বিষখালী নদীর ইলিশ স্বাদে অনন্য, দামও চড়া! - লালসবুজের কণ্ঠ
    শনিবার, ০৮ অক্টোবর ২০২২, ০১:৪৭ পূর্বাহ্ন

    বিষখালী নদীর ইলিশ স্বাদে অনন্য, দামও চড়া!

    • আপডেটের সময় : বুধবার, ১০ আগস্ট, ২০২২

    নিউজ ডেস্ক, লালসবুজের কণ্ঠ:


    বিষখালী নদীতে জেলেরা সকাল-দুপুর জাল ফেলে, সন্ধ্যায় জালে ধরা পড়ে রূপালী ইলিশ। সেই তরতাজা ইলিশের পসরা বসে উপকূলীয় জনপদ বরগুনার বেতাগী পৌর শহরের সেতুর পশ্চিম পাড় ঢালে প্রতিদিন সন্ধ্যায় বসে এই ইলিশের বাজার। সন্ধ্যার পর বাজারটি জমজমাট হয়ে ওঠে। এ নদীর তরতাজা মাছ স্বাদে-গুণে অনন্য, দামও চড়া।

    জানা গেছে, বেতাগীর বিষখালী নদীর ইলিশ স্বাদে-গুণে অনন্য। এখানকার জেলেদের দাবি, বিষখালী নদীর ইলিশের স্বাদ অন্য নদীর মাছের চেয়ে অনেক বেশি। সুনিল হাওলাদার নামের এক বিক্রেতা বলেন, বিষখালীর ইলিশের মতো স্বাদ এবং বড় আকারের ইলিশ বাংলাদেশের কোথাও পাওয়া যায় না। ‘

     

    বিষখালী নদীতে নিয়মিত ইলিশ মাছ ধরার একাধিক জেলে বলেন, ‘বর্তমানে ইলিশের ভরা মৌসুম। স্থানীয় নদ-নদীতে জেলেদের জালে বড় বড় ইলিশ ধরা পড়ছে। সাধারণত আষাঢ় থেকে কার্তিক মাস পর্যন্ত বিষখালী নদীতে প্রচুর ইলিশ পাওয়া যায়। প্রায়ই দু-তিনটি বড় ইলিশ পাওয়া যায়। ’

     

    ঝোপখালী গ্রামের ইলিশ বিক্রেতা হাসিনা বেগম বলেন, সরকারি চাকরি করা এক স্যারে বাজারে আইসাই আমারে জিগায় বিষখালীর ইলিশ আছেনি। ওই স্যার আমারে কয়, দ্যাশের কত্ত জাগার ইলিশ খাইলাম, এই ইলিশের মতো কোনো ইলিশের স্বাদ নাই।

     

    হাসিনা বেগমের কথার সত্যতাও মেলে তাৎক্ষণিক। সেখান থেকেই চারটি ইলিশ কিনেছেন ওই ক্রেতা। তিনি বেতাগীর একটি সরকারি দপ্তরের কর্মকর্তা। গত তিন বছর ধরে বিষখালী নদীর ইলিশ পেলেই কিনে নেন তিনি। তিনি বলেন, ‘এই নদীর ইলিশের মতো সাইজ আর স্বাদ দেশের কোথাও নেই। ’

     

    সরেজমিনে দেখা গেছে, বেতাগী পৌর শহরের ‘টাউন ব্রিজ’ নামে পরিচিত সেতুর পশ্চিম পাড়ে বিকেল থেকে নদীর ইলিশ, আইড়, তপসি ও চিংড়ি মাছ নিয়ে জেলেরা আসতে শুরু করেন। তাঁরা বাঁশের ডালায় ইলিশের পসরা নিয়ে বসেন। দর-দাম করে ইলিশসহ অন্যান্য মাছ কেনেন ক্রেতারা।

     

    পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের মৎস্য বিভাগের গবেষক ড. লোকমান হোসেন বলেন, ‘ইলিশ সাধারণত: গভীর সমুদ্রের নোনা পানির মাছ। ডিম পাড়ার জন্য ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ নদীতে চলে আসে। এসময় এ অঞ্চলের জেলেদের জালে ধরা পড়ে। তবে মিঠা পানিতে থাকার কারণে স্বাদ ভিন্ন ভিন্ন হয় থাকে। ’

     

    পৌর শহরের বাসিন্দা কামাল হোসেন বলেন, ‘আমি প্রায়ই সন্ধ্যার পর মাছ কিনতে শহরের ঢালে আসি। এখানে তাজা ইলিশ পাওয়া যায়। আজও (মঙ্গলবার) দুটি ইলিশ কিনেছি। দেশের অন্যান্য নদীর মাছের তুলনায় বিষখালী নদীর মাছ সুস্বাদু। তবে দাম প্রায় সময়ই একটু বেশি থাকে।

     

    পৌর শহরের কলেজ এলাকার বাসিন্দা জামাল হোসেন পাঁচটি ইলিশ কিনেছেন। যার ওজন হয়েছে তিন কেজি। তিনি বলেন, ‘তাজা বড় ইলিশ দেখে কিনতে ইচ্ছা হলো। ’

     

    বেতাগী সদর ইউনিয়নের ঝোপখালী গ্রামের বাসিন্দা জেলে মোশারেফ হোসেন বিষখালী নদীতে ২০ বছর ধরে নিয়মিত ইলিশ মাছ ধরেন। তিনি বলেন, বিষখালী নদীতে পাঁচ শতাধিক জেলে আছেন। সন্ধ্যায় জেলেরা মাছ নিয়ে বেতাগী পৌর শহরের সেতুর ঢালে মাছের বাজারে চলে যান। সেখানে আড়তদার ও খুচরা বিক্রেতারা জেলেদের কাছ থেকে মাছ কিনে কেনাবেচা করেন। আবার জেলেরা নিজেরাও মাছ বিক্রির জন্য নিয়ে বসেন।

     

    উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. আবদুল গাফ্ফার বলেন, আষাঢ় থেকে কার্তিক মাস ইলিশের ভরা মৌসুম। এ সময় জেলেদের জালে প্রচুর ইলিশ ধরা পড়ে। এ বছর নদ-নদীতে বড় আকারের প্রচুর ইলিশ ধরা পড়ছে। ইলিশ ও দেশীয় মাছসহ ২০২১-২০২২ অর্থবছরে ৮৯২ টন বেশি উৎপাদন হয়েছে। এ ধারা অব্যাহত থাকলে ২০২২-২০২৩ অর্থবছরে লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে চার হাজার ৩১৮ টন।


    লালসবুজের কণ্ঠ/ তন্বী

    15Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর