1. [email protected] : News room :
বিদেশি পশু প্রবেশ আতঙ্কে দেশীয় খামারিরা! - লালসবুজের কণ্ঠ
শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪, ০২:২৭ পূর্বাহ্ন

বিদেশি পশু প্রবেশ আতঙ্কে দেশীয় খামারিরা!

  • আপডেটের সময় : শনিবার, ১৩ জুলাই, ২০১৯

লালসবুজের কণ্ঠ ডেস্ক:

পবিত্র ঈদ উল আযহার বাকি আর মাত্র এক মাস। তাই কোরবানির পশু বিক্রির সব ধরনের প্রস্তুতি সারছেন দেশীয় খামারিরা। দেশীয় পশুতেই কোরবানির চাহিদা মিটবে বলে দাবি জানিয়ে তারা বিদেশি পশু প্রবেশে বড় ক্ষতির আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন।

এ বছর কোরবানির পশু বিক্রির মাধ্যমে বড় লাভের আশা প্রকাশ করে খামারিরা বলছেন, গত ঈদের চেয়ে এবার গো খাদ্যের দাম চড়া। তারপরও একটু লাভের আশায় খাদ্যের যোগান দিয়েই কোরবানির গরু প্রস্তুত করা হয়েছে। তবে বিদেশ থেকে যদি কোরবানির পশু দেশে প্রবেশ করে তাহলে বড় ক্ষতির সম্ভাবনা রয়েছে।

প্রাণিসম্পদ অধিদফতর বলছে, এ বছর দেশীয় পশু দিয়েই কোরবানির চাহিদা মেটানো সম্ভব। কোরবানির জন্য এক কোটি ১৭ লাখ গরু, ছাগল, মহিষ প্রস্তুত। এর মধ্যে গবাদি পশুর সংখ্যা ৪৫ লাখ। গত কোরবানির ঈদে এক কোটি ১৫ লাখ পশু প্রস্তুত ছিল। কিন্তু কোরবানিতে পশু জবাই করা হয়েছিল এক কোটি পাঁচ লাখ। ১০ লাখ পশুর যোগান বেশি ছিল চাহিদা থেকে। সে হিসেবে এবারও বাইরের পশু ছাড়া চাহিদা মেটানো সম্ভব।

কোরবানির ছয় মাস আগ থেকে প্রস্তুতি নেওয়া শুরু করে প্রাণিসম্পদ অধিদফতর। খামারিদের নানা ধরনের পরামর্শ ও কোরবানির পশুর স্বাস্থ্যগত সেবা দেওয়া হয়। মাঠ পর্যায়ে মনিটরিংয়ের জন্যও প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের কর্মকর্তারা নেমে পড়েছেন। কেউ যাতে কোরবানির পশু মোটাতাজাকরণে ওষুধ ব্যবহার না করেন, সে বিষয়েও পরামর্শ দিচ্ছে তারা। এর জন্য দল বেঁধে খামারে যাচ্ছেন কর্মকর্তারা।

বাংলাদেশে মোট নিবন্ধিত খামার ৬৬ হাজার, অনিবন্ধিত ৭০ হাজার। সবমিলে খামারের সংখ্যা এক লাখ ৩৬ হাজার। এসব খামার থেকে প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের হাতে এসে পৌঁছে গেছে কোরবানির পশুর তথ্য। এবার গবাদি পশু (গরু ও মহিষ) প্রস্তুত ৪৫ লাখ। ছাগল ও ভেড়া প্রস্তুত ৭২ লাখ। সবমিলে এক কোটি ১৭ লাখ পশু কোরবানির জন্য প্রস্তুত। সর্বোচ্চ এক কোটি ১০ লাখ পশু কোরবানি হতে পারে বলে ধারণা। ফলে এবারও সাত লাখ পশু অবিক্রিত থেকে যেতে পারে।

রাজধানীর মোহাম্মদপুরের খামার সাদিক এগ্রো লিমিটেডের মালিক ইমরান হোসেন বলেন, ছয় মাস আগে এক বস্তা (৩৭ কেজি) ভুসি ছিল ৮০০ টাকা। সেটার দাম বেড়ে হয়েছে এক হাজার ৪০০ টাকা। এবার গরু পালনে খরচা বেশি। তারপরও লাভের আশা করছি। তবে সেটা বাইরে থেকে গরু না এলে পাবো।

তিনি আরও বলেন, আমরা ভালো দাম পাবো। টাকা-পয়সাওলারাই কোরবানি দেন। সেক্ষেত্রে চাষিরা কিছুটা পয়সা পেলে ক্ষতি কী? আমরা চাই বিদেশ থেকে যেনো কোনো গরু দেশে না প্রবেশ করে।

এ বছর সাদিক এগ্রো লিমিটেড কোরবানির জন্য প্রস্তুত করেছে এক হাজার ৫০০ পশু। চড়া দামে গো খাদ্য কিনে এসব পশু পালন করা হয়েছে। একইসঙ্গে সাদিক এগ্রোর মতো অন্যান্য খামারও প্রস্তুত কোরবানির পশু মোটাতাজা করে।

খামিরার বলছেন, গরুর খামারেই এখন দিনরাত ব্যস্ত সময় পার করছেন। গরু মোটাতাজা করতে ঘাসের পাশাপাশি অন্যান্য খাবার খাওয়ানো হচ্ছে। খামারের এসব গরু দেশের প্রান্তিক এলাকা থেকে ছয় থেকে নয় মাস আগে কিনে এনে তা ঈদে বেশি দামে বিক্রির জন্য মোটাতাজা করছেন।

প্রাণিসম্পদ অধিদফতরের মহাপরিচালক ড. হিরেশ রঞ্জন ভৌমিক বলেন, চাষি ও খামারিরা পশুর দাম বেশি পাচ্ছেন। ফলে পশু পালনে বাংলাদেশে সফলতা এসেছে। সরকার এ বিষয়ে নানা সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছে। কোরবানির ঈদে বর্তমানে চাহিদার তুলনায় বেশি পশু মজুদ আছে।

ভারত থেকে কোরবানির পশু আমদানির কোনো প্রয়োজন নেই বলে দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, এখন আমরা স্বয়ংসম্পূর্ণ। গত কোরবানির ঈদে প্রস্তুত থাকা ১০ লাখ পশু অবিক্রিত ছিল। আশা করা হচ্ছে, এবারও চাহিদার তুলনায় কোরবানির পশু অবিক্রিত থাকবে।

173Shares

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর