বরেন্দ্রে মালটা চাষে সফল হচ্ছেন চাষীরা - লালসবুজের কণ্ঠ
    রবিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, ১২:৫৬ পূর্বাহ্ন

    বরেন্দ্রে মালটা চাষে সফল হচ্ছেন চাষীরা

    • আপডেটের সময় : শুক্রবার, ২১ জুন, ২০১৯

    সামসুজোহা,তানোরঃ
    বরেন্দ্র এলাকায় মালটা ও মিষ্টি কমলা চাষ সম্প্রসারিত হচ্ছে। এসব এলাকায় আগে যেখানে শুধু ধানসহ অন্যসব ফসল চোখে পড়তো,বর্তমানে তা ছাড়িয়ে মাল্টা বাগান চোখে পড়ছে বেশি। এসব বাগানে থোকায় থোকায় এখন সোভা পাচ্ছে সবুজ মাল্টা। পেয়ারাসহ অন্য ফলের চেয়ে মিষ্টিকমলা উৎপাদন খরচ কম এবং লাভজনক হওয়ায় কৃষকেরা মাল্টাচাষে ঝুঁকে পড়ছেন।

    হর্টিকালচার সেন্টার সূত্রে জানাগেছে,আমদানি করা ভারতীয় মালটার চেয়ে বরেন্দ্র এলাকায় উৎপাদিত মাল্টা উৎকৃষ্ট ও সুস্বাদু । অন্য সব মৌসুমি ফলের চেয়ে এটি লাভের ব্যপকতা বেশি হওয়াই বরেন্দ্র অঞ্চলের চাষীরা দিনে দিনে মাল্টা চাষে ঝুঁকছে।

    চাঁপাইনবাবগঞ্জ হর্টিকালচার সেন্টার ও জেলা কৃষি সম্প্রাসারণ অধিদপ্তরের তথ্য মতে,২০১৩ সালে জেলায় মাত্র ২ বিঘা জমিতে মাল্টা চাষ শুরু করা হয়। ২০১৪ সালে হয় ৫ বিঘা। গত বছর ২০১৫ সালে বেড়ে মাল্টা চাষ হয় ১২ বিঘা জমিতে। ২০১৬ সালে জেলায় মাল্টা চাষ হয়েছে ৯৬ বিঘা জমিতে। আর ২০১৭-২০১৮ সালে তা বিস্তার হয়ে চাষ হচ্ছে প্রায় ৫০০ বিঘা জমিতে। এ হিসাব শুধু চাঁপাইনবাবঞ্জ জেলার। এছাড়াও নওগাঁ ও রাজশাহী জেলাতেও বেড়েছে মালটা চাষ।


    চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার সদর উপজেলার ঝিলিম রোড বুলুনপুর গ্রামের আকবর আলী। তার বাগানে প্রায় ৬ হাজার মাল্টা গাছ রয়েছে। গত বছর থেকে ফল পেতে শুরু করেছেন। তিনি
    মাল্টা চাষী আকবর জানান,ধানসহ অন্য ফসল করে লোকসান গুণতে হচ্ছিল। তাই তিন বছর আগে চাঁপাইনবাবগঞ্জ হর্টিকালচার সেন্টারের কৃষিবিদের পরামর্শে তার ৫০ বিঘা জমি পুরোটাই মাল্টা চাষ শুরু করেছেন। গত বছর থেকে অল্প পরিসরে ফলও পেতে শুরু করেছেন তিনি। চলতি বছর ব্যপকহারে গাছে মাল্টা এসেছে। সব মাল্টা বাজারে বিক্রি করতে পালে তিন বছরের লোকসান এ বছরেই উঠে আসবে বলে আশা তার।

    তানোর উপজেলার মু-ুমালা গ্রামের মিঠু শেখ নামের এক চাষী প্রায় তিন বিঘা জমিতে মাল্টা চাষাবাদ করছেন। তিনি জানান,তার বরেন্দ্র অঞ্চলে সব চেয়ে উঁচু জমি ছিল। সেখানে পানির ব্যবস্থা না থাকায় ভাল ভাবে ধানসহ অন্য ফসল উৎপাদন করতে পারতেননা। তাই কৃষি কর্মকর্তাদের পরামর্শে সেই তিন বিঘা জমিতে তিন বছর আগে মাল্টা চাষ শুরু করেন। গত বছর থেকে মাল্টা ধরা শুরু হয়েছে। এ বছরও আরও বেশি মাল্টা ধরেছে। তিনি চলতি বর্ষা মৌসুমে আরও পাঁচ বিঘা জমিতে মাল্টা বাগান করার পরিকল্পনা নিয়েছেন।


    এমন মাল্টা বাগান শুধু চাঁপাইনবাবঞ্জের আকবর আলী আর তানোরের মিঠু শেখই নয়। বরেন্দ্র অঞ্চল হিসাবে পরিচিতি নাচোল,রহনপুর,নওগাঁর নিয়ামতপুর, পোরশা তানোর,গোদাগাড়ী উপজেলায় শত শত কৃষক এখন মাল্টা চাষ শুরু করেছেন।
    চাঁপাইনবাবগঞ্জ হর্টিকালচার সেন্টারের উদ্যান জার্মপ্লাজম অফিসার জহুরুল ইসলাম জানান,২০১৩ সালে মতিউর রহমান নামের এক কৃষক কে প্রথমে ২ বিঘা জমিতে মাল্টার চারা প্রদর্শনী জন্য দেওয়া হয়। এর এক বছর পরেই সে ফল পেতে শুরু করে। তার এই সফলতা দেখে জেলার অনেক কৃষক মাল্টা চাষে আগ্রহী হয়ে উঠেছে। বর্তমানে চাঁপাইনবাবঞ্জ জেলাতেই প্রায় ৫০০ বিঘা জমি মাল্টা চাষ হচ্ছে।
    এ কর্মকর্তা আরও জানান,বরেন্দ্র অঞ্চলে অনেক জমিতে সেচের অভাবে ফসল উৎপাদন করা যায় না। সেসব উচু ও পতিত পড়ে থাকা জমিতে মাল্টা চাষে কৃষকদের আরও বেশি করে উৎসাহ দেয়া যেতে পারে। কারণ মাল্টা গাছে মানি খরচ নাই বললেই চলে।
    সর্বপরি আরও অধিক হারে মালটা চাষের সম্প্রসরণ করা গেলে বিদেশ থেকে আমদানী নির্ভরতা কমিয়ে দেশীয় অর্থের সাশ্রয় হবে।

    172Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর