বঙ্গবন্ধুর নাটোর, ‘উত্তরা গণভবন’ - লালসবুজের কণ্ঠ
    শনিবার, ০৮ অক্টোবর ২০২২, ১২:০৭ পূর্বাহ্ন

    বঙ্গবন্ধুর নাটোর, ‘উত্তরা গণভবন’

    • আপডেটের সময় : সোমবার, ১৫ আগস্ট, ২০২২

    রাজশাহী প্রতিবেদক:


    নাটোরে বিভিন্ন সময় রাজনৈতিক ও সাংগঠনিক কাজে আসা-যাওয়া ছিল বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের। এখানে ছিল তার অনেক পছন্দের মানুষ। নাটোর হয়ে উঠেছিলো তার পছন্দ আর ভালোলাগার জায়গা।

    সঙ্গত কারণেই নাটোরসহ উত্তরবঙ্গের উন্নয়নের স্বপ্ন দেখতেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। আর এ কাজে তিনি নাটোরকে করতে চেয়েছিলেন উত্তরবঙ্গের প্রাণকেন্দ্র। যেন নাটোর হবে দেশের দ্বিতীয় রাজধানী।

    ১৯৭২ সালের ৯ ফেব্রুয়ারি নাটোর দিঘাপতিয়া রাজবাড়িকে বঙ্গবন্ধু ‘উত্তরা গণভবন’ নামকরণ করেন। এরপর একমাস পরে বঙ্গবন্ধু উত্তরা গণভবনের মূল প্রাসাদের ভেতরে মন্ত্রিসভার একটি বৈঠকও করেন। সেই থেকেই উত্তরা গণভবন ঢাকার বাহিরে প্রধানমন্ত্রীর দ্বিতীয় বাসভবন হিসেবে পরিচিত।
    ১৯৭৪ সালে শেখ হাসিনা, শেখ রাসেল, সজিব ওয়াজেদ জয়, সায়মা ওয়াজেদ পুতুলসহ স্বপরিবারে এই গণভবনে সফরে আসেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।

    সর্বশেষ ১৯৯৬ সালে উত্তরা গণভবনে শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রীপরিষদের বৈঠক হয়।

    বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭২সালে উত্তরা গণভবনে সফরকালে রাজবাড়ি চত্ত্বরে একটি ‘হৈমন্তী’ গাছ রোপণ করেছিলেন। যা আজও দর্শনার্থীদের সৌন্দর্য্যে মুগ্ধ করে চলেছে। তিনি নাটোরে টেলিভিশনের একটি পূর্ণাঙ্গ সম্প্রচার কেন্দ্র করতে চেয়েছিলেন।

    ১৯৬৪ সালের ৮ মে নাটোর মহকুমা আওয়ামী লীগের কর্মী সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এ সম্মেলনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান প্রধান অতিথি ছিলেন। শুধু তিনি একাই নন, ওই সময়ের আওয়ামী লীগের খ্যাতনামা নেতাদেরকেও তিনি নাটোরে উপস্থিত করেছিলেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছাড়াও সম্মেলনে ছিলেন মওলানা আবদুর রশিদ তর্কবাগীশ, মতিয়ার রহমান, কামরুজ্জামানসহ অনেকে।

    নাটোর পৌরসভার মেয়র উমা চৌধুরী জলি বলেন, নাটোরে বঙ্গবন্ধুর কয়েকজন প্রিয় মানুষ ছিলেন। তাদের টানে প্রায়ই ছুটে আসতেন নাটোরে তিনি। তাদের একজন ছিল আমার বাবা শংকর গোবিন্দ চৌধুরী। বঙ্গবন্ধু তাকে গর্ভনর নিযুক্ত করেছিলেন। নাটোরে তার প্রিয় ব্যক্তিত্বদের মধ্যে ছিলেন সাবেক প্রয়াত এমপি সাইফুল ইসলাম, যুবলীগ নেতা মুজিবুর রহমান রেজা, ছাত্রলীগ নেতা মজিবর রহমান সেন্টু, আওয়ামী লীগের নেতা রমজান আলীসহ অনেক।

    স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে উমা চৌধুরী বলেন, ১৯৭১ সালে দেশ স্বাধীনের পর বঙ্গবন্ধু আসেন উত্তরা গণভবনে। এসময় বাবা প্রয়াত শংকর গোবিন্দ চৌধুরী তার কাছে যান। সেখানে বঙ্গবন্ধু বাবাকে নিয়ে একাকী হাঁটতে হাঁটতে বিভিন্ন রাজনৈতিক ও রাষ্ট্রীয় বিষয় নিয়ে আলাপ আলোচনা করতে থাকেন।

    কিছুক্ষণ পর স্থানীয় আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা উপস্থিত হন উত্তরা গণভবনে। এ সময় এক বক্তব্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বলেছিলেন, নাটোর হবে উত্তরবঙ্গের উন্নয়নের প্রাণকেন্দ্র।

    এ সময় তিনি নাটোরে একটি পূর্ণাঙ্গ টিভি সম্প্রচার কেন্দ্র স্থাপনের ঘোষণা দেন। এর কয়েকদিন পরেই নাটোর হরিশপুর ওয়াপ্দা মাঠে জনসভা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানেও বঙ্গবন্ধু নাটোরকে কেন্দ্র করে উত্তরবঙ্গের উন্নয়ন নিয়ে নানা কর্মসূচি ঘোষণা করেন।

    বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকলে নাটোরে পূর্ণাঙ্গ টিভি স্টেশনসহ উত্তরবঙ্গের উন্নয়নের প্রাণকেন্দ্র হতো নাটোর—এমন দাবি করেন উমা চৌধুরী জলি।

    নাটোর-নওগাঁ সংরক্ষিত নারী আসনের সংসদ সদস্য রত্না আহমেদ জানান, বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকলে নাটোর হতো সমৃদ্ধ নগরী। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্য দিয়ে দুষ্কৃতকারীরা শুধুমাত্র বঙ্গবন্ধু পরিবার ও আওয়ামী লীগের ক্ষতি করেনি।

    ক্ষতি করেছে নাটোরের অগ্রযাত্রার। নাটোরের চলনবিল এবং অবকাঠামোসহ সার্বিক উন্নয়ন পরিকল্পনা, উত্তরা গণভবনকে কেন্দ্র করে নাটোরকে পর্যটন নগরী হিসেবে গড়ে তোলা এবং নাটোরকে কেন্দ্র করে পুরো উত্তরবঙ্গের উন্নয়নের চিন্তা ছিল বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের। বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নকে বাস্তবায়নের কাজ করছেন। তিনি দেশের সার্বিক উন্নয়নের পাশাপাশি বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের নাটোর গড়তেও ভূমিকা পালন করছেন।

    ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সপরিবারে নিহত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে উন্নয়নবঞ্চিত জনপদে পরিণত হয় নাটোর।


    টিআর/এআর

    5Shares

    এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

    Leave a Reply

    Your email address will not be published.

    এই বিভাগের আরও খবর