1. [email protected] : News room :
বিভিন্ন দেশে আমের চাহিদা থাকার পরও কমেছে রপ্তানি - লালসবুজের কণ্ঠ
শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ০১:০৬ অপরাহ্ন

বিভিন্ন দেশে আমের চাহিদা থাকার পরও কমেছে রপ্তানি

  • আপডেটের সময় : রবিবার, ৩০ জুন, ২০১৯

লালসবুজের কণ্ঠ ডেস্ক:

ইউরোপ ও মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে আমের চাহিদা থাকার পরও কমেছে রপ্তানি। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আম রপ্তানিতে কার্গো বিমানের সুবিধা না থাকায় ভরসা যাত্রীবাহী বিমান। ফলে ভারত ও পাকিস্তানের চেয়ে বাংলাদেশকে কেজিতে প্রায় ৬০ টাকা অতিরিক্ত গুণতে হয়। তাই তাদের সাথে প্রতিযোগিতায় টিকতে পারছে না বাংলাদেশ।
আম বাংলাদেশের নিজস্ব ফল। আর ফলের রাজা বলা হয় আমকে। শুধু স্বাদেগুণে নয় অর্থনীতিতেও রাখছে বিশেষ অবদান। কেননা দেশীয় চাহিদা মিটিয়ে এখন ইউরোপ আর মধ্যপ্রাচ্যের ভোক্তার প্রিয় ফলে পরিনত হয়েছে।

কিন্তু হঠাৎ করে কমে গেছে আমের রপ্তানী। সাতক্ষীরার আম দিয়ে দেশের রপ্তানী শুরু হলেও এরার ভিন্ন চিত্র। চুক্তিবদ্ধ চাষীরা বলছেন, ঘূর্ণীঝড় ফণীর তান্ডবে কমেছে আমের উৎপাদন। রপ্তানী হলে বর্তমান মুল্যের চেয়ে বেশি দাম পেতেন বলে দাবি তাদের।
রপ্তানীকারকরা বলছেন, ভারত ও পাকিস্তানের তুলনায় বাংলাদেশ থেকে বিদেশে আম পরিবহন ব্যয় অনেক বেশি। ফলে প্রতিযোগিতায় ছিটকে পরছেন তারা।
সাপ্লাই চেইন বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শুধু পরিবহন ব্যয় নয়, ঘুর্ণীঝড় ফণীর আঘাতে আমে দেখা দিয়েছে কালোদাগ।

এজন্য তিনি রপ্তানী উপোযোগী আমের জাতের বাণিজ্যিক চাষকে দিতে হবে গুরুত্ব। তবে সরকার আমের রপ্তানী বাড়াতে বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছে বলে জানিয়েছেন কৃষিমন্ত্রণালয়ের এই উপদেষ্ঠার।
কৃষিমন্ত্রণালয়ের তথ্য বলছে, গেলবছর আমের রপ্তানী ছিল মোট ৭৬০টন। এবছর মৌসুম শেষ পর্যায়ে হলেও রপ্তানী হয়েছে মাত্র ১৬১ টন।

22Shares

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর