজ্জামানকে অপরাধী বলা যাবে না।

সংবাদ সম্মলনে উপস্থিত ছিলেন, মহানগর বিএনপির সিনিয়র সহ সভাপতি সামসুজ্জামান সামু, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক আনিছুর রহমান লাকু, সাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা, মহানগর যুবদলের সাধারণ সম্পাদক লিটন পারভেজ, জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সামসুল হক ঝন্টু, যুগ্ম সম্পাদক শাহ্ জিল্লুর রহমান, মহানগর যুবদলের সাংগঠনিক সম্পাদক জহির আলম নয়ন প্রমুখ। এদিকে মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম মিজু ও জেলা বিএনপির সাধারণ রইচ আহম্মেদসহ জেলা ও মহানগরের অন্যান্য নেতৃবৃন্দের আদালতে হাজিরা থাকায় সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত হতে পারেননি বলে তিনি সাংবাদিকদের অবহিত করেন।

36Shares

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর