1. [email protected] : News room :
ফেসবুকে এসআই সাইফ- ‘জুয়া থেকে সংসদের হুইপের আয় ১৮০ কোটি' - লালসবুজের কণ্ঠ
শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ০৯:৪৭ অপরাহ্ন

ফেসবুকে এসআই সাইফ– ‘জুয়া থেকে সংসদের হুইপের আয় ১৮০ কোটি’

  • আপডেটের সময় : সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

লালসবুজের কণ্ঠ ডেস্ক:

জুয়ার আসর থেকে গত পাঁচ বছরে ১৮০ কোটি টাকা আয় করেছেন চট্টগ্রাম আবাহনী ক্লাবের মহাসচিব এবং জাতীয় সংসদের হুইপ ও চট্টগ্রাম-১২ (পটিয়া) আসনের আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য শামশুল হক চৌধুরী বলে অভিযোগ করেছেন পুলিশ পরিদর্শক সাইফ আমিন।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফেসবুকে দেওয়া এক স্ট্যাটাসে এই অভিযোগ করেন তিনি। গত ২০ সেপ্টেম্বর তার দেওয়া স্ট্যাটাসে তিনি হুইপ ছাড়াও বিভিন্ন থানার ওসিদের অবৈধ আয়ের কথাও উল্লেখ করেছেন। সাইফ আমিন হালিশহর থানা, চট্টগ্রাম মহানগর আদালতের হাজতখানাসহ বিভিন্ন থানায় কর্মরত ছিলেন। বর্তমানে তিনি ঢাকায় কর্মরত।

পুলিশ পরিদর্শক সাইফ আমিনের ফেসবুক স্ট্যাটাসটি দৈনিক লালসবুজের কণ্ঠ’র পাঠকদের জন্য হুবহু তুলে ধরা হলো-

ফেসবুক স্ট্যাটাস

“ক্লাব – জুয়া – সাংসদ এবং ওসি

ক্যসিনো, ফ্লাশ, হাউজি, হাজারি, কাইট, পয়শা (চাঁন তারা) এগুলো আবহমান কাল থেকেই মহানগর ও জেলা সদরের ওসিদের বিনা ঝামেলায় মোটা টাকা পাওয়ার পথ।

মহানগরের ফ্ল্যাটকেন্দ্রিক দেহ ব্যবসা, ম্যাসেজ পার্লারগুলো ওসি সাহেবদের ২য় ইনকাম জেনারেটিং এসিসট্যান্স করে, থানার ক্যাশিয়ার কালেকশন করে ওসির প্রতিনিধি হিসেবে। ক্লাবপাড়ার ওসিরা এই দুই খাত থেকেই দৈনিক ৫ লাখ করে নিলেও মাসে সেটা দেড় কোটিতে পৌছায়। এবার আছে থানার সিভিল টিম, সিয়েরা ডে/নাইট, লিমা ডে/ নাইট/ গল্ফ ডে নাইট।

এরপর ডিবি। ডিবি একসঙ্গে নেয় না, তালিকা অনুযায়ী ব্যক্তিগতভাবে সংগ্রহ করা হয়। প্রতি মাসেই স্ব স্ব ইউনিট থেকে কর্মরত অফিসারদের তালিকা আপডেট করে হাউজগুলোতে পাঠানো হয়।

বাকি থাকে মাদক, ওসিরা এখন মাদকের টাকা নেয় না।

মফস্বলের ওসিরা চায় সারা বছর মেলা। মেলা মানে ধামাকা ধামাকা নৃত্য, জুয়া, হাউজি, ওয়ান/টেন আর ডাব্বা খেলা। দৈনিক ওসির ৫০ হাজার, মাসান্তে ১৫ লক্ষ, তিন মাস চললে ৪৫। ব্যস! আগের পোস্টিং ফ্রি, আর পরেরটা মজুদ। বাকি দিনে যা পান সব বোনাস।

ঢাকায় এক এমপি সাহেব একটির চেয়ার অলঙ্কৃত করেছেন। দোষের কিছু নাই। রাজনীতি বলে নকশালীরা টাকশালি। অর্থাৎ টাকশালের মালিক তারা হন।

চট্টগ্রামে শামসুল হক মাস্টার (!)। ছিঃ ধিক্কার জানাই। আমার নিজের হিসাবে তিনি আজ ৫ বছর চট্টগ্রাম আবাহনীর জুয়ার বোর্ডের মালিক, তত্ত্বাবধায়ক এবং গডফাদার। দৈনিক সর্বনিম্ন ১০ লাখ করে নিলেও আজ ৫ বছরে শুধু জুয়া থেকে নিয়েছেন প্রায় ১৮০ কোটি টাকা। ক্লাবটি হালিশহর থানায়, এমপি সাহেব ওসির জন্য মাসে হাজার দশেক টাকা পাঠান ছিঁচকে ছিনতাইকারী ও মাদকসেবী দীঘলের মারফত ( তথাকথিত যুবলীগ নেতা)। টাকার এত অবনয়নে হালিশহরের ওসিরা সেই টাকা নেন না। যদিও ওই থানায় ১৩০০টি দেহ ব্যবসার আলয় আছে। ওসি দৈনিক বাসা প্রতি ৫০০ টাকা করে ৬০ হাজার পান। মাসে এখানে ১৮ লাখ পান, তাই মাস্টারের জুয়ার আখড়া মুফতে চললে ওরা করেন না।

এই হক মাস্টারের অর্থশালী হয়ে ধরাকে সরা জ্ঞান করার অন্য কারবার হলো ইয়াবা ট্রানজিট। সরকারের কড়াকড়ি আরোপের আগ পর্যন্ত টেকনাফ থেকে আসা ইয়াবার ৮০ ভাগ তার পটিয়ায় ট্রানজিট নিত। এবং র‍্যাব এর এনকাউন্টারে মাস্টার সাবের ইয়াবা উইং কমান্ডার নিহত হলে দীর্ঘ একযুগ পর চট্টগ্রামের স্টেশন কলোনি ইয়াবা ব্যবসা বন্ধ করতে বাধ্য হয়। শত অভিযান আর আন্তরিকতা সত্ত্বেও যা বন্ধ করতে পারেননি সিএমপির সাবেক কমিশনার জনাব মোহা. সফিকুল ইসলাম, জনাব জলিল, জনাব ইকবাল বাহার চৌ.। অথচ হক মাস্টার ধোয়া তুলশী রয়ে গেলেন।

জুয়া দিয়ে এবং নিয়ে দেশময় প্রায় একই অবস্থা। আগের সরকারে করেছেন খোকা, আব্বাস, ফালু, এখন করছেন ওই এমপি, শামসু মাস্টার, খালিদ। কিন্তু সব আমলেই কমন আছেন ব্রাত্য ওসি সাহেব।”

এর আগে বন্দর নগরী চট্টগ্রামের জুয়ার আসর বন্ধ করতে নগরীর পাঁচটি ক্লাবে অভিযান চালায় র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) ও পুলিশ। শনিবার (২১ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যা ৭টার দিকে একযোগে চট্টগ্রাম মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব, আবাহনী ক্রীড়া চক্র ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীড়া চক্র ক্লাবে অভিযান চালায় র‌্যাব। ক্লাবগুলো যথাক্রমে নগরীর সদরঘাট, হালিশহর ও আইস ফ্যাক্টরি রোডে অবস্থিত। আর নগরীর এস এ খালেদ রোডে ‘ফ্রেন্ডস ক্লাব’ এবং আসরকার দিঘীর পাড়ে ‘শতদল ক্লাবে’ অভিযান চালায় কোতোয়ালী থানা পুলিশ।

তবে চট্টগ্রামের হালিশহরে আবাহনী ক্লাব লিমিটেডে ‘জুয়ার আসর বিরোধী’ অভিযান চালানোয় ক্ষোভ প্রকাশ করেন জাতীয় সংসদের হুইপ সামশুল হক চৌধুরী। আবাহনী ক্লাবের মহাসচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন তিনি। শনিবার (২১ সেপ্টেম্বর) রাতে সংসদ সদস্য সামশুল একটি গণমাধ্যমকে অভিযান প্রসঙ্গে প্রতিক্রিয়া জানান।

হুইপ সামশুল বলেন, ‘অভিযানের কারণে তাদের (ক্লাবের) সম্মানহানি হয়েছে। এটা ‘মাইন্ডে লেগেছে’। তিনি বলেন, ‘হঠাৎ করে আবাহনী ক্লাবে ঢুকে গেল। ৪-৫ ঘণ্টা ধরে অভিযান। টেলিভিশনগুলো স্ক্রল দিচ্ছে, লাইভ দিচ্ছে। মান-ইজ্জতের ব্যাপার। কিন্তু কিছুই পাওয়া গেল না। সেখানে জুয়া খেলা হয়, এমন কোনো প্রমাণ পাওয়া গেল না। তাহলে ইন্টারন্যাশনাল একটি ক্লাবের সম্মান নিয়ে এই টানাটানি কেন? এটা তো আমাদের মাইন্ডে লেগেছে। শুধু শুধু আমাদের বেইজ্জত করার অধিকার কে দিয়েছে?’

চট্টগ্রামে ক্রীড়াসংশ্লিষ্ট ক্লাবগুলোতে এই অভিযান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশের বরখেলাপ বলে মন্তব্য করেন চট্টগ্রামের পটিয়া থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য সামশুল হক চৌধুরী।

শামসুল বলেন, ‘ঢাকায় যে অভিযান হচ্ছে সেটা ঠিক আছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী মাদকের গডফাদার, যারা ক্যাসিনো চালায় তাদের বিরুদ্ধে অভিযানের নির্দেশ দিয়েছেন। কিন্তু চট্টগ্রামে কি কোনো ক্লাবে ক্যাসিনো খেলা হয়? যারা ক্লাবে বসে আড্ডা দেয়, তাস খেলে সেগুলোর বিরুদ্ধে অভিযান করতে কে নির্দেশ দিয়েছে? এসব ক্লাব থেকে ছোটখাট ফুটবল টিম, ক্রিকেট টিম, স্পোর্টস টিম পরিচালনা করা হয়। তাদের হ্যারাস করা হচ্ছে কেন? অভিযানের কারণে যদি খেলাধূলা বন্ধ হয়ে যায়, ছেলেপেলেরা যদি খেলতেও না পারে, তারা তো সন্ত্রাসী-ছিনতাইকারী হবে।’

তিনি আরও বলেন, এই ক্লাবগুলো প্রিমিয়ার লীগে খেলে। তাদের ধরছেন কেন? যারা ক্যাসিনো খেলে, মাদকের ব্যবসা করে, জুয়ার ব্যবসা করে, ঘুষ খায় তাদেরকে ধরুন।

কিন্তু এ অভিযানকে স্বাগত জানান আবাহনী ক্লাব লিমিটেডের সভাপতি ও আওয়ামী লীগ দলীয় সংসদ সদস্য এম এ লতিফ। অভিযানের পর মধ্যরাতে র‌্যাবের পক্ষ থেকে পাঠানো এক ক্ষুদেবার্তায় জানানো হয়, অভিযানে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীড়া চক্রে ক্যাসিনোর আইটেম পাওয়ায় নিয়মিত মামলা প্রক্রিয়াধীন আছে। বাকি মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব ও আবাহনী ক্রীড়া চক্র ক্লাব দুটিতে যা পাওয়া গিয়েছে তা দিয়ে জুয়ার বিষয় প্রতিষ্ঠিত করা যায় না।

মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাবের পরিচালনা কমিটির সভাপতি শাহ আলম বাবুল ও সাধারণ সম্পাদক পদে রয়েছেন শাহবুদ্দিন শামীম।

মুক্তিযোদ্ধা সংসদ ক্রীড়া চক্র পরিচালনা কমিটির সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কেন্দ্রীয় কমান্ড কাউন্সিলের সহ সাধারণ সম্পাদক মো. হারুন অর রসিদ ও সাধারণ সম্পাদক জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সহ সাধারণ সম্পাদক সরওয়ার কামাল দুলু। তবে চট্টগ্রাম মহানগর যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান ক্লাব পরিচালনা করেন বলে জানা গেছে।

এ দিকে, পুলিশ জানায়, শতদল ক্লাব ও ফ্রেন্ডস ক্লাবে অভিযানে জুয়ার আসর বসানোর কোনো আলামত পাওয়া যায়নি।

47Shares

এই পোস্টটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরও খবর