বাংলাদেশে তেল-গ্যাস অনুসন্ধান এখনও তিমিরেই - লালসবুজের কণ্ঠ
    শনিবার, ০৮ অক্টোবর ২০২২, ০১:৩৭ পূর্বাহ্ন

    বাংলাদেশে তেল-গ্যাস অনুসন্ধান এখনও তিমিরেই

    • আপডেটের সময় : সোমবার, ৮ আগস্ট, ২০২২

    নিউজ ডেস্ক,লালসবুজের কন্ঠ;


    বাংলাদেশের তেল-গ্যাস অনুসন্ধান এখনও তিমিরেই রয়ে গেছে। বঙ্গবন্ধু সরকার ছাড়া সব সরকারেই যথাযথ মনোযোগ দিতে ব্যর্থ, যার সামগ্রিক ফল আজকের জ্বালানি সংকট বলে মনে করেন জ্বালানি বিশেষজ্ঞরা।

    বঙ্গবন্ধু সরকার তার সাড়ে ৩ বছরে সময়ে ৯টি কূপ খনন করেছিলেন। এর মধ্যে অফসোরে (সাগরে) ৭টি, মূল ভূ-খণ্ডে ছিল ২টি। ১৯৭৫ সালে এই ৯ আগস্ট ৫টি গ্যাস ক্ষেত্র (তিতাস, বাখরাবাদ, হবিগঞ্জ, রশিদপুর ও কৈলাশটিলা) নামমাত্র মূলে বিদেশি কোম্পানির কাছ থেকে কিনে নিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু। যার মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছিলো মাত্র ৪.৫ মিলিয়ন পাউন্ড। যার ওপর ভিত্তি করেই এখন দাঁড়িয়ে আছে বাংলাদেশের জ্বালানি খাত।

    পেট্রোবাংলা সূত্র জানিয়েছে ওই ৫ গ্যাস ফিল্ড থেকে জুন ২০২২ পর‌্যন্ত ১০.১২ ট্রিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস উত্তোলন করা হয়েছে। এসব ফিল্ডে আরও ৫.৪৬ টিসিএফ গ্যাস মজুদ আছে বলে ধারণা করা হয়।

    যার বাজার মূল্য ১ লাখ ৪৯ হাজার ৮৯০ কোটি টাকা। বঙ্গবন্ধু সরকারের পরের ৩৬ বছরে অনুসন্ধান কূপ খনন করা হয়েছে মাত্র ১২টি। ২০০১ থেকে ২০০৮ পর‌্যন্ত মাত্র ২টি কূপ খনন করেছিল বিএনপি ও তত্বাবধায়ক সরকার।

    গ্যাস সেক্টরে উন্নয়নের দিক থেকে বঙ্গবন্ধু সরকারের পরেই রযেছে বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার। তারা বঙ্গবন্ধু সরকারকে ছুঁতে না পারলেও অন্যদের চেয়ে অনেক এগিয়ে রয়েছে। অনুসন্ধান কূপ খননের পাশাপাশি রিগ ক্রয়, বাপেক্সকে ঢেলে সাজানোসহ নানা রকম কর্মযজ্ঞ চালিয়ে যাচ্ছে। স্বাধীনতার ৫০ বছরে ৪১টি কূপের মধ্যে বর্তমান সরকারের ১৩ বছরে প্রায় অর্ধেক অর্থাৎ ১৯টি কূপ খনন কাজ সম্পন্ন হয়েছে।

    বাংলাদেশ ভু-খণ্ডে স্বাধীনতার পর মাত্র ৪১টি অনুসন্ধান কূপ খনন করা হয়েছে। প্রতিবেশী ত্রিপুরা রাজ্যে ছোট্ট আয়তনে কূপ খনন করেছে ১৬০টি। তারা ১৬০টি কূপ খনন করে মাত্র ১১টি গ্যাস ফিল্ড আবিষ্কার করেছে, এরমধ্যে ৭টি থেকে উৎপাদন করছে।

    বাংলাদেশ সীমানায় ১১১ বছরে (প্রথম কূপ খনন ১৯১০ সালে) ৯৬টি কূপ খননের মাধ্যমে ২৮টি গ্যাসক্ষেত্র আবিষ্কার হয়েছে। এর বাইরে রয়েছে মোবারকপুর ও কশবার মতো কয়েকটি ফিল্ড। যেগুলোতে গ্যাসের আঁধার পেলেও বাণিজ্যিকভাবে উত্তোলনযোগ্য নয় বলে ঘোষণা করা হয় নি।

    সঙ্গত কারণেই বাংলাদেশে তেল-গ্যাস অনুসন্ধান কার্যক্রম এখনও প্রাথমিক ধাপেই রয়েছে বলে মনে করেন জ্বালানি বিশেষজ্ঞরা। বিশেষ করে গভীর সমুদ্র এবং দেশের পশ্চিমাঞ্চল থেকে গেছে এখনও হিসেবের বাইরে।

    সাগরে আমাদের পাশের সীমানা থেকে মায়ানমার গ্যাস উত্তোলন করছে, অন্যদিকে পশ্চিমাঞ্চলের পাশে অশোকনগরে তেল আবিষ্কার করেছে ভারত। এতে করে এতোদিন যারা দেশের পশ্চিমাঞ্চলে (রংপুর, রাজশাহী এবং খুলনা অঞ্চল) গ্যাস পাওয়ার সম্ভাবনা নেই মনে করতেন তারাও এখন নড়েচড়ে বসেছেন।

    বাংলাদেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চল অনেকটাই অবহেলিত থেকে গেছে। আশির দশকে নটোরের সিংড়ার পর বর্তমান সরকার পাবনার মোবারকপুরে কূপ খনন করেছে। এখানে সম্ভাবনা দেখলেও আরও বিষদ বিশ্লেষণের প্রয়োজনীয়তা দেখছে সংশ্লিষ্টরা।

    ভোলা নর্থগ্যাস ফিল্ড ও মোবারকপুরের মাঝামাঝি শরীয়তপুরে নতুন কূপ খননের উদ্যোগ নিয়েছে বাপেক্স। বাংলাদেশ প্রতি ৫ হাজার বর্গ কিলোমিটারের একটি করে কূপ খননের লক্ষ্যে কাজ করছে, আমেরিকা প্রতি ১৪ বর্গকিলোমিটারের ১টি এবং ভারত ১৮.৬ বর্গকিলোমিটারের ১টি কূপ খনন মানদণ্ড বিবেচনা করা হয়। শুধুমাত্র অনুসন্ধান কার‌্যক্রমের ঢিলেমির কারণে দেশকে চরম মাসুল দিতে হচ্ছে।

    জ্বালানি বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, দীর্ঘদিনের পুঞ্জিভূত স্থবিরতা দেশকে চরম সংকটের মধ্যে ঠেলে দিয়েছে। বর্তমান সরকার আন্তরিক হলেও অতীতের ব্যর্থতায় তাদের ভূগতে হচ্ছে।

    গ্যাস সংকট সামাল দিতে গিয়ে বিদেশ থেকে উচ্চদরে এলএনজি আমদানি করতে হচ্ছে। যার ফল এখন ভুগতে শুরু করেছে বাংলাদেশ। প্রয়োজন জরুরি ভিত্তিতে তেল-গ্যাস অনুসন্ধান বাড়ানো।

    যদি বাংলাদেশে প্রচুর গ্যাস প্রাপ্তির সম্ভাবনা দেখছে সংশ্লিষ্টরা। ১৯৮৬ সাল থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত ৯টি আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশে তেল-গ্যাস সম্পদের সম্ভাবনা নিরূপনে কাজ করে।

    কিছু সংস্থা সারাদেশে এবং কিছু সংস্থা বিশেষ এলাকায় অনুসন্ধান কার্যক্রম পরিচালনা করে। ২০০১ সালে ইউনাইটেড স্টেটস জিওলজিক্যাল সার্ভে (ইউএসজিএস) ও পেট্রোবাংলা, হাইড্রোকার্বন ইউনিট ও নরওয়েজিয়ান পেট্রোলিয়াম ডাইরেক্টরেট সমীক্ষা পরিচালনা করে। ইউএসজিএস-পেট্রোবাংলার প্রতিবেদনে সর্বনিম্ন ৮ দশমিক ৪, গড় ৩২ দশমিক ১ ও সর্বোচ্চ ৬৫ দশমিক ৭ টিসিএফ (ট্রিলিয়ন কিউবিক ঘনফুট) গ্যাস পাওয়ার সম্ভাবনা ব্যক্ত করা হয়েছে।

    অপরদিকে হাইড্রোকার্বন ইউনিট ও নরওয়েজিয়ান পেট্রোলিয়াম ডাইরেক্টরেট সর্বনিম্ন ১৯, গড় ৪২ ও সর্বোচ্চ ৬৪ টিসিএফ গ্যাস পাওয়ার সম্ভাবনা ব্যক্ত করেছে।

    বিইআরসির সদস্য মকবুল-ই এলাহী চৌধুরী বার্তা২৪.কমকে বলেন ‘১৯৯৫ সালের জাতীয় জ্বালানি নীতিমালা ফলো করলে আজকে এই সংকট হতো না। ‘ওই নীতিমালায় প্রতি বছরে মোট ৪টি করে অনুসন্ধান কূপ খনন করার কথা থাকলে কোনো সরকারেই তা মেনে চলেনি।

    তেল-গ্যাস প্রাপ্তির সম্ভাবনা, সফলতা ও অনুসন্ধানস্তর বিবেচনায় এ কথা নিশ্চিত করে বলা যায়, এদেশে ব্যাপক ভিত্তিতে অনুসন্ধান করা হলে তেল-গ্যাস প্রাপ্তির আরও যথেষ্ট সম্ভাবনা রয়েছে।’

    আন্তর্জাতিক জ্বালানি বিশেষজ্ঞ এনার্জি এন্ড পাওয়ারের কন্ট্রিবিউটিং এডিটর খন্দকার সালেক সুফী বার্তা২৪.কমকে বলেন, বাংলাদেশের সম্ভাবনা নিয়ে কারো কোনো দ্বিমত নেই। এখানে মাত্র ৯৬টি কূপ খনন করা খুবই হতাশারা।

    আমরা সহজ প্রাপ্তির বিষয়গুলো অর্জণ করেছি, কিন্তু এখন জটিল বিষয়গুলোর দিকে যেতে হবে। পশ্চিমবঙ্গ একই ধরণের কাঠামো তারা ১৫০টি ওয়েল করেছে। ঘুরে দাঁড়াতে হলে বড় ধরণের ঝাঁকুনি দিতে হবে।

    সমুদ্রসীমা জয়ের মাধ্যমে সাগরে বিশাল অঞ্চলে বাংলাদেশের অধিকার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। আমাদের পাশের ব্লকগুলো থেকে মায়ানমার বিপুল পরিমাণ গ্যাস উত্তোলন করছে। আর বাংলাদেশ অনেকটা হাত গুটিয়ে বসে রয়েছে।

    আন্তর্জাতিক দরপত্র আহ্বান করলেও তেমন সাড়া মিলছে না। এর দু’টি কারণ রয়েছে একটি হচ্ছে গ্যাসের দাম কম, আর ডাটার অভাব। বলা হচ্ছে আমাদের হাতে পর‌্যাপ্ত ডাটা নেই কারণে বহুজাতিক কোম্পানি আগ্রহি হচ্ছে না। মাল্টিক্লেইন সার্ভে করার পর পর‌্যাপ্ত ডাটা সামনে এলে অনেকে আগ্রহী হবেন।

    গ্যাসের দামের বিষয়ে একমত হলেও ডাটার অভাব মানতে নারাজ জ্বালানি বিশেষজ্ঞরা। তারা মনে করছে আমাদের কাছে যে ডাটা রয়েছে তাতেই অনেকে আগ্রহী হতেন। কিন্তু সেসব ডাটা পেট্রোবাংলা সিলড করে রেখেছে। বিদেশি কম্পানি কেনার কিংবা দেখার কোনো সুযোগ নেই।

    আন্তর্জাতিক জ্বালানি বিশেষজ্ঞ খন্দকার সালেক সূফী বলেছেন, পর‌্যাপ্ত ডাটা নেই, আমি এই কথা মানি না। ১৯৭৪ সালে যে কোম্পানিগুলো এসেছিল তারা এসে ডাটা রেখে গেছে।

    বাংলাদেশে আবিষ্কৃত ২৮টি গ্যাস ফিল্ডে প্রমাণিত ও সম্ভাব্য মিলে উত্তোলনযোগ্য গ্যাস বিবেচনা করা হয় ২৮.৬ টিসিএফ। ২০২২ সালের জুন পর‌্যন্ত ১৯.৫৩ টিসিএফ গ্যাস উত্তোলন করা হয়েছে। অবশিষ্ট মজুদ ধরা হয় মাত্র ৯ টিসিএফ। এক সময় ২৭০০ এমএমসিএফডি গ্যাস উত্তোলন করা হলেও এখন ২৪০০ এমএমসিএফডির নিচে নেমে এসেছে।

    উৎপাদন কমে যাচ্ছে পুরাতন কূপগুলোতে আরও কমতে পারে। অন্যদিকে ৩ থেকে ৪ বছরে মধ্যে এলএনজি আমদানি বৃদ্ধির সুযোগ নেই। প্রাইমারী ফুয়েল এখন বড় চ্যালেঞ্জ।

    বাপেক্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ আলী বার্তা২৪.কমকে বলেছেন, আমরা ২০২৩ সালের মধ্যে ২০২ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস উত্তোলন বাড়ানোর পরিকল্পনা নিয়েছি।

    এরমধ্যে ৫টি অনুসন্ধান ‍কূপ, ৪টি উন্নয়ন কূপ ও ৬টি ওয়ার্কওভার কূপ হাতে নেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া ২০২৫ সালের মধ্যে ৪৬টি কূপ খননের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। এতে দৈনিক ৬১৮ মিলিয়ন ঘনফুট গ্যাস উত্তোলন বাড়বে বলে আশা করা হচ্ছে।

    বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বার্তা২৪.কমকে বলেছেন, অতীতের সরকারগুলোর সামগ্রিক অবহেলার কারণে আজকের এই সংকট। আমরা কাটিয়ে উঠতে অনেক কার‌্যক্রম হাতে নিয়েছি।

    এতদিন সব ঠিকঠাকেই ছিল। ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে সারা বিশ্বেই অস্বাভাবিক পরিস্থিতি বিরাজ করছে। স্পর্ট মার্কেটে দাম বেড়ে যাওয়ায় সাময়িক ভাবে আমদানি বন্ধ। দাম কমলে আমদানি হবে, তখন আবার স্বাভাবিক অবস্থায় আসবে। অন্যদিকে দেশীয় তেল-গ্যাস অনুসন্ধ্যানেও জোর দেওয়া হয়েছে।

    ১৯৭৫ সালে ৯ আগস্ট ৫টি গ্যাস ফিল্ড কিনে নেওয়াকে এ খাতের টার্নিং পয়েন্ট বিবেচনা করা হয়। যার কারণে এখনও স্বল্পদামে গ্যাস সরবরাহ করা সম্ভব হচ্ছে।

    ঐতিহাসিক ওই ক্ষণকে স্মরণীয় করে রাখতে ২০১০ সালে ৯ আগস্টকে ‘জাতীয় জ্বালানি নিরাপত্তা দিবস’ হিসেবে পালন করা হচ্ছে। এ বছরও সেমিনারসহ বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেছে।


    লালসবুজের কন্ঠ/তন্বী

    2Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর